বাবলি

আগের সংবাদ

অশ্রুডানায় সূর্য খোঁজার পালা

পরের সংবাদ

অসময়ের বৃষ্টি ও সাহিত্যশিল্পী আবুল হোসেন

শাহমুব জুয়েল

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ১৩, ২০২০ , ৮:৩৬ অপরাহ্ণ

সমগোত্রীয় ও সঠিক লেভেল ধরে ঔপন্যাসিক নিটোল চরিত্রকে ধারণ করেছেন। আঙ্গিকশৈলিতা উপস্থাপনে কাব্যফলে তৈরি করেছেন। পাঠ ও রস সন্নিবেশ তাঁর অতুলনীয় সে হিসেবে অসময়ের বৃষ্টি ও কথাশিল্পী হয়েছেন মাটির প্রতিচ্ছবি। কবি আবুল হোসেন ১৫ আগস্ট ১৯২২ সালের ১৫ আগস্ট খুলনা জেলার ফকিরহাট উপজেলা আড়ুয়াঙ্গা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। কথাসাহিত্যিক আবুল হোসেনের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা।

চল্লিশ দশকের সাহিত্যশিল্পী আবুল হোসেন। কবিতায় নিমগ্ন হলেও তিনি কথাসাহিত্যেও সংযত-রুচিশীল শিল্পী ছিলেন। মানুষকে জেনে সমকালের সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা, খুন রাহাজানি, দাঙ্গা-হাঙ্গামা, দুর্ঘটনার সংবাদ প্রকাশ করলেও জনপদের বিস্তর সমস্যা, শোক, ভালোবাসা, জীবনসংগ্রাম, কুসংস্কারকেও অনুষঙ্গ করেছেন। অসহনীয় সময়ের গ্যাঁড়াকলে প্রকাশিত লোকোপন্যাস অসময়ের বৃষ্টি। উপন্যাসের ঘটনাপ্রবাহ চিত্র উপস্থাপন ও নির্মাণ মনে হচ্ছে সমাজের গভীরে প্রবেশ করে মাটি খুঁড়ে আনা সমাজবাস্তবতা। উপন্যাসের ডলার ও লীরা জীবনবোধের সাথে সঙ্গত চরিত্র। কল্পনা ও বাস্তবতার আদলে কৌশলী ঔপন্যাসিক শিল্পভাষ্যেও দারুণ সৃজনশৈলিতা দেখিয়েছেন।
উপন্যাসে চমৎকার জুটি যাদের দেখলে সবার মন জুড়ায়। কপোত-কপোতির মতো একসাথে থাকে। ডলার ও লীরা নামে দারুণ মেলবন্ধন রয়েছে। দুটিই মুদ্রার নাম। ডলার আমেরিকার মুদ্রার নাম লীরা ইতালির। ভিন্ন আঙ্গিকের নাম দিয়ে সরলবর্গীয় ঘটনার অবতারণা করে চরম নাটকীয়তার বহিঃপ্রকাশ করেছেন। ভৌতিক চিত্রভাষ্যে তার অসাধারণ কৃতিত্ব দেখতে পাওয়া যায়। লীরাকে রেখে ডলার চলে গেলে ঝোঁপঝাড়ের মাঝে দুটো ঝল্ ঝল্ চোখ দেখতে পায়। গ্রামে রাতে বিড়ালের ঘোরাফেরা দেখে জনপদের মানুষ অভ্যস্ত হলেও হঠাৎ করে আতঙ্কিত হতে হয়। সেভাবেই লীরা দুটো চোখে আতঙ্কিত হয়েছে তারপরেরই বিড়াল দেখে ভয়মুক্ত হয়। ডলার রিকশা নিয়ে আসে লীরা টেনশনে থাকায় ডলারের পাশে উঠার প্রস্তুতিকালে পেছনে তার জন্য আরেকটা রিকশা