পাহাড়িদের সরাতে মাইকিং, প্রস্তুত ১৯ আশ্রয়কেন্দ্র

আগের সংবাদ

নরেন দাসের মৃত্যুতে স্পিকার-ডেপুটি স্পিকারের শোক

পরের সংবাদ

জার্মান জয় করলেন সেবাসতোভা

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ২১, ২০২০ , ১০:৩৪ অপরাহ্ণ

করোনার মধ্যেই বিশ্বের বেশ কয়েকজন সেরা টেনিসার নিয়ে জার্মানিতে অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রদর্শনী টেনিস প্রতিযোগিতা। এমনকি এই প্রতিযোগিতায় স্বল্পসংখ্যক দর্শক স্টেডিয়ামে বসে খেলা দেখার সুযোগও পেয়েছেন। করোনা আতঙ্কের মধ্যেই অনুষ্ঠিত হওয়া এই প্রতিযোগিতায় নারীদের ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন লাটভিয়ার টেনিস সুন্দরী আনাসতাসিজা সেবাসতোভা।

তিনি দুইবারের উইম্বলডনজয়ী চেক টেনিসার পেত্রা কেভিতোভাকে ৩-৬, ৬-৩, ১০-৫ সেটে হারিয়ে বিজয়ীর মুকুট নিজের মাথায় পরেন। মেয়েদের টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ে সেবাসতোভা রয়েছেন ৪৩ নম্বরে। অন্যদিকে কেভিতোভা রয়েছেন ১২ নম্বর স্থানে। তবে দুজনের মধ্যে র‌্যাঙ্কিংয়ের এই ফারাক বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি। মাত্র ১ ঘণ্টা ১৫ মিনিটের মধ্যেই কেভিতোভার বিপক্ষে জয় পেয়ে যান তিনি।

কেভিতোভার বিপক্ষে জয় পেতে অনেক বেগ পোহাতে হয়েছে বলে ম্যাচ শেষে জানিয়েছেন সেবাসতোভা। ম্যাচ শেষ শিরোপা জয়ের অনুভূতি জানাতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘পেত্রা কেভিতোভার বিপক্ষে এটা একটি দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিবতামূলক ম্যাচ ছিল। সে একজন কিংবদন্তি খেলোয়াড়। তার বিপক্ষে আমি কোনো রিদমই পাচ্ছিলাম না। অন্যদিকে সে অনেক দ্রুতগতিতে খেলছিল। আমি শুধু টিকে থাকার জন্য চেষ্টা করছিলাম এবং সুযোগের জন্য অপেক্ষা করছিলাম। দ্বিতীয় সেটে গিয়ে আমি আমার সুযোগ পেয়ে যাই এবং এই সেটে গিয়ে আমি ভালো খেলাও শুরু করি। আমার মাথায় ছিল আমাকে ব্যবধানটা করতে হবে ৪-৩ এ। আর এটিই পরবর্তীতে আমাকে ম্যাচ জিততে সহায়তা করেছে।

এদিকে ফাইনালে কেভিতোভার বিপক্ষে লড়ার আগে এই প্রদর্শনী টুর্নামেন্টে আরো দুটি ম্যাচ খেলেন সেবাসতোভা। তিনি প্রতিযোগিতাটিতে নিজের প্রথম ম্যাচে টেনিস কোর্টে নামেন কিকি বার্টেনসের বিপক্ষে। এর পরের ম্যাচে তিনি মোকাবিলা করেন এলিনা সোভিতোলিনার বিপক্ষে। দুটি ম্যাচেই দাপুটের সঙ্গে জয় তুলে নিয়ে ফাইনালে জায়গা করে নেন তিনি।

অন্যদিকে ছেলেদের প্রতিযোগিতায় শিরোপা জয় করেছেন বিশ্বের ৩য় সেরা অস্ট্রিয়ান টেনিসার ডমিনিক থিম। তিনি ফাইনালে ১৮ বছর বয়সী ইতালিয়ান টেনিস খেলোয়াড় জেনিক সিনারকে ৬-৪, ৬-২ সেটে হারিয়ে শিরোপা জয় করেন। প্রতিযোগিতাটি অংশ নেয়া প্রতিযোগীদের মধ্যে র‌্যাঙ্কিংয়ে সবচেয়ে এগিয়েছিল ডমিনিক থিমই। ফলে শুরুতেই বোঝা গিয়েছিল শিরোপাটি উঠতে পারে থিমের হাতে। সবার ধারণাকে সত্যি প্রমাণ করে শিরোপাটি জিতেছেন ডমিনিক থিমই।

করোনার মধ্যে এমন শিরোপা জিততে পেরে দারুণ খুশি থিম। এমনকি তার মনে হয়েছে এই শিরোপাটি তার ক্যারিয়ারের অন্যতম বড় অর্জন। আর তাই শিরোপা জিততে পেরে দারুণ খুশি তিনি। এ ব্যাপারে ডমিনিক থিম বলেন, ‘করোনা বিরতির মধ্যে এটি সম্ভবত আমার খেলা সবচেয়ে ভালো ম্যাচ। আমি প্রত্যেকটি বলকে ফিল করতে পারছিলাম। আমি শিরোপা জিততে পেরে দারুণ খুশি। আর সম্ভবত গত চার মাসের মধ্যে এটি আমার সেরা অর্জন।

এদিকে করোনার মধ্যে জার্মানির এমন সফল আয়োজন প্রশংসা করেছে অনেকে। যেখানে এখন দর্শকরা ছাড়া অন্য প্রতিযোগিতাগুলো হয়েছে বা এখনো হচ্ছে। সেখানে প্রতিযোগিতাটির আয়োজকরা স্বল্প সংখ্যক দর্শক হলেও মাঠে আনতে পেরেছে। করোনার মধ্যে কিভাবে একটি টেনিস টুর্নামেন্ট আয়োজন করা যায় তা স্বচক্ষে দেখতে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে এসেছিলেন প্রতিনিধিরা। তারা মাঠে উপস্থিত থেকে ও কিভাবে দর্শক মাঠে আনা যায় তা শিখে গেছেন। এমনকি জার্মানির এই প্রতিযোগিতার আয়োজকরাও জানিয়েছেন তারা এমনভাবে এটি আয়োজন করেছেন যেখানে তাদের কোনো সমস্যা হয়নি। সবকিছু খুবই পরিকল্পনামাফিক করেছেন তারা। আর তাদের আশা এভাবে আয়োজন করলে পৃথিবীর অন্য দেশগুলোও সফল হবে।

এমএইচ