করোনা মোকাবিলা ও অর্থনীতি চালুর যুগপৎ সমাধান

আগের সংবাদ

করোনা পরীক্ষায় ফি আরোপ কার স্বার্থে?

পরের সংবাদ

চীন-ভারত উত্তেজনা এবং বাংলাদেশ প্রসঙ্গ

শেখর দত্ত

প্রকাশিত হয়েছে: জুন ৩০, ২০২০ , ৫:৩৯ অপরাহ্ণ

বিশ্বব্যাপী করোনা সংকটের মধ্যেই চীন-ভারত উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। মহামারিতে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা যখন বেড়ে চলেছে, অসহায় মানবতা যখন কাঁদছে; তখন দুর্গম উচ্চতায় কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা বা দখল নিয়ে হতাহতের যে ঘটনা ঘটেছে, তা আকস্মিক ও অনভিপ্রেত। প্রসঙ্গত, যুদ্ধে যখন নিজ দেশের হতাহতের কিংবা ভূখণ্ড দখলের ঘটনা ঘটে, তখন জাতির মনোবল ঠিক রাখার জন্য অনেক সময়েই হতাহতের সংখ্যা বা জমি দখল বিষয়ে বাড়িয়ে বা কমিয়ে কিছু বলা হয়। চীন দুটোই গোপন রেখেছে। চীনের কোনো সৈন্য যদি আহত বা নিহত হয়ে থাকে, সেই খবর পর্যন্ত বিশ্ববাসী কেন, দেশের মানুষকেও জানায়নি। কতটা অমানবিক হলে এমনটা হয়! ভারত মৃতদের নাম ও পরিচয় প্রকাশ করেছে, জনগণসহ রাষ্ট্রীয়ভাবে মৃতদের মর্যাদা দিয়েছে। কিন্তু নিজ ভূমি দখল হয়েছে কিনা, তা সুস্পষ্ট নয়।
চীন থেকে করোনা রোগ বিশ্বব্যাপী মহামারি রূপে ছড়ানোর অভিজ্ঞতার ভেতর দিয়ে বিশ্ববাসী যখন সব রাষ্ট্র ও জাতির কাছে রোগ থেকে অস্ত্র পরীক্ষা তথা সর্ব বিষয়ে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা দাবি করছে, তখন রাষ্ট্রব্যবস্থা ও রাজনীতির নামে যদি কোনো দেশের সরকার তা না করে, তবে সেটা বেশ দুর্ভাগ্যজনক। কেননা যদি কোনো কারণে আণবিক ও মারণাস্ত্র সজ্জিত শক্তিধর এশিয়ার দুই বড় দেশ ভারত ও চীনের উত্তেজনা যুদ্ধ পর্যন্ত গড়ায়, তবে পার্শ্ববর্তী দেশ হিসেবে ইচ্ছা না থাকলেও করোনা বিপর্যয়ের মধ্যে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে আমাদের জড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা থাকবে। বড় ধরনের যুদ্ধ বাধলেও তো উপায়ই নেই। তাই অবিলম্বে এই উত্তেজনা প্রশমিত করা এবং শান্তিপূর্ণ সময়ের মতো পূর্বাবস্থায় ফিরে যাওয়া কিংবা আলোচনার মাধ্যমে ফয়সালা করা হবে জাতি হিসেবে আমাদের একান্ত প্রত্যাশা।
১৫ জুন রাতে সংঘর্ষ ও হতাহতের ঘটনা ঘটার পর উত্তেজনা প্রশমনের তেমন কোনো সুলক্ষণ দৃষ্টিগোচর হচ্ছে না। ঘটনার ৭ দিন পর ২২ জুন সীমান্তে লেফটেন্যান্ট পর্যায়ে আলোচনায় দুই দেশই সীমান্ত থেকে নিরাপদ দূরত্বে সৈন্য ও স্থাপনা সরিয়ে নিতে সম্মত হয়েছিল। কিন্তু এখন স্যাটেলাইট চিত্র অনুযায়ী খবরে প্রকাশিত হচ্ছে, লাদাখ সীমান্তে লাইন অব কন্ট্রোলের পাশে তাঁবুর ছবি, যাতে বিতর্কিত এলাকায় চীনের অবস্থান সুস্পষ্ট। চীনের প্রেসিডেন্ট সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। কেবল চীনের সঙ্গেই নয়, নেপালের সঙ্গেও ভারতের সীমান্ত নিয়ে সমস্যা হচ্ছে। নেপাল পার্লামেন্ট নতুন সীমানা দিয়ে নতুন মানচিত্র পাস করেছে। ইতোমধ্যে ভারত আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান হবে এমন প্রত্যয় ব্যক্ত করলেও নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি ওলি অভিযোগ করেছেন, সরকারের পতন ঘটাতে ভারত গোপন বৈঠক করছে।