আছে। এতে হালকা মনোমালিন্যের ভাব ধরা পড়ে এবং লীরা ডলারকে স্টুপিডও বলে। যেখানে পাশে দাঁড়ানোতে সমস্যা সেখানে সময়ের কারণে একই রিকশায় বসতেও আপত্তি নেই। দুজনের প্রস্থান হলেও লীরার মনে ছেলেটির সুন্দর সম্পর্কে কট‚ক্তি মোটেও মেনে নিতে পারেনি। বাথরুমে নিজের ছবি দেখে তাকে বকাঝকা করতে থাকে। সে তার মাঝে অসুন্দর বলতে খুঁজে পায় গালের গোটাটি কিন্তু নিজের মধ্যে ভূতের বীভৎসতা কঙ্কালরূপ দেখতে পায় না। তার মধ্যে দোলাচল দেয় ডলারের উপস্থিতি ও পরবর্তী ক্রিয়াদি। লীরকে ভূতের মতো দেখায় বিষয়টি পরীক্ষার জন্য লীরা বহুবার আয়নার সামনে দাঁড়িয়েছে শেষে অন্ধকারে নিজের ছায়া দেখে মনে করে ভ‚তই সে। ছেলেটির কথায় যৌক্তিকতা খুঁজে পায় এবং মনের অজান্তে গান ধরে ‘মনে কী দ্বিধা রেখে গেলে চলে।’ টিটকারি ও অবহেলার সূত্র ধরেই প্রেমমোহে আবদ্ধ হয়।
গ্রামীণ জনপদকে ঘিরে পারিবারিক প্রথাও এসেছে। হৃদি ও সালাউদ্দিন চরিত্র বিন্যাসে। পারিবারিকভাবে পছন্দ হলে রিস্তা অনুযায়ী বিয়েশাদির প্রচলন ছিল আবার প্রেম পরিণয় হতেও বিলম্ভ হয় না। পরিবারও মেনে নেয়া না নেয়ার দ্বিধাদ্বদ্ব সমীকরণে ব্যস্ত থাকে। সালাউদ্দিন নামাজের অজুহাত দিয়ে হৃদিকে প্রেমের জালে আবদ্ধ করে লীরা মনে করে এটা এক ধরনের ব্ল্যাকমেইল। ভগ্নিপতিদের সাথে শালিদের রসবোধ থাকে বলে মাঝেমধ্যে খুনসুটি হয়। তাদের মধ্যেও এমন রসবোধ বিদ্যমান। কথা হচ্ছে বৃষ্টি নিয়ে লীরাকে কেউ আটকে রেখেছে কিনা তারপরই লীরা গ্রন্থাগারের বর্ণনা দিলো। ইগো নারীর অলংকার। ছেলেদেরই তাদের সাথে আগ বাড়িয়ে কথা বলতে হয় না হলে লীরার ক্ষেত্রে যা হয়েছিল তাতে আত্মমর্যাদায় লাগার কথা। লীরা নিজেকে সুন্দরী দাবি করে অথচ ডলার ফিরেও তাকালো না। এতে তার আত্মমর্যাদা ব্যাহত হয়।
ছেলেমেয়েরা বাইরে থাকলে বাবা-মা উদ্বিগ্ন থাকেন। ছেয়েমেয়েদের প্রতি অপত্যস্নেহ মনে আঁকিবুঁকি খায়। তাই বের হলে তাদের চাপ বেড়ে যায়। লীরার মতো ডলারকেও বাসায় বিলম্বের ব্যাখ্যা করতে হয়। মাহমুদুল কবীর চৌধুরী তার বাবা তিনি ছেলের জন্য অস্থির হয়ে আছেন। ছেলে যথানিয়মে বিশ্লেষণ করলেও মন ধরে না। ডলার বাবার প্রতি বিরক্ত হয়ে সরে যায়। বাবা কার্টুন দেখেন তাতেও ডলার বিরক্ত সে মনে করে এটা বাচ্চারা দেখে বুড়ো বয়সে তিনি এসব দেখছেন। বয়সে লোকে হয় না বুড়ো তিনি দেখবেন এটা তার নিজস্ব ব্যাপার।
