লেবানন বিস্ফোরণে ২ বাংলাদেশির মৃত্যু

আগের সংবাদ

শোকার্ত লেবানন, চলছে রাষ্ট্রীয় শোক

পরের সংবাদ

পাকিস্তান-ইংল্যান্ড টেস্ট সিরিজ

সেয়ানে সেয়ানে লড়াই

খেলা ডেস্ক

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ৫, ২০২০ , ১২:৫৪ অপরাহ্ণ

পাকিস্তানের বিপক্ষে ৩ ম্যাচের টেস্ট সিরিজে আজ ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্রাফোর্ড স্টেডিয়ামে মাঠে নামতে যাচ্ছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। আর এই ম্যাচ জয়ের মাধ্যমে ম্যানচেস্টারের মাঠে জয়ের হ্যাটট্রিক করার লক্ষ্যে নামতে যাচ্ছে ইংলিশরা। পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৩ ম্যাচের সিরিজে খেলে জো রুট-বেন স্টোকসরা। এই ২ দলের ম্যাচ মানে সেয়ানে সেয়ানে লড়াই। অতীত পরিসংখ্যানও চলছে তাই। ওই সিরিজের ৩টি ম্যাচের মধ্যে ১টি ছিল সাউদাম্পটনের রোজ বলে। আর শেষ ২টি ম্যাচ ছিল ওল্ড ট্রাফোর্ডে।

রোজ বোলে প্রথম ম্যাচে হারার পর ওল্ড ট্রাফোর্ডে পরপর দুটো ম্যাচে জয় তুলে নেয় ইংলিশরা। ফলে তারা ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নিতে সমর্থ হয়। পাকিস্তানের বিপক্ষে এখন সিরিজের প্রথম ম্যাচেও ওল্ড ট্রাফোর্ডে নামছে তারা। আর এর ফলে পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচটি জিতলেই ম্যানচেস্টারে ইংল্যান্ডের হয়ে যাবে জয়ের হ্যাটট্রিক। তাছাড়া প্রায় ১০ বছর পর পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ জয়ের ক্ষেত্রেও এগিয়ে যাবে জো রুটরা।

পাকিস্তানের বিপক্ষে ইংল্যান্ড কোনো টেস্ট সিরিজে জয় পেয়েছিল সেই ২০১০ সালে। সেবার ৩-১ ব্যবধানে সিরিজ জেতে তারা। এরপর পাকিস্তানের বিপক্ষে আরো ৪টি সিরিজ খেললেও একটিতে সিরিজ জিততে পারেনি থ্রি-লায়ন্সরা। অপরদিকে ৪টি সিরিজের মধ্যে পাকিস্তান ২টি সিরিজেই জয় তুলে নেয়। আর ২টি সিরিজ ড্র করে। পাকিস্তান যে ২টি সিরিজে জয় তুলে নেয় তা ছিল সংযুক্ত আরব আমিরাতে। অপরদিকে ইংল্যান্ড পাকিস্তানকে নিজেদের ঘরের মাঠে এনেও সিরিজ জিততে পারেনি। ঘরের মাটিতে ২০১৬ সালে ২-২ ও ২০১৮ সালে ১-১ ব্যবধানে সিরিজ ড্র করেই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল তাদের।

ইংল্যান্ড এবারো পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ জিততে পারবে কিনা তা সময়ই বলে দেবে। তবে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ জিততে হলে তাদের ঘাম ছুটে যাবে এটা বলা যায়। কারণ পাকিস্তানের রয়েছে শক্তিশালী পেস ডিপার্টমেন্ট। তাদের মূল শক্তিই হলো এই পেস। ইংল্যান্ডের মাটিতে বাবর আজমরা যে দল নিয়ে গেছে সেখানে তারা নিয়ে গেছে মোহাম্মদ আব্বাস, শাহিন আফ্রিদি, নাসিম শাহ, উসমান শিনওয়ারি, সোহেল খান ও ফাহিম আশরাফকে। এই ৬ জনেরই রয়েছে প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের ধসিয়ে দেয়ার ক্ষমতা। তাছাড়া স্পিন ভাগে রয়েছেন ইয়াসির শাহ ও কাসিফ ভাট্টি। আর ব্যাটিং বিভাগ সামলানোর জন্য অধিনায়ক আজহার আলী, আসাদ শফিক ও বাবর আজমের মতো অভিজ্ঞরাতো রয়েছেনই।

অপরদিকে ইংল্যান্ড দলও সবদিক দিয়ে বেশ শক্তিশালী। যদিও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচটি ব্যাটিং ব্যর্থতায় হারতে হয়েছিল তাদের। কিন্তু পরের ২টি ম্যাচে ব্যাটসম্যানরা রান তুলে দিয়ে দলকে শক্ত অবস্থানে নিয়ে যান। এরপর জেমস এন্ডারসন ও স্টুয়ার্ট ব্রডের মতো অভিজ্ঞ বোলররা বাকি কাজটি সেরেছিলেন। ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে ওই সিরিজটিতে বেন স্টোকস ছাড়াও প্রায় সব ব্যাটসম্যানই পরের দুটো ম্যাচে রান পেয়েছিলেন। ফলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে পরের ২টি ম্যাচে যে দল নিয়ে ইংল্যান্ড মাঠে নামে সেই একই দল নিয়েই পাকিস্তানের বিপক্ষে আজকের ম্যাচটিতে মাঠে নামতে পারে তারা। অন্যদিকে বিশাল বহর নিয়ে ইংল্যান্ডে যাওয়া পাকিস্তানের জন্য দল সাজানো একটু কঠিনই হবে। বিশেষ করে বোলারদের ক্ষেত্রে। কারণ স্কোয়াডে যে ৬ জন পেসার নিয়ে তারা ইংল্যান্ড গেছে তাদের মধ্য থেকে মূল একাদশে ৩ জনকে বেছে নিতে হবে। তাছাড়া স্পিনারদের মধ্যে তারা বেছে নেবে একজনকে। এ ক্ষেত্রে অবশ্য ইয়াসির শাহ এর খেলার সম্ভাবনাই বেশি।  এদিকে পাকিস্তানের বিপক্ষে যদি ইংল্যান্ড সিরিজ জিতে নিতে পারে তাহলে আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের র‌্যাঙ্কিংয়ে অস্ট্রেলিয়াকে পেছনে ফেলে দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসতে পারবে ইংল্যান্ড। অপরদিকে পঞ্চম স্থানে থাকা পাকিস্তান চতুর্থ স্থানে থাকা নিউজিল্যান্ডকে ছুঁয়ে ফেলতে পারবে।

এমআই