১৪ দিনের রিমান্ডে সাক্ষাৎকার দেওয়া সেই বাংলাদেশির

আগের সংবাদ

বৃষ্টি কমলেও ৩১ জেলায় বন্যা পরিস্থিতি ফের অবনতি

পরের সংবাদ

বড়পুকুরিয়া খনির কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগ

আড়াই শতাধিক শ্রমিকের নামে মামলা, গ্রেপ্তার ৫

প্রকাশিত: জুলাই ২৬, ২০২০ , ১০:১৫ পূর্বাহ্ণ আপডেট: জুলাই ২৬, ২০২০ , ১০:৪৫ পূর্বাহ্ণ

পার্বতীপুরে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির আড়াই শতাধিক শ্রমিকের নামে সরকারি কাজে বাধা ও সড়ক অবরোধ করে ভাংচুরের অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। শনিবার (২৫ জুলাই) রাত ১০টার দিকে খনির ব্যবস্থাপক (নিরাপত্তা) সৈয়দ ইমাম হাসান বাদী হয়ে পার্বতীপুর মডেল থানায় এ মামলা দায়ের করে। এ ঘটনায় বড়পুকুরিয়া খনি শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি রবিউল ইসলাম রবি, সাধারণ সম্পাদক আবু সুফিয়ান, দপ্তর সম্পাদক এরশাদ আলী, জাতীয় শ্রমিক লীগ বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি শাখার সহ-সভাপতি মাহবুব ও শ্রমিক নেতা বেলাল হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

জানা গেছে, করোনা পরিস্থিতির কারণে গত ২৬মার্চ থেকে বন্ধ হয়ে যায় খনি থেকে কয়লা উত্তোলন কার্যক্রম। এতে বেকার হয়ে পড়ে খনির উৎপাদন চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এক্সএমসি-সিএমসি’র অধীনে কর্মরত ১ হাজার ১৪৭ জন বাংলাদেশি খনি শ্রমিক। তবে চীনা শ্রমিক দিয়ে সীমিত পরিমাণে প্রতিদিন ২ হাজার থেকে ২ হাজার ২০০ মেট্রিক টন কয়লা উত্তোলন করে আসছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এদিকে কয়েক মাস ধরে বেকার হয়ে পড়া বাংলাদেশী খনি শ্রমিকরা কাজে যোগ দেয়ার দাবিতে আন্দোলন শুরু করে। আন্দোলনের মুখে শ্রমিক, স্থানীয় প্রশাসন ও খনি কর্তৃপক্ষের মধ্যে ত্রিপক্ষীয় চুক্তি হয়।

চুক্তি অনুযায়ী, প্রথম ধাপে প্রতি শিফটে ১০৫ জন করে ৪১০ জন শ্রমিককে কাজে নিতে রাজি হয় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এক্সএমসি-সিএমসি। সেই হিসেবে শ্রমিকরা করোনা পরীক্ষার নমুনা দিতে আসলে শ্রমিক নেতারা তাদের মন মতো ৫ জন করে শ্রমিক নেয়ার চাপ দেন। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তাতে রাজি না হলে শ্রমিক নেতারা শ্রমিকদের নমুনা দিতে বাধা দেন ও পার্বতীপুর-ফুলবাড়ী সড়ক অবরোধ করেন। এতে আটকা পড়ে যানবাহন। খবর পেয়ে পুলিশ অবরোধ তুলে দিয়ে দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে ওই ৫ শ্রমিক নেতাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

খনির ব্যবস্থাপক (নিরাপত্তা) সৈয়দ ইমাম হাসান জানান, সরকারি কাজে বাধা দেওয়ায় শ্রমিকদের নামে মামলা করা হয়েছে।

বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামরুজ্জামান জানান, করোনা পরিস্থিতি ও কয়লা সংকট বিবেচনায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ভূগর্ভে বিভিন্ন কাজে পারদর্শী ৪১০ জন শ্রমিকের তালিকা শ্রমিক নেতাদের দেয়। কিন্তু শ্রমিক নেতারা তাদের মন মতো কিছু শ্রমিককে অন্তর্ভুক্ত করতে দাবি জানান। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তাতে রাজি না হওয়ায় তারা সরকারি কাজে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে সড়ক অবরোধ করে।

পার্বতীপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোখলেছুর রহমান জানান, বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি রবিউল ইসলাম রবি ও সাধারণ সম্পাদক আবু সুফিয়ান সহ ৫৪ শ্রমিকের নাম দিয়ে এবং অজ্ঞাত আরও দুই শতাধিক শ্রমিকের নামে শনিবার রাতে খনির ব্যবস্থাক (নিরাপত্তা) সৈয়দ ইমাম হাসান বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়