মেয়েরা বাবা মায়ের আদুরে সন্তান। ছেলে হলে মেয়ের আক্ষেপ, মেয়ে হলে ছেলের আক্ষেপ বাঙালির এ রীতিনীতি বহুকাল ধরে বিদ্যমান। ছেলেমেয়ে সন্তান ঐশ্বরিক দান। তাতে মানুষের হাত নেই তবুও চেষ্টাশীল। যারা মেয়ের অভাব বোধ করেন ছেলেকে বিয়ে করিয়ে সে সাধ পূর্ণ করেন সেক্ষেত্রে ভালোমন্দের প্রভাব রয়েছে। মাহমুদুল কবীর চৌধুরীর ক্ষেত্রেও তেমনটি লক্ষণীয়। বড় ছেলের বউ বৃন্দা লক্ষ্মী মেয়ে। মেয়ের মতোই দেখেন তিনি। সংসারের প্রতি এবং পরিবারের প্রতি অগাধ বিশ্বাস। ডলারে প্রতিও যত্নশীল। সে তার মেজাজ খারাপ হওয়া বিষয়ে জানতে চায়। এখানে পারিবারিক বন্ধন প্রকাশ পেয়েছে। প্রেম মানসিক অবস্থাকে বিপন্ন করে। ডলার ও লীরা দুজন দুজনকে খোঁজে। দুজনই মানসিক অবস্থা আবিষ্কারের আশায় চটপট করছে। লীরা পরদিন বান্ধবী রিনা ও শিলাকে নিয়ে ডলারের সন্ধানে বের হয়। গ্রন্থাগারের প্রতিটি টেবিল নিবিড়ভাবে দেখে বান্ধবীরা বিরক্ত হয়। এক পর্যায় ছেলেটি প্রসঙ্গে জানালে পিয়ন আরজ আলীকে বিষয়টি বলে এবং গতকালকের ছেলেটিকে চেনে কিনা জানতে চাইলে আরজ আলী কুদ্দুসের প্রসঙ্গ টানে। সে তার টেবিলের বই উঠিয়েছে। বইগুলো প্রাণিবিদ্যা সম্পর্কিত তাহলে সে প্রাণিবিদ্যার ছাত্র হবে। তারা তিনজন কিছু লিঙ্ক পেয়ে আশ্বস্ত হয়। ডলারের মাঝেও মেয়েটি সম্পর্কে কৌত‚হল নানাভাবে নাড়া দিচ্ছে তার বহিঃপ্রকাশ লাইব্রেরিতে গিয়ে মেয়ে সম্পর্কে জানার আগ্রহ। পিয়নের কাছে জানতে পেরে মেয়েটি বান্ধবীদের নিয়ে তাকে খুঁজছে এবং তার রিপুগুচ্ছে নড়ে উঠে। প্রেমে পড়লে পরস্পরকে পাওয়ার উন্মাদনার চিত্র ডলার চরিত্রের মাধ্যমে প্রকাশ পায়।
শিক্ষালয়ে শিক্ষা সফর গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়। বছরজুড়ে ছাত্রছাত্রীদের ক্লান্তি দূর করতে বার্ষিক শিক্ষা সফরের আয়োজন করা হয়। ক্লান্তি অবসন্নতা দূরীকরণের পাশাপাশি বাস্তবিক শিক্ষাও লাভ করা যায়। উপন্যাসে জুওলজি ডিপার্টমেন্টের শিক্ষা সফর তারই অংশবিশেষ। তাদের ভ্যানু মিরপুর চিড়িয়াখানা। তাদের উদ্দেশ্য জীবজন্তু ও পশুপাখি সম্পর্কে হাতেকলমে শিক্ষালাভ কিন্তু ক্লান্তিকর মুহূর্তে ডলারের চোখে ধরা পড়ে কয়েকজন যুবক-যুবতী। তাদের রোদে লজ্জাবতী গাছ দেখার মুহূর্ত তাকে বিমোহিত করে। শিক্ষক