গাজীপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় বিমান বাহিনীর সদস্য নিহত

আগের সংবাদ

বিশেষ বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি এ মাসেই

পরের সংবাদ

আমার ছেলে প্রতিভাবান ও মেধাবী কিন্তু…

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ৪, ২০২০ , ৫:২৩ অপরাহ্ণ

আমার ছেলে প্রতিভাবান, মেধাবী কিন্তু ওকে যত্ন নিতে পারিনি। ওর যত্ন নিলে ভালো করত- এমনটাই বললেন ইয়াসিন আরাফাত অপুর বাবা শহীদুল ইসলাম। রাজধানীর উত্তরা পূর্ব থানায় এসেছিলেন ছেলের বিষয়ে খোঁজ নিতে। ইয়াসিন আরাফাত অপু ‘টিকটকার অপু’, ‘অপু ভাই’ হিসেবে বেশি পরিচিত। শহীদুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, ছেলেরে আসলে ঠিকমতো দেখাশোনা করি নাই, এজন্য এই রকম হইছে। এখন আমি জজকোর্টে যাচ্ছি, ওর জামিন হলে ওর প্রতি খেয়াল নিবো।

তিনি জানান, অপু যে ঢাকায় ছিল সেটা তিনি জানতেন না। কারণ অপু সোনাইমুড়িতে নানাবাড়ি থাকত। অপুর মায়ের সঙ্গে তার তালাক হয়ে গেছে ১৩ বছর আগে। সে ঘরে অপু (২০) ও অন্তর (১৬) নামে দুই সন্তান রয়েছে। সোনাইমুড়ির সোনাপুরে নানাবাড়িতে অপু ও অন্তরের জন্য খরচ পাঠাতেন শহীদুল ইসলাম। অপু ঢাকার দক্ষিণখানে থাকে জানেন না কেন, জানতে চাইলে শহীদুল ইসলাম বলেন, আমি থাকি মাইজদীতে। সোনাইমুড়ি গিয়ে তাদের দেখে আসি। ঈদের আগের দিন গেছি। ওরা বলল, অপু ঢাকা চলে গেছে। আমাকে ওর নানাবাড়ির মানুষরা বিস্তারিত জানায় নাই। গতকাল আমি শুনলাম, অপুকে পুলিশ ধরছে, আমি বাস ধরেই চলে এসেছি ঢাকায়। এই যে থানা থেকে বের হলাম, এখন জজ কোর্টে যাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, ওর নানাবাড়ির লোকেরা তার বাপের সম্পর্কে এমন কথা বলছে যে সে আমাকে সব প্রশ্নের উত্তর দিত না। তাই আমি জানতেই পারি নাই এত কিছু ঘটে গেছে। তবে তার মেধা আছে, সে ভালো গান গাইতে পারে। যত্ন নিলে আরো ভালো করত। থানার ওসি সাহেবও বললেন সে কথা। ওরে জামিন পাইলে আগে ওসি সাহেবের কাছে নিয়ে আসব। তিনি যে পরামর্শ দেবেন, সেটাই করব।

শহীদুল ইসলামের ২০০৩ সালে ও ২০০৯ সালে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন করেছেন। যদিও হেরে গেছেন। এ ছাড়া মেডিসিন ও মেডিক্যাল ইকুইপমেন্টের বিজনেস করতেন শহীদুল ইসলাম। মিটফোর্ডসহ পুরো ঢাকায় তার ব্যবসা ছিল। এখন ব্যবসা বাদ দিয়ে নোয়াখালীর মাইজদীতে থাকেন। সোশ্যাল মিডিয়া লাইকিতে রঙিন চুলে ছোট ভিডিও করে বেশ পরিচিতি লাভ করেন ‘অপু ভাই’। এই মাধ্যমে তাকে অনুসরণ করেন প্রায় ১০ লাখ অনুসারী।

এসএইচ