পাকিস্তান-ভারত সীমান্ত এখন নিশ্চুপ থাকলেও করোনার মধ্যেই এপ্রিল-জুন মাসে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী উগ্রজঙ্গি তৎপরতা দমন করে চলেছে। এদিকে ভারতও চীনের যোগ্য জবাব দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি চীনকে কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। প্রচার চলছে, আমেরিকার সুস্পষ্ট বার্তা নাকি ভারত পেয়েছে। পর্যবেক্ষণে এই বিষয়ে কিছু লক্ষণও সুস্পষ্ট। আমেরিকা দেশের ন্যাশনাল ডিফেন্স অথরাইজেশন অ্যাক্ট সংশোধন করে ভারত-জাপান-অস্ট্রেলিয়াকে ফাইটার জেট প্রশিক্ষণ এবং চীনবিরোধী চতুর্দেশীয় অক্ষশক্তি গড়ে তোলার পরিকল্পনা চ‚ড়ান্ত করছে। ইউরোপ থেকে আমেরিকা সেনা সরিয়ে ভারতীয় ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল এবং দক্ষিণ চীন সাগরে মোতায়েন করা হবে। হংকং, তাইওয়ান ও উইঘোর মুসলিম প্রভৃতি নিয়ে চীন রয়েছে বিপাকে। হংকংয়ের নাগরিকদের স্বাধীনতা খর্ব করায় আমেরিকা চীনা কমিউনিস্ট পার্টির নেতাদের ভিসা দিবে না বলে ঘোষণা করেছে। করোনা ভাইরাসকে আমেরিকার ‘চীনা ভাইরাস’ বা ‘উহান ভাইরাস’ বলা আর চীনের ‘আমেরিকার সৈন্যরা ভাইরাস আমদানি করেছে’ বলা নিয়ে তর্ক-বিতর্কে উত্তেজনা বিষয়ে সবাই অবগত। করোনার আগেই বাণিজ্য যুদ্ধ তো চলছিলই। বলাবাহুল্য, নির্বাচনের আগে ট্রাম্পের আমেরিকা বিশ^ বিশেষভাবে এশিয়ায় আধিপত্য বিস্তার ইস্যুতে চীনের প্রতি ক‚টনৈতিক-রাজনৈতিক-সামরিক আক্রমণাত্মক ভ‚মিকা জোরদার করবে। তাতে ভারত-চীন উত্তেজনা বাড়ার সম্ভাবনা থাকবে।

