করোনায় আরো এক চিকিৎসকের মৃত্যু

আগের সংবাদ

কচুয়ার স্কুল ছাত্রীর ধর্ষক ও হত্যাকারীদের শাস্তির দাবি

পরের সংবাদ

চাঁদপুর-শরীয়তপুর নৌপথ

তীব্র স্রোতে দিনের ২০ ঘণ্টা বন্ধ ফেরি

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ৪, ২০২০ , ৪:৩৯ অপরাহ্ণ

পদ্মা ও মেঘনা নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে চাঁদপুর-শরীয়তপুর নৌপথের ফেরি প্রায় দিনে ২০ ঘণ্টা সময় বন্ধ রাখতে হচ্ছে। ফেরি বন্ধ থাকায় শরীয়তপুরের নরসিংহপুর ও চাঁদপুরের হরিণা ঘাটে বেশ কিছু যানবাহন আটকা পরেছে। ফলে বিপাকে পড়েছেন যাত্রী ও ব্যবসায়ীরা।

বাাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা (বিআইডব্লিউটিসি) সূত্রে জানা গেছে, দেশের দক্ষিণ–পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার পণ্য ও যাত্রীবাহী যানবাহন চট্রগ্রাম অঞ্চলে যাতায়াতের জন্য চাঁদপুর-শরীয়তপুর নৌপথ ব্যবহার করে। এই জেলাগুলোতে একাধিক নৌ ও স্থলবন্দর থাকায় পথটি অনেক জনপ্রিয়। নৌপথে যানবাহন পারাপারের জন্য সাতটি কে-টাইপ ফেরি রয়েছে। যা দিয়ে ২৪ ঘণ্টায় চার শতাধিক যানবাহন পারাপার করা হতো।

গত এক মাস ধরে পদ্মা, মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদীতে পানি বাড়ছে। এ কারণে নদীতে তীব্র স্রোতের সৃষ্টি হয়েছে। স্রোতের কারণে ফেরি চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছিল। আগে ২৪ ঘণ্টায় ৮ থেকে ১০ ঘন্টা ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হতো। কিন্তু গত দুই দিনে স্রোত বেড়ে যাওয়ায় ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ৪ ঘণ্টা ফেরি চলাচল করছে আর ২০ ঘণ্টাই বন্ধ রাখতে হচ্ছে।

গতকাল সোমবার বিকেলে হরিণা ঘাট থেকে চারটি ফেরি ছেড়ে মাঝ নদীতে গেলে স্রোতের কারণে আটকে যায়। নরসিংহপুর যেতে না পেরে তা আবার হরিণা ঘাটে ফিরে যায়। সারারাত আর কোনো ফেরি চলাচল করতে পারেনি। আজ মঙ্গলবার ভোর সাড়ে পাঁচটার দিকে নদীতে জোয়ার এলে নরসিংহপুর ঘাট থেকে দুটি ফেরি হরিণা ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। এরপর আর কোনো ফেরি কোনো ঘাট থেকে ছেড়ে যায়নি।

বিআইডব্লিউটিসির চাঁদপুরের হরিণা ঘাটের ব্যবস্থাপক ফয়সাল আলম বলেন, এক মাসেরও বেশি সময় ধরে ফেরি চালাতে অসুবিধা হচ্ছে। এখন তো নদীতে স্রোত বেশি, তাই ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। জোয়ারের সময় স্রোত একটু কম থাকে। তখন আবার ফেরির পন্টুনের এ্যাপ্রোজ সড়ক তলিয়ে যায়। তখন গাড়ি ওঠা–নামা করতে পারে না। ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় হরিণা ঘাটে তিন শতাধিক যানবাহন আটকা পড়েছে।

এসএইচ