রাজধানীতে চামড়া সংগ্রহ শুরু

আগের সংবাদ

টাঙ্গাইলে মাইক্রোবাসে আগুন

পরের সংবাদ

চামড়া নিয়ে সমস্যায় পড়লে যে নাম্বারে ফোন করবেন

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: আগস্ট ১, ২০২০ , ৩:৩০ অপরাহ্ণ

এ বছর চামড়ার নির্ধারিত মূল্য নিশ্চিতে সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছে। এজন্য কঠোরভাবে মনিটরিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। কোরবানির পশুর চামড়া সংক্রান্ত সমস্যা সমাধান করতে তাই একটি নিয়ন্ত্রণকক্ষ (কন্ট্রোল সেল) গঠন করেছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কন্ট্রোল সেলে চারজন কর্মকর্তা সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালন করবেন। অভিযোগ ও সমস্যা জানানোর মোবাইল নম্বর: ০১৭১১-৭৩৪২২৫, ০১৭১৬-৪৬২৪৮৪, ০১৭১৩-৪২৫৫৯৩ এবং ০১৭১২-১৬৮৯১৭। এই নম্বরগুলোতে ফোন দিয়ে সমস্যা জানালে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে মন্ত্রণালয়।

গত বছর দাম না পেয়ে অনেকে পশুর চামড়া নদীতে ও রাস্তায় ফেলে দেয় বলে মন্ত্রণালয়ের কাছে তথ্য রয়েছে। এবার যেন তেমন পরিস্থিতি না হয় এমন উদ্যোগ নেয়া। এবার কোরবানির পশুর চামড়ার দাম গতবারের কম নির্ধারণ করা হয়েছে। ঢাকায় লবণযুক্ত গরুর চামড়া কেনাবেচা হবে প্রতি বর্গফুট ৩৫ থেকে ৪০ টাকা দরে, যা গতবছর ছিল ৪৫ থেকে ৫০ টাকা। ঢাকার বাইরে ধরা হয়েছে প্রতি বর্গফুট ২৮ থেকে ৩২ টাকা, গত বছর ছিল ৩৫ থেকে ৪০ টাকা। এবার সারাদেশে প্রতি বর্গফুট খাসির চামড়ার দাম ১৩ থেকে ১৫ টাকা করা হয়েছে। বকরির চামড়ার দাম ধরা হয়েছে ১০ থেকে ১২ টাকা। যা গত বছর ছিল ১৩ থেকে ১৫ টাকা। এদিকে, এবার কাঁচা ও ওয়েট-ব্লু চামড়া রপ্তানির অনুমতি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। কেস-টু-কেস ভিত্তিতে এ অনুমতি দেয়া হবে। পরবর্তী সময়ের নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত কার্যকর থাকবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, চামড়া সংগ্রহের ৫-৬ ঘন্টার মধ্যে প্রয়োজনীয় লবণ মিশাতে হবে। দেশে পর্যাপ্ত লবণ রয়েছে, সরবরাহের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। চামড়া সংগ্রহ, সংরক্ষণ, প্রক্রিয়াজাত করণ, নির্ধারিত মুল্যে ক্রয়-বিক্রয়সহ সার্বিক ব্যবস্থাপনা তদারকির জন্য সকল বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসককে দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে। জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর জেলা পর্যায়ে মনিটরিং করবে। জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেল, বেতার, কমিউনিটি রেডিওতে প্রচারণা চালানোর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এছাড়া, ফেসবুক-ইউটিউবে ১০ লাখ মানুষের কাছে ভিডিও বার্তা প্রেরণ এবং পর্যাপ্ত হ্যান্ডবিল বিতরণের ব্যবস্থা নিয়েছে সরকার।

এসএইচ