সাহেদের মুখপাত্র তরিকুল ৫ দিনের রিমান্ডে

আগের সংবাদ

মধ্যরাতে দেশে আনা হবে মরদেহ

পরের সংবাদ

নানা রঙের ঘুড়ি উড়িয়ে সময় কাটছে তরুণদের

প্রকাশিত: জুলাই ১০, ২০২০ , ৫:১৯ অপরাহ্ণ আপডেট: জুলাই ১০, ২০২০ , ৯:০৯ অপরাহ্ণ

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে দীর্ঘদিন ধরে সারাদেশের মতো নেত্রকোনার সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও বন্ধ রয়েছে। শিক্ষার্থী ছাড়াও কর্মহীন তরুণ সমাজ। এ অবস্থায় তরুণরা রঙ-বেরঙের ঘুড়ি উড়িয়ে সময় পার করছেন। নেত্রকোনার আকাশে নানা রঙের ঘুড়ি উড়তে দেখা যায়। বিকালে যেন ঘুড়ি উড়ানোর হিড়িক পড়ে যায়। তরুণদের পাশাপাশি শিশু ও বৃদ্ধরাও ঘুড়ি উড়ানোতে মেতে উঠছেন।

রাতে ঘুড়ি উড়ানোর সময় হরেক রকম আলোকসজ্জারও ব্যবস্থা করা হয়। আলোকসজ্জা সম্বলিত সেসব ঘুড়ি রাতের আকাশে উড়াতে অনেকটা তারার মতো দেখায়। ঘুড়ি উড়িয়ে তরুণরা আনন্দ উপভোগ করছে, তেমনি সাধারণ মানুষও বেশ আনন্দিত।

যুবসমাজ যাতে বাড়ির বাইরে না যায়, অহেতুক ঘোরাঘুরি ও আড্ডা না দেয় এজন্য করোনা সংক্রমণ থেকে তাদেরকে রক্ষা করতে জেলার সদর উপজেলার লক্ষীগঞ্জ গ্রামের শান্ত মিয়া নামে এক ঘুড়ির কারিগর বিনামূল্যে এলাকার তরুণদের ঘুড়ি তৈরি করে দিচ্ছেন। তিনি এ পর্যন্ত প্রায় ৪ শতাধিক ঘুড়ি তৈরি করে দিয়েছেন। তিনি বলেন, বিভিন্ন ধরনের ঘুড়ি তৈরি করা হচ্ছে। এর মধ্যে জাহাজ ঘুড়ি, পাখি ঘুড়ি, সাপ ঘুড়ি, টেবিল ঘুড়ি, তেলেঙ্গা ঘুড়ি, পাছা ঘুড়িসহ আরও অনেক প্রকার ঘুড়ি রয়েছে। ১০০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা ব্যয় করা হচ্ছে এসব ঘুড়িতে।

জেলার কেন্দুয়া পৌর শহরের বাদে আঠারবাড়ি তুরুকপাড়া গ্রামের তরুণ খোকন মিয়া প্রায় ৫ হাজার টাকা খরচ করে নিজেই তৈরি করেছেন ১৫ ফুট প্রস্থ ও ১২ ফুট উচ্চতার একটি পাছা ঘুড়ি। তিনি বলেন, করোনার কারণে কোনো কাজকাম নাই। বাড়িতে বসে থাকতেও ভালো লাগে না। তাই সময় কাটানোর জন্য ঘুড়িটা তৈরি করেছি। ঘুড়ি উড়ানোর সময় খুব আনন্দ লাগে। আশপাশের অনেক লোকজন ছুটে আসে আমার ঘুড়ি উড়ানো দেখতে। এতে সময়টা ভালোই কাটছে।

কলেজ শিক্ষার্থী আকাশ পণ্ডিত জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ। বাইরেও বেশি ঘোরাঘুরি করা যায় না। তাই অবসর সময়টা বাড়ির পাশে পতিত জমিতে ঘুড়ি উড়িয়েই কাটানো হচ্ছে।

নেত্রকোনা জেলা শহরের বাসিন্দা আনোয়ার হুসাইন। তিনি একজন ব্যবসায়ীও বটে। তিনি বলেন, জেলা শহরের বাসা বাড়ির ছাদে দাঁড়িয়ে তরুণরা যখন রঙ-বেরঙের ঘুড়ি উড়ায় তখন দেখতে বেশ ভালো লাগে। করোনাকালে অহেতুক ঘোরাঘুরি ও আড্ডা দেয়ার চাইতে ঘুড়ি উড়িয়ে সময় কাটানো খুব ভালো একটা উপায়।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়