করোনায় আক্রান্ত ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

আগের সংবাদ

সুপ্রিম কোর্টে শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের অনশন

পরের সংবাদ

বকেয়া বেতন ও চাকরি ফিরে পেতে প্রধানমন্ত্রীর দারস্থ শিক্ষকরা

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ৭, ২০২০ , ১১:৩১ অপরাহ্ণ

বকেয়া বেতন ও চাকরি ফিরে পেতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ জানিয়ে স্মারকলিপি প্রদান করেছে দারুল আরকাম শিক্ষক কল্যাণ সমিতি মানিকগঞ্জ জেলা শাখার শিক্ষক ও নেতৃবৃন্দরা। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে সোমবার দুপুর ১২টায় জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি জমা দেন তারা।

এসময় সংগঠনের যুগ্ম সম্পাদক মো. মোজাম্মিল হোসেন হাবিবুল্লাহ বলেন, আমাদের মানিকগঞ্জে ৭টি উপজেলার ১৪টি মাদরাসায় ২৮ জন শিক্ষক রয়েছেন। প্রত্যেক মাদরাসায় একজন আলিয়া ও একজন কওমি মাদরাসার সর্বোচ্চ সনদপ্রাপ্ত শিক্ষকরা নিয়মিত পাঠদান করে যাচ্ছেন। গত ৩১ ডিসেম্বর প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়। সেসময় ধর্ম মন্ত্রণালয় প্রকল্পের কার্যক্রম চলমান রাখার নির্দেশনা প্রদান করেন। করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের আগ পর্যন্ত আমাদের প্রতিটি মাদ্রাসায় শিক্ষা কার্যক্রম চলমান ছিল। গত মে মাসে মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমটি পাস হলেও প্রকল্প থেকে দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসাকে বাদ দেওয়া হয়েছে। গত ৬ মাস ধরে তারা কোনো বেতন ভাতা পাননি। যার ফলে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা। আমাদের অনুরোধ, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিষয়টির দিকে দৃষ্টি রাখবেন। প্রধানমন্ত্রী যেহেতু নিজেই মাদরাসা প্রকল্পটির প্রতিষ্ঠাতা, তাই প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টির অগোচরেই বিষয়টি হয়ে থাকতে পারে উল্লেখ করে তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের শিক্ষকদের চাকরি ও বকেয়া বেতন প্রদান করবেন বলে আমরা বিশ্বাস করি ও আস্থা রাখি।

এসময় স্মারকলিপিতে ৬ দফা দাবি উত্থাপন করেন শিক্ষক নেতৃবৃন্দরা। শিক্ষকদের দাবীগুলো হলো- দ্রুত প্রকল্প পাস করে কোরবানী ঈদের আগেই বকেয়া বেতন ভাতা প্রদান, শিক্ষকদের স্থায়ী জনবল হিসেবে স্কেলভিত্তিক বেতন ভাতা প্রদান করা, পিটিআই ট্রেনিং এর ব্যবস্থা করা, পর্যাপ্ত পরিমান শিক্ষক নিয়োগ, মাদ্রাসাসমূহে আসবাবপত্রসহ ভবন নির্মাণে বরাদ্দ প্রদান এবং মাদ্রাসাগুলোকে রাজস্বখাত ভূক্ত করার নির্দেশনা প্রদান করা।

উল্লেখ্য, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া প্রতিষ্ঠান ইসলামিক ফাউন্ডেশন। ২০১৭ সালে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে ‘দারুল আরকাম মাদরাসা কল্যাণ সমিতি’ প্রকল্পের আওতায় দেশের প্রত্যেক উপজেলায় ২টি করে মোট ১০১০টি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করা হয়। এসব মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নাম। সারাদেশে মোট ১০১০টি মাদ্রাসায় নিয়োগ পান ২০২০ জন শিক্ষক। বিগত ৬ মাসের বেতন বকেয়া থাকায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন এসব মাদ্রাসার শিক্ষকরা। এমনকি গত মে মাসে মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমটি পাস হলেও প্রকল্প থেকে দারুল আরকাম ইবতেদায়ী মাদরাসাকে বাদ দেয়া হয়।

এমআই