শেখ কামালের প্রতিকৃতিতে বিএসএমএমইউ এর শ্রদ্ধা

আগের সংবাদ

১৭ জেলায় বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি

পরের সংবাদ

আমি ধূমপান করি না: মারজুক রাসেল

বিনোদন ডেস্ক

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ৫, ২০২০ , ৪:১৩ অপরাহ্ণ

মারজুক রাসেলের অভিনয় বরাবরের মতোই ভিন্ন একটা কিছু। একজন কবি ও লেখক হিসেবে যথেষ্ট জায়গা করে নিয়েছেন তিনি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও সক্রিয় থাকেন। ফেসবুকে ফলোয়ারদের মাতিয়ে রাখেন নানা কথার মাধ্যমে। চরিত্রের প্রয়োজনে অনেক কাজ করতে হয় যা নাটকের বাইরে করেন না। খাওয়া দাওয়ায় নিয়ন্ত্রণ করেন। করেন না ধূমপান। অনেকেই হয়তো জানতেনই না, মারজুক রাসেল ধূমপান করেন না।

আবার অনেকেই হয়তো জানেন না দেড় বছর হয় তিনি মাংস খাওয়াও বাদ দিয়েছেন। শুধু মাংসই নয়, মাছ, ডিম, দুধসহ যাবতীয় প্রাণিজ খাদ্যদ্রব্য এবং তেল, ঘি, চিজ, মাখন ইত্যাদিও খান না। কারণ তিনি এখন নিরামিষভোজী। তবে তার ফেসবুকে যারা চোখ রাখেন তারা মাত্রই জানেন যে মারজুক রাসেল প্রতিদিনই তেল ছাড়া রান্নার বিভিন্ন প্রণালি সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ করে থাকেন। ফরমালিন ও কেমিক্যালমুক্ত অরগানিক শাকসবজি, ফলমূল, চাউল, ডাউল ইত্যাদি নানান জায়গা থেকে সংগ্রহ করেন এবং সেগুলো আহার করেন। এসব খাদ্যের ক্ষতিকর দিক ভেবেই তিনি এগুলো খাওয়া ত্যাগ করেছেন।

অবশেষে কবিতার ছন্দের মতোই তার এই খাদ্যাভ্যাসের ছন্দপতন ঘটলো। ‘গরুর মাংস’ নামের একটি নাটকে গরুর মাংস খেয়েই খাদ্যাভাসের ছন্দপতন ঘটালেন মারজুক। নির্মাতা মাইদুল রাকিব পরিচালিত নাটকটিতে অভিনয় করতে গল্প ও চরিত্রের প্রয়োজনে দেড় বছর পর গরুর মাংস খেলেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘যেসব খাদ্য শরীরের জন্য ক্ষতিকর সেসব এড়ায়া চলি। মাছ, মাংস, তেল, চর্বি আমাদের শরীর ও পরিবেশের জন্য মোটেও উপকারী নয়। এজন্য আমার খাদ্যাভ্যাস থেকে এসব বাদ দিছি। মাংস খাওয়া ছাড়ছি প্রায় দেড় বছর আগে। কিন্তু নাটকের চরিত্রের জন্য এবার খাইলাম। তাও ওই দৃশ্যধারণ পর্যন্তই। ছাইড়া দেওয়া অনেক কিছুই চরিত্রের প্রয়োজনে আগেও ধরছি, তাও ওই দৃশ্যধারণ পর্যন্তই, যেমন সিগারেট। আমি ধূমপান করি না।

এদিকে ‘গরুর মাংস’ নাটকটি প্রচারে এসেছে। সেটি দর্শকদের কাছে গ্রহণযোগ্যতাও পেয়েছে। যার ফলে বাংলাদেশের ইউটিউব ট্রেন্ডিংয়ে গেল রোববার এক নম্বর অবস্থান দখল করে নেয় এটি। গরুর মাংস খাওয়ার লোভকে কেন্দ্র করে এগিয়েছে এই নাটকের কাহিনি। যার শেষটা হয় করুণ আবহে।

এমআই