সংবেদনশীল গাছটি সম্পর্কে ধারণা দিচ্ছেন গাছটির সায়েন্টিফিক নাম মিমোসা পুডিকা Mimomsa pudica। ডলারের রক্ত হিম হয়ে যায় মেয়েরা অবাক হয়ে গা টেপাটেপি করে। শিলা বুঝে না বলে ঐ লাইব্রেরি লোকটা বলে তাকে বুঝায়। তাদের পরিচয় হলে কথাবার্তায় নানা প্রসঙ্গ আসে। রাগ ও মুডের পরিসমাপ্তি ঘটে। পরবর্তীতে দেখা-কথা ও সম্পর্কের বাঁধন নিবিড় হতে থাকে।
প্রেমিক সবসময় দার্শনিক। প্রেমে পড়লে দর্শনচেতনা ভর করে। চিন্তন ও মনোজগৎ উন্মুক্ত বাতাসে দোল খায়। কারো কারো মধ্যে কবি প্রবৃত্তিও আসে। মনের আকাশে ভারি বাতাস হালকা হতে থাকে। সত্যিকারের প্রেম নানা ছলে-কলাকৌশলে মানব-মানবীর দ্বৈতসত্তাকে একীভূত করে জীবনসঙ্গী পর্যন্ত গড়ায়। বোধের করিডোর খুলে সুনসান হয়ে ওঠে চারপাশ ও জীবনঘর। যেখানে মনের আলাপন হয়ে উভয়েই সুখ-দুঃখের সারথি হয়। ঠিক সেভাবেই গ্রন্থাগার থেকে বৃষ্টি নিয়ে এলো দুজনের মিলনবাতাস। উড়ো হাওয়ায় দোল খেতে খেতে তারা দূর থেকে অনুধাবন করছে অসময়ের বৃষ্টি। মাহমুদুল কবীর চৌধুরী ছেলের মন নিয়ে গবেষণা বিষয়টি দার্শনিকতাতেই উপলব্ধ হয়। বৃন্দা দেবরকে লীরা সম্পর্কে প্রশ্নবাণে আবদ্ধ করছেন। প্রেমের সূত্র পেলে পরিবার বন্ধু-বান্ধবের মাঝে কৌত‚হল ধরা দেয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্মঘট দাঙ্গা-হাঙ্গামা অস্ত্রের ঝনঝনানি থাকে। অস্ত্রবাজদের দৌরাত্ম্যে বাকিরা কাতর হয় এবং মাথানত করে। রনি চরিত্রে তা ধরা দেয়। রনি লীরাকে পছন্দ করে ডলারকে চিঠির মাধ্যমে বুলেট পাঠায়। ডলার লাজুক ও ভয়কাতর ছেলে তাই ঘাবড়ে যায়। লীরাকে বাঁচাতে রনির সাথে প্রেমের অভিনয় করে শিলাকে সে মনে করে তৃতীয় চোখ। একদিন রনি তার ভুল বুঝে শিলাকে পত্র লেখে তার ভার্সিটি জীবনপ্রবাহ তুলে ধরে। অজান্তে শিলাকে ভালোবেসে আর দেখা হবে না কোনোদিন। হবে অনন্তকাল। তার মধ্যে বেঁচে থাকার সাধ আছে কিন্তু দুর্ধর্ষ ক্যাডাররা ভালো হয়ে বাঁচতে পারে না তাদের অনেক দূরে চলে যেতে হয়। রনির মধ্যে বেঁচে থাকার অদম্য ইচ্ছা। প্রেমবোধ কখনো কখনো খারাপ মানুষকে ভালো করে সে বিষয়টি রনি চরিত্রের মাধ্যমে স্পষ্ট হয়।
উপন্যাসে ধর্মপ্রীতি ও সা¤প্রতিক সমাজবাস্ততা দেখানো হয়েছে দুটো পথরেখায়। নামাজ হাদিস সম্পর্কে বক্তব্যের পাশাপাশি কার্টুন ও দাবা খেলা উত্তম কুমার ও সুচিত্রা সেনের অভিনয়প্রীতিও বিদ্যমান।
