আ.লীগের বিরুদ্ধে সব ষড়যন্ত্র আগস্ট মাসেই হয়েছে

আগের সংবাদ

চার মাস পর কাজে ফিরেছে ৮ শ্রমিক

পরের সংবাদ

কবি মহাদেব সাহার জন্মদিন আজ

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ৫, ২০২০ , ৮:২৬ অপরাহ্ণ

‘করুণা করে হলেও চিঠি দিও/ ভুলে গিয়ে ভুল করে একখানি চিঠি
দিও খামে/কিছুই লেখার নেই/তবু লিখো একটি পাখির শিস
একটি ফুলের ছোট নাম।’ কিংবা ‘হৃদয়ের চেয়ে বড়ো কোনো সংবিধান নেই/
হৃদয় যা দিতে পারে তা জাতিসংঘ পারে না/গোলাপ ফোটে না কোনো ব্যাকরণ বুঝে।

প্রেমিক কি ছন্দ পড়ে সম্বোধন করে?’ এমন হৃদয়গ্রাহী কবিতার মধ্য দিয়ে যিনি পাঠকের হৃদয়ে তোলপাড় তুলেছিলেন তিনি বরেণ্যে কবি মহাদেব সাহা।
আজ অনেকটা নিরবেই বাংলা ভাষার অন্যতম এই প্রধান কবির ৭৭তম জন্মদিনটি চলে গেল। ১৯৪৪ সালের এই দিনে সিরাজগঞ্জের ধানঘড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন প্রেম ও নিসর্গের কবি। বাংলাদেশের জনপ্রিয় কবির প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘এই গৃহ এই সন্ন্যাস’ প্রকাশিত হয় ১৯৭২ সালে। প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা প্রায় ৯০টি।

রক্ত মাংস, শিরা উপশিরা, হৃদয় থেকে উৎসারিত নানা সৌরভে ভরপুর মহাদেব সাহার সব কবিতা। যেন মানবস্পর্শী সুখ-দুঃখ গাথার এক অবিরাম উপাখ্যান। আদর্শ তার পিছু ছাড়েনি। আশির দশকে সরাসরি কমিউনিস্ট পার্টির সভ্য হন। কবিতার জন্য ১৯৮৩ সালে পান বাংলা একাডেমি পুরস্কার। পুরস্কারের সব টাকা তুলে দেন কমিউনিস্ট পার্টির হাতে। এই গৃহ এই সন্ন্যাস ছাড়াও তার কাব্যগ্রন্থের মধ্যে মানব এসেছি কাছে, চাই বিষ অমরতা, কী সুন্দর অন্ধ, তোমার পায়ের শব্দ, ধুলোমাটির মানুষ, ফুল কই, শুধু অস্ত্রের উল্লাস, লাজুক লিরিক, মাটির মলাট, কোথা সেই প্রেম, একা হয়ে যাও, যদুবংশ ধ্বংসের আগে অন্যতম।

মহাদেব সাহার অনেক কবিতা ইংরেজি, ফরাসি, জার্মান, রুশ, হিন্দি, অসমীয়সহ বিভিন্ন ভাষায় অনূদিত হয়েছে। এছাড়া, মহাদেব সাহা দৈনিক পূর্বদেশ পত্রিকার মাধ্যমে সাংবাদিকতা শুরু করেন এবং সর্বশেষ দৈনিক ইত্তেফাক থেকে অবসর গ্রহণ করেন। বাংলা একাডেমি, একুশে পদক, রেখাচিত্রম সম্মাননা (কলকাতা) পুরস্কার, আলাওল সাহিত্য পুরস্কারসহ নানা পুরস্কার ও সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন তিনি।

এসএইচ