পল্লবী থানায় বোমা বিস্ফোরণ, পুলিশসহ আহত ৫

আগের সংবাদ

নিম্নমানের ডিজেল আমদানি আর নয়

পরের সংবাদ

মানবদেহে পরীক্ষার শেষ ধাপে ফাইজার ও মডার্নার ভ্যাকসিন

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ২৯, ২০২০ , ১০:২৮ পূর্বাহ্ণ

চীনের দুটি এবং অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনও শেষ ধাপে

মানবদেহে ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা পরীক্ষার জন্য সর্বশেষ ধাপের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ শুরু করেছে মার্কিন ওষুধ কোম্পানি মডার্না। ৩০ হাজার মানুষের দেহে এই ভ্যাকসিনটির প্রয়োগ শুরু হয়েছে। মার্কিন আরেক ওষুধ কোম্পানি ফাইজার জানিয়েছে, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অন্তত ১২০টি স্থানে তাদের তৈরি করোনা ভ্যাকসিনের শেষ ধাপের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ শুরু হয়েছে। তারাও বিশ্বে ৩০ হাজার স্বেচ্ছাসেবীর দেহে ভ্যাকসিনটি প্রয়োগ করছে। খবর ওয়াশিংটন পোস্ট।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজের পরিচালক অ্যান্থনি ফাউচি বলেন, ভ্যাকসিনোলজির ইতিহাসে আজ আমরা সত্যিকারের এক ঐতিহাসিক কর্মসূচিতে অংশ নিতে যাচ্ছি। একেবারে মৌলিক বিজ্ঞান থেকে বৃহৎ পরিসরের তৃতীয় ধাপে সুরক্ষা ও কার্যকারিতার পরীক্ষায় পৌঁছানো এবং ভ্যাকসিন তৈরিতে যুক্তরাষ্ট্র কখনই তাড়াহুড়া করেনি। আগামী নভেম্বর অথবা ডিসেম্বরের মধ্যে করোনা ভ্যাকসিন কার্যকর হবে কিনা সে ব্যাপারে মডার্নার গবেষকরা বলতে পারবেন বলে ধারণা দেন ফাউচি। অন্যদিকে ফাইজার কর্মকর্তারা বলেন, আগামী অক্টোবরের মধ্যেই মানবদেহে ভ্যাকসিন প্রয়োগের জন্য কর্তৃপক্ষের অনুমোদন চাইতে সক্ষম হবেন তারা। এ বিষয়ে ফাউচি বলেন, ভ্যাকসিনের সুরক্ষা অথবা বৈজ্ঞানিক মানদণ্ডের ক্ষেত্রে কোনো আপস করা হবে না। মার্কিন এই ভ্যাকসিন কয়েক সপ্তাহের ব্যবধানে দুই ডোজ প্রয়োগ করা হবে। পরে ভ্যাকসিন পরীক্ষায় অংশ নেয়া স্বেচ্ছাসেবীরা নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কিংবা অসুস্থ হয়ে যান কিনা তা যাচাই করে দেখবেন গবেষকরা।

তৃতীয় ধাপের এই পরীক্ষা সফল হলে বছরে ৫০০ মিলিয়ন ডোজ উৎপাদনের পরিকল্পনা করছে মডার্না। ২০২১ সালের মধ্যে ১ বিলিয়ন ডোজ উৎপাদন করবে বলে জানিয়েছে তারা। মার্কিন এ দুটি ভ্যাকসিন ছাড়াও শেষ ধাপের পরীক্ষায় রয়েছে চীনের দুটি এবং অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ভ্যাকসিন। চলতি বছরের শেষের দিকে করোনার যে কোনো একটি কার্যকর ভ্যাকসিন বাজারে চলে আসতে পারে বলে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা প্রত্যাশা করেছেন।

এসআর