রাজধানীর চিরচেনা যানজট

আগের সংবাদ

নাগরপুরের বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত

পরের সংবাদ

স্পন্সর সংকটে পিসিবি

কাগজ ডেস্ক

প্রকাশিত হয়েছে: জুলাই ৬, ২০২০ , ৩:২৪ অপরাহ্ণ

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান (স্পন্সর) খুঁজে খুঁজে হয়রান। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তাদের সিরিজ শুরুর সম্ভাব্য তারিখ আগামী ৫ আগস্ট। এ সময়ের স্পন্সর খুঁজে না পেলে করোনা লকডাউন পরবর্তী প্রথম সিরিজটি লোগোবিহীন জার্সিতে খেলতে হতে পারে বাবর আজম, আজহার আলীদের। পাকিস্তান ক্রিকেট দলের সবশেষ স্পন্সর ছিলো কোমল পানীয় প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান পেপসি। তাদের সঙ্গে চুক্তি শেষ হওয়ার পর করোনা ভাইরাসের কারণে নতুন স্পন্সর নিতে পারেনি পিসিবি। নতুন স্পন্সর না পেলে লোগোবিহীন জার্সি নিয়েই খেলতে হবে পাকিস্তানকে।

যদিও স্পন্সর যে একেবারেই পায়নি পিসিবি, এমনটা নয়। শুধুমাত্র একটি প্রতিষ্ঠান এগিয়ে এসেছে পাকিস্তান দলের স্পন্সর হওয়ার জন্য। তবে তাদের প্রস্তাবিত অর্থের পরিমাণ আগের চুক্তি মাত্র ৩০ শতাংশ। নতুন চুক্তিতে পিসিবি যেখানে আগের চেয়ে বেশি পাওয়ার আশা করছিল, সেখানে প্রস্তাব পেয়ে আগের অর্ধেকেরও কম। তাই এ প্রস্তাবে আগায়নি দেশটির ক্রিকেট বোর্ড।
করোনাকালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ দিয়ে পুনরায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে চলেছে পাকিস্তান ক্রিকেট দল। তিন টেস্ট ও সমানসংখ্যক টি-টোয়েন্টি খেলার জন্য এরই মধ্যে ইংল্যান্ডে পৌঁছেছে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের বিশাল বহর।

ওদিকে,পাকিস্তান ক্রিকেটে এখন চলছে নতুন বিতর্ক। দেশটির সাবেক ব্যাটিং কোচ গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ার বলেছেন একবার নাশতার টেবিলে বসে তার গলায় ছুরি ধরেছিলেন পাকিস্তানের তারকা ব্যাটসম্যান ইউনিস খান। এটি যে সত্যি সে বিষয়টিও নিশ্চিত করেছেন পিসিবির এক কর্মকর্তা।

ইউনিসের বিরুদ্ধে গলায় ছুরি ধরার অভিযোগ এনে ফ্লাওয়ার বলেছিলেন, ‘ব্রিসবেনে একটি টেস্টের কথা আমার মনে আছে। সেই ম্যাচ চলার সময় সকালের নাস্তায় তাকে কিছু ব্যাটিং পরামর্শ দেয়ার চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু তিনি আমার সেই পরামর্শ ভালোভাবে নেননি। এক পর্যায়ে আমার গলায় ছুরি ধরে বসে, মিকি আর্থার আমার পাশেই ছিলেন। শেষপর্যন্ত তাকে এই ঘটনায় মধ্যস্থতা করতে হয়েছে।’
এই ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে পিসিবির এক কর্মকর্তা বলেছেন, ‘ঘটনাটা তেমন গুরুতর কিছু ছিল না। ২০১৬ সালের অস্ট্রেলিয়া সফরে একদিন ব্রিসবেনে সকালে নাশতার টেবিলের বন্ধুত্বপূর্ণ মজা হয়েছিল শুধু। তবে গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ার যেভাবে বলছে, তার পুরোটা সত্য নয়। ইউনিস তার দিকে ছুরি উঠিয়ে নাচাচ্ছিল এবং বলছিল যে, খাবার টেবিলের বসে কোন পরামর্শ না দেয় যেন।’

পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক রশিদ লতিফও উড়িয়ে দিচ্ছেন না গলায় ছুরি ধরার সম্ভাবনা। তিনি বরং নিয়ে এসেছেন নতুন আরেকটি নাম। ২০১৬ সালে পাকিস্তানের সবচেয়ে বয়জেষ্ঠ্য খেলোয়াড় হিসেবে ডাবল সেঞ্চুরি করার পর ফ্লাওয়ারকে কৃতিত্ব না দিয়ে, ভারতের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আজহারউদ্দিনের নাম নিয়েছিলেন ইউনিস। কট বিহাইন্ড নামক ইউটিউব শোতে রশিদ বলেন, ‘আমরা জানি না ড্রেসিংরুমের ভেতরে কী হয়। তবে আজহারউদ্দিন এখানে একটা কারণ হতে পারে। ২০১৬ সালে ওভালে ডাবল সেঞ্চুরি করেছিল ইউনিস। তখন সে ব্যাটিং কোচ গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ারের নাম নেয়নি। বরং বলেছিল যে, আমি ছন্দ খুঁজে পাচ্ছিলাম না, তাই আজহারউদ্দিনের সঙ্গে কথা বলেছিলাম।’

এটিকেই বড় কারণ হিসেবে উল্লেখ করে রশিদ বলেন, ‘খেলোয়াড়রা কোচের বদলে অন্য কাউকে কৃতিত্ব দিলে সেটা বড় একটা ইস্যু হয়ে যায়। নিশ্চিতভাবেই ফ্লাওয়ার তার দায়িত্বকালে পাকিস্তানকে অনেক সাহায্য করেছে, অনেক কাজ করেছে।

নকি