করোনাকালে ‘শেষ বিদায়ের বন্ধু’র অ্যাম্বুলেন্স সেবা চালু

আগের সংবাদ

উলিপুরে ‘বিজয়কাব্যে’র মোড়ক উন্মোচন

পরের সংবাদ

শেরপুরে লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি

প্রকাশিত: জুলাই ২৮, ২০২০ , ৬:১০ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ২৮, ২০২০ , ৭:৩৩ অপরাহ্ণ

শেরপুরে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত অবস্থায় রয়েছে। দুর্ভোগ বেড়েছে পানিবন্দি মানুষের। শতশত বাড়িঘর বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। পানির তোড়ে বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়ে গৃহহীন হয়েছে প্রায় ২০০ পরিবার। এরা জামালপুর শহর রক্ষা বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে।

শেরপুর সদর উপজেলা প্রশাসনসূত্রে জানা গেছে, বন্যার পানিতে ডুবে জেলায় এ যাবত ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। রাস্তা ঘাট বিধ্বস্ত হয়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিছিন্ন হয়ে পড়েছে। বন্যার পানিতে আমন বীজতলা, রুপা আমন, আউশ, পাট ও শাক সবজি আবাদের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। শেরপুর সদর উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন ঝিনাইগাতীর ৪টি, শ্রীবর্দীর ২টি ও নালিতাবাড়ির ২টি ইউনিয়নসহ জেলার প্রায় ২০ টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে।

বন্যা কবলিত এলাকায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে। মানবেতর জীবন যাপন করছে পানিবন্দি লোকজন। গবাদি পশু নিয়ে কৃষকদের দুর্ভোগের শেষ নেই।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও বন্যা কবলিত এলাকার লোকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বন্যা কবলিত এলাকায় দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ খাবার পানি ও খাদ্যের সংকট। সরকারিভাবে যে পরিমানে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল।

শেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ড. মুহিত কুমার দে বলেন, বন্যার ফসলের ক্ষতির তালিকা নিরুপন করা সম্ভব হয়নি। শেরপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফিরোজ আল মামুন বলেন, বর্তমানে শেরপুর উপজেলার বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত অবস্থায় রয়েছে। তিনি আরও বলেন, গৃহহীন প্রায় ২০০ পরিবার জামালপুর শহর রক্ষা বাঁধে আশ্রয় নিয়েছেন। বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

পিআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়