দায়িত্ববানদের স্বেচ্ছাচারিতার বলি হচ্ছে জনসাধারণ

আগের সংবাদ

আর কতদিন উত্তরবঙ্গ অবহেলিত থাকবে!

পরের সংবাদ

গণপরিবহনগুলো মানছে না স্বাস্থ্যবিধি

ইমরান ইমন

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ১২, ২০২০ , ১০:১৫ অপরাহ্ণ

সরকার স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন চলাচলের ঘোষণা দেয়। করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে গণপরিবহনগুলোতে নিয়ম করে দেয়া হয় দুজনের সিটে একজন করে বসবে। অর্থাৎ দুই সিট মিলে একজন বসবে। শুরুর দিকে গণপরিবহনগুলো এই নিয়ম যথাযথভাবে পালন করলেও এখন আর এ নিয়ম মানছে না, মানছে না কোনো প্রকার স্বাস্থ্যবিধি।
গণপরিবহনগুলো এখন আগের মতোই গাড়ি ভর্তি যাত্রী নিচ্ছে, দুই সিটে একজনের পরিবর্তে দুজন বসাচ্ছে, ঘেঁষে ঘেঁষে যাত্রী ভরছে। কিন্তু দ্বিগুণ ভাড়ার পরিমাণ তো কমেনি! এরা পাশাপাশি দুই সিটে একজনের পরিবর্তে দুজন বসিয়ে একজন থেকে দুই সিটের তথা ডাবল ভাড়া আদায় করে নিচ্ছে।
অথচ করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার থেকে নিয়ম বেঁধে দেয়া হয়েছে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন চালাতে হবে। দুই সিট মিলে একজন বসাতে হবে। কিন্তু এখন বেশিরভাগ গণপরিবহন কোনো প্রকার স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। গণপরিবহনগুলোতে এখন নেই কোনো সচেতনতার বালাই। একজনের গা-ঘেঁষে আরেকজন কি অদ্ভুতভাবে ভিড় করে দাঁড়িয়ে আছে! অথচ নিয়ম ছিল গণপরিবহনে কোনো প্রকার গা ঘেঁষাঘেঁষি করা যাবে না। দেশের অন্যান্য অঞ্চলের মতো আমাদের ফেনী জেলায় গণপরিবহনগুলো মানছে না কোনো প্রকার স্বাস্থ্যবিধি। গণপরিবহনগুলো দেখলে এখন মনে হয় এক একটা যেন করোনা ছড়ানোর কেন্দ্রস্থল।
আমাদের জীবিকার তাগিদে, জীবনের প্রয়োজনে ঘর থেকে বেরুতে হবে, গণপরিবহন ব্যবহার করতে হবে। করোনাও থাকবে; আমাদের জীবন-জীবিকাও চলবে। করোনার সঙ্গে সংগ্রাম করেই আমাদের বেঁচে থাকতে হবে। আর এ গণপরিবহনে যদি নির্ধারিত স্বাস্থ্যবিধি না মানা হয় কীভাবে আমরা নিজেকে সুরক্ষিত রাখব? কীভাবে করোনা সংক্রমণ ঠেকাবো?
উল্লিখিত পরিস্থিতিতে গণপরিবহনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি আপনারা অতি শিগগিরই বিষয়টিতে হস্তক্ষেপ করুন, গণপরিবহনগুলো যাতে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চালানো হয় সেটা নিশ্চিত করুন। কেননা ব্যক্তি সুরক্ষিত থাকলে, সুরক্ষিত থাকবে দেশ।

শিক্ষার্থী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।
[email protected]

ডিসি