আমিরাতে শতাধিক দোকান আগুনে পুড়ে নিঃস্ব বাংলাদেশিরা

আগের সংবাদ

মুম্বাইতে আরেক অভিনেতার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

পরের সংবাদ

বগুড়ায় যমুনা ও বাঙ্গালী নদীর পানি কমেছে

আমিনুল ইসলাম শ্রাবণ. ধুনট (বগুড়া)

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ৬, ২০২০ , ৪:০১ অপরাহ্ণ

বগুড়ায় যমুনা ও বাঙ্গালী নদীতে পানি কমার অব্যাহত রয়েছে। বর্তমানে যমুনা নদীর পানি বিপদসীমার ১৬ সেন্টিমিটার উপরে এবং বাঙ্গালী নদীর পানি বিপদসীমা বরাবর প্রবাহিত হচ্ছে।

প্রবল বৃষ্টিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে বগুড়া জেলার সারিয়াকান্দি পয়েন্টে যমুনা নদীতে পানি বেড়েছিল। তবে গত ২৪ ঘন্টার হিসেব অনুযায়ী এ নদীর পানি আরও কমেছে। অন্যদিকে বাঙ্গালী নদীর পানি বিপদসীমা বরাবর প্রবাহিত হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন বগুড়া জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সহকারী প্রকৌশলী মো. হুমায়ুন কবির।

যুমনা নদীতে পানি বাড়ায় সারিয়াকান্দি উপজেলার চরাঞ্চলের চালুয়াবাড়ী, কর্নিবাড়ী, কুতুবপুর, চন্দনবাইশা, কাজলা, কামালপুর, রহদহ, বোহাইল ও সারিয়াকান্দি সদর, ধুনট ও সোনাতলা উপজেলার মোট ১৮টি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চলের ধান, পাটসহ ফসলি জমি পানিতে তলিয়ে গিয়েছিল। পানিবন্দি হয়ে পড়েছিল প্রায় দেড় লাখ মানুষ। পানিবন্দি এলাকার অসংখ্য মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে আশ্রয়ণ কেন্দ্র, বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধসহ উঁচু জায়গাগুলোতে আশ্রয় নেন। এছাড়া যমুনা নদীর কয়েকটি চরাঞ্চলে নদী ভাঙ্গন দেখা দেওয়ায় ঘরবাড়ি ভেঙ্গে নিয়ে অনেকেই নদী তীরে আশ্রয় নিয়েছেন। বন্যার দুর্যোগ থেকে স্থায়ী সমাধান খুঁজতে চরের পৈত্রিক ভিটেমাটি ছেড়েছেন অনেকেই।

তবে গত কয়েকদিনে বন্যার পানি কমে যাওয়ায় ওই অবস্থার পরিবর্তন ঘটছে। বন্যা কবলিত এলাকার তুলনামুলক উঁচু ঘরবাড়ি থেকে বন্যার পানি নেমে গেছে। অনেকেই অস্থায়ী আশ্রয় থেকে নিজগৃহে ফিরে যাচ্ছেন। পানিবন্দি ঘরবাড়িতে বন্যার ক্ষত-ধুয়ে মুছে বসবাসের উপযোগী করে তুলছেন। তবে পানি কমলেও বন্যা কবলিত এলাকায় দুর্ভোগ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বগুড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সহকারী প্রকৌশলী মো. হুমায়ুন কবির জানান বৃহস্পতিবার সকাল ৬টায় যমুনা নদীর পানি ১৬ দশমিক ৮৬মিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। যা বিপদসীমার ১৬ সেন্টিমিটার উপরে। অন্যদিকে বাঙ্গালী নদীর পানি বিপদসীমা ধরা হয়েছে ১৫ দশমিক ৮৫ মিটার। বৃহম্পতিবার সকাল ৬টায় পানি ১৫ দশমিক ৮৫ সেন্টিমিটার দিয়েই প্রবাহিত হয়েছে।

পিআর