এ সহজে যাওয়ার অতিথি নয়!

আগের সংবাদ

গুশনের সঙ্গে ক্যাটরিনার ভিডিও ভাইরাল!

পরের সংবাদ

উলিপুরে ধামাচাপা দেয়া রেলের গাছ চুরিতে অবশেষে মামলা

তৈয়বুর রহমান, কুড়িগ্রাম:

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ১৬, ২০২০ , ৫:৩৪ অপরাহ্ণ

কুড়িগ্রামের উলিপুরে রেলের সম্পত্তিতে থাকা দুটি ইউক্লিপটার্স গাছ কাটার ঘটনা পত্র-পত্রিকায় প্রকাশ হলে অবশেষে রেল বিভাগের টনক নড়ে। গত ২২ জুন উলিপুর উপজেলার পান্ডুল ইউনিয়নের মিনাবাজার নামক স্থানে রেলের ভূসম্পত্তিতে থাকা ৫০ হাজার টাকা মূল্যের দুটি গাছ জনৈক রফিকুল ইসলাম কেটে নেন। খবর পেয়ে উপজেলা নিবার্হী অফিসার মো. আব্দুল কাদের ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে গাছের গুড়িগুলো থানায় নিয়ে আসেন।

ঘটনার একদিন পর (২৩ জুন) লালমনিরহাট রেলওয়ের ঊর্ধতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুর রাজ্জাক ঘটনাস্থল এসে প্রথমে গাছগুলো রেলওয়ের বলে দাবি করেন।  কিন্তু ঘণ্টা খানেক পর তার ভূমিকা পাল্টে যায়। ঘটনাস্থলেই গাছখেকো রফিকুল ও তার  আত্মীয়ের সাথে ঐ প্রকৌশলী কানাকানি করে অর্থের বিনিময়ে গোপনে সমঝোতা করে গাছগুলো রেলের নয় বলে ঘোষণা দিয়ে ফিরে যান।

বিষয়টি জানাজানি  হলে স্থানীয় মানুষের  মাঝে ওই প্রকৌশলীর ভূমিকা নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। পরে ঘটনাটি ভোরের কাগজসহ বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক ও অনলাইনে প্রকাশ হলে প্রশাসনের দৃষ্টি গোচর হয়।  এর পরই লালমনিরহাট রেলওয়ের বিভাগীয় ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা পূর্ণেন্দু দেবের নির্দেশে গত ১৪ জুলাই একজন সার্ভেয়ার ঘটনাস্থলে এসে মাপযোগ করে গাছ দুটি রেলের সম্পত্তিতে রয়েছে বলে নিশ্চিত হন।  ওই দিন বিকেলে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে প্রায় তিন সপ্তাহ পর রেলওয়ের সেই বিতর্কিত প্রকৌশলী আব্দুর রাজ্জাক বাদী হয়ে গাছ কর্তনকারী রুপার খামার গ্রামের জহুরুদ্দিনের পুত্র রফিকুল ইসলামকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোয়াজ্জেম হোসেন মামলা দায়েরের কথা নিশ্চিত করে বলেন, আসামি এখনও ধরা হয়নি। তবে গাছের গুড়ি জব্দ করে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে ।

এমআই