প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। গ্রাম বাংলার প্রত্যন্ত অঞ্চল শহর ও বহিঃবিশ্ব থেকে উচ্চতর ডিগ্রি গ্রহণের জন্য একবুক আশা নিয়ে ভর্তিযুদ্ধে টিকে অনেকেই আসন গ্রহণ করে। শ্যামল প্রকৃতির মাঝে ক্যাম্পাসগুলো তাদের পদচারণায় মুখরিত হয়। দৃষ্টিনন্দন পথ, বিশাল গ্রন্থাগার, টিএসএসি এবং তরুণ-তরুণীদের জীবনগড়ার উচ্ছ্বাস চোখে পড়ার মতো।
সময়ের পালাবদলে বিশ্ববিদ্যালয় সংগ্রাম অর্জনের করিডোর। রাজনীতিক সমাজপতি এবং কর্ণধার তৈরি হয়েছে এ বিদ্যায়তনে। এখানকার প্রতিটি নিশ্বাস দেশপ্রেম ও ভালোবাসার। শেখে ও শেখায় সৃজনশক্তির উর্বরভ‚মি। দেশের নানা অনিয়মের প্রথম হুঙ্কার এখান থেকে ধেয়ে আসে। তৈরি হয় দেশ ও সমাজের কর্ণধার। প্রেমবোধও চোখে পড়ে জীবন জীবনের সন্ধানে এরা একীভূত। ঔপন্যাসিক এখান থেকে ডলার ও লীরাকে প্রধান চরিত্র হিসেবে নিয়েছেন। বিজ্ঞান পাঠাগারে পরিচয় করিয়ে সূ²দর্শী হয়ে চরিত্রের মধ্যে জৈবিক দাগমুক্ত রেখেই মানসিক প্রেমবোধে আকৃষ্ট করে পারিবারিক সূত্রিতায় আবদ্ধ করেছেন। পাশাপাশি তার প্রত্যাশা অনুযায়ী আগামীর সৃজনকর্মী গঠনে উদ্বুদ্ধ করেছেন।
উপন্যাসে দুটো পরিবার দুটো জীবন নানা সন্ধিক্ষণের মধ্য দিয়ে উত্তরণ হয়েছে। বাস্তবিক চিত্রকল্প ঘটনাপরম্পরা চরিত্রের মধুরতা আবেগ অনুভ‚তি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণের প্রবল ইচ্ছাশক্তি সহজেই পাঠকহৃদয়কে আকর্ষণ করে। এখানে শাব্দিক জড়তা বা ঘটনার উল্লম্ফন নেই টান টান উত্তেজনামুখর সৃষ্টিপথ। লক্ষ্য, আবেগ স্থির ও সহানুভ‚তিশীল। প্রেম সময়ের ব্যবধানে জড়ো হলেও সমতলীয় প্রেক্ষাপটকে ধারণ করে এবং গৃহের বোদ্ধাশ্রেণির মানসিকতা বুঝার ক্ষমতাকে ধারণ করে যা বোঝা নয় পুজো হয়। সমগোত্রীয় ও সঠিক লেভেল ধরে ঔপন্যাসিক নিটোল চরিত্রকে ধারণ করেছেন। আঙ্গিকশৈলিতা উপস্থাপনে কাব্যফলে তৈরি করেছেন। পাঠ ও রস সন্নিবেশ তাঁর অতুলনীয় সে হিসেবে অসময়ের বৃষ্টি ও কথাশিল্পী হয়েছেন মাটির প্রতিচ্ছবি। কবি আবুল হোসেন ১৫ আগস্ট ১৯২২ সালের ১৫ আগস্ট খুলনা জেলার ফকিরহাট উপজেলা আড়ুয়াঙ্গা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। কথাসাহিত্যিক আবুল হোসেনের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা।

এসআর