অর্থবছরের শুরুতে রেমিট্যান্সে চমক

আগের সংবাদ

মোটর সাইকেলের যৌক্তিক নিবন্ধন ফি নির্ধারণ করা হবে

পরের সংবাদ

মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের মানববন্ধন

রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ছাড়াই দাফনে বিক্ষোভ, তদন্তের নির্দেশ

প্রকাশিত: জুলাই ২৮, ২০২০ , ৭:৩০ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ২৮, ২০২০ , ৭:৩০ অপরাহ্ণ

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রথম প্রতিবাদকারী মুক্তিযোদ্ধা মৌলভী ছৈয়দ আহমদের বড় ভাই মুক্তিযোদ্ধা ডা. আলী আশরাফের মরদেহ রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ছাড়াই দাফন করার ঘটনা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

এর আগে মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) দুপুর দেড়টার দিকে উপজেলা পরিষদের সামনে বাঁশখালী মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও সন্তান কমান্ডের সদস্যরা প্রধান সড়কে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেন। কর্মসূচিতে ৪০ জন মুক্তিযোদ্ধা ও দেড় শতাধিক পরিবারের সদস্য অংশ নেন।

খবর পেয়ে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ছাড়াই দাফন করার ঘটনা তদন্তে গঠিত কমিটির সদস্য চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ড. বদিউল আলম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে কথা বলেন। পরে পুইছড়িতে গিয়ে মুক্তিযোদ্ধা আশরাফের কবরস্থান পরিদর্শন করেন।

এদিকে, মুক্তিযোদ্ধা ডা. আলী আশরাফকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ছাড়াই দাফন করার ঘটনার প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য দিয়েছেন দক্ষিণ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার (অর্থ) মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক, বাঁশখালী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার আবুল হাশেম মানিক, জসিম উদ্দিন, মরহুম মুক্তিযোদ্ধা আলী আশরাফের বড় সন্তান জয়নাল আবেদীন, মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম ভেদু, মুক্তিযোদ্ধা সরওয়ার আলম, জয়নাল আবেদীন প্রমুখ।

মরহুমের ছেলে জয়নাল আবেদীন বলেন, ষড়যন্ত্র করে আমার বাবার জানাজায় সম্মান দেয়া হয়নি। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী আমাদের পরিবারের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখতেন। মৌলভী ছৈয়দ এবং আমার পরিবারের দলে অবদান থাকলেও আজ অবহেলার শিকার হয়েছি।

বাঁশখালী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার আবুল হাশেম মানিক বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের অসম্মান করা হয়েছে। প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের কাছে আমরা মুক্তিযোদ্ধারা কখনো এই ধরনের আশা করিনি। তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থার দাবি জানাচ্ছি।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার (অর্থ) মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বাঁশখালীতে মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। কেউ কেউ মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে ষড়যন্ত্র করতে চায়। বিভিন্ন জায়গায় বাঁশখালীতে মুক্তিযোদ্ধা নেই বলে দাবি করছে। তদন্ত কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, তদন্তে বাস্তব বিষয় উঠে আসতে হবে। না হয় আমরা আন্দোলন করবো। ঘটনায় যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে না হলে আইনের আশ্রয় নিব।

মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুর রাজ্জাক আরো বলেন, বিষয়টা নিয়ে সারা বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের গায়ে লেগেছে। এইটা একটা বিরাট দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। ইতোমধ্যে বিভিন্ন ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের জন্য প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

তদন্ত সম্পর্কে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোমেনা আক্তার স্যার আসছেন, স্যার (জেলা প্রশাসক) বিভিন্ন বিষয় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন এবং ঘটনাস্থল গিয়ে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেছেন।

এনএম

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়