এদিকে পাকিস্তান ও নেপাল বাদ দিলে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের নানা হেরফের রয়েছে। শ্রীলঙ্কা ও মালদ্বীপের সঙ্গে রয়েছে টানাপড়েন। ভুটানের সঙ্গে ঐতিহ্যগত সম্পর্ক অটুট থাকলেও সম্প্রতি পানি ছাড় নিয়ে সমস্যা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু হত্যার পর সম্পর্কে নানা চড়াই-উতরাই পার হওয়ার পর বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক উষ্ণ। দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে থাকা মুজিব-ইন্দিরা সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়িত হওয়ায় সীমান্ত সমস্যার সমাধান বিশে^ উদাহরণযোগ্য। উত্তর-পূর্ব ভারতের ‘সেভেন সিস্টার’ সংশ্লিষ্ট জঙ্গি নিয়ে বাংলাদেশের ওপর ভারতের অভিযোগ বিদূরিত হয়েছে। তবে পানিবণ্টন বিশেষত তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি নিয়ে একমত হওয়ার পরও ঝুলে থাকা এবং সীমান্তে গোলাগুলি প্রভৃতি ইস্যু নিয়ে ভারতের প্রতি বন্ধুভাবাপন্ন মানুষেরও এক ধরনের ক্ষোভ বা অভিমান রয়েছে। সর্বোপরি ধারাবাহিকভাবে বাংলাদেশে ভারতবিরোধী দল-গোষ্ঠী-গ্রুপ এবং প্রচার তো রয়েছেই। ভারতে সাম্প্রদায়িকতার বাড়াবাড়ি যত হবে, ততই ভারত বিরোধিতা বাড়বে বৈ কমবে না।
বিশ্ব, এশিয়া ও উপমহাদেশ এই বাস্তবতায় চীন-ভারত উত্তেজনা যদি ছোট কিংবা বড় যুদ্ধ পর্যন্ত গড়ায়, তবে পরিস্থিতি কি দাঁড়াতে পারে তা নিয়ে স্বাভাবিকভাবেই বাংলাদেশের মানুষ উদ্বিগ্ন এবং নানা ধরনের চিন্তাও প্রকাশ পাচ্ছে। ভারত ও চীন আমাদের দুই প্রতিবেশী দেশ।
এই দুই দেশের সঙ্গে সম্পর্কের প্রশ্ন এলেই সোভিয়েত-আমেরিকা ঠাণ্ডাযুদ্ধ যুগে বাংলাদেশের জন্মলগ্নের কথা স্মরণে আসে। ভারত ও তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রত্যক্ষ সহায়তা ছাড়া আমরা নয় মাসে স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনতে পারতাম না। অপরদিকে পাকিস্তান গণহত্যার পক্ষে দাঁড়িয়ে মুক্তিযুদ্ধের সময়েই দূতালির মাধ্যমে এবং পিংপং রাজনীতির সুবাদে আমেরিকা-চীন সুসম্পর্ক গড়ে ওঠে। ওই সময় থেকেই আমেরিকান ধনতন্ত্র ও ‘চীনা সমাজতন্ত্র’-এর রাজজোটক সৃষ্টি হয় এবং অর্থনীতি ও বাণিজ্যে চীনের রমরমা পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে থাকে। কাল পরিক্রমায় চীন এখন আমেরিকার প্রতিদ্ব›দ্বী হয়ে উঠছে।
সেই ঠাণ্ডাযুদ্ধ যুগ আর নেই। বিশ^ ও উপমহাদেশীয় পরিস্থিতি সম্পূর্ণ পাল্টে গেছে। আন্তর্জাতিক রাজনীতি-ক‚টনীতিতে বন্ধু কিংবা শত্রু চিরস্থায়ী নয়। ভারত-আমেরিকা বন্ধুত্ব এখন বাস্তব। এদিকে জন্মলগ্নের পর বঙ্গবন্ধুর সময় থেকেই বাংলাদেশ ‘সকলের সাথে বন্ধুত্ব কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়’ নীতিতে বিশ্বসী। মুক্তিযুদ্ধের পর পরই পাকিস্তান ও আমেরিকার সঙ্গে আমরা সম্পর্ক স্থাপন করেছি। চীনের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনেও আমাদের প্রচেষ্টা ছিল। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ইউরোপের সুইজারল্যান্ড হবে বাংলাদেশ। বর্তমানে বাংলাদেশ এই নীতিতে অটল। মায়ানমার অন্যায়ভাবে লাখ লাখ শরণার্থী পাঠালেও আমরা যুদ্ধোন্মাদনা সৃষ্টি করতে যাইনি। অর্থনৈতিক ক‚টনীতিকে অগ্রাধিকার দিয়ে আলোচনার মাধ্যমে পরস্পরের স্বার্থ ও মর্যাদা সমুন্নত রেখে সব দেশের সঙ্গে ভারসাম্য বজায় রেখে বাংলাদেশ বন্ধত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তুলতে তৎপর। সময়ের গতিপথে এই নীতি সমুন্নত রেখেই আওয়ামী লীগ সরকার দুই পার্শ^বর্তী দেশ ভারত ও চীনের সঙ্গে সম্পর্ক অগ্রসর করছে।
২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় আসে তখন ঘোষিত ইশতেহারে বলা হয়েছিল যে, ভারতের সঙ্গে ‘বন্ধুত্বপূর্ণ সুসম্পর্ক বজায় রেখে বহুমুখী সহযোগিতা জোরদার করা হবে।’ আর চীন সম্পর্কে বলা হয়েছিল, ‘বন্ধুত্বমূলক সম্পর্ক সুদৃঢ় করা হবে’। ১০ বছর পর ২০১৮ সালে ভারত সম্পর্কে বলা হয়েছে, ‘তিস্তাসহ অভিন্ন নদীর পানিবণ্টন এবং দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও নিরাপত্তা সহযোগিতাসহ সব ক্ষেত্রে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।’ ভারত-ভুটান-নেপাল ‘উপ-আঞ্চলিক সহযোগিতার’ কথাও সেখানে রয়েছে। আর চীন সম্পর্কে বলা হয়েছে, ‘বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ও উন্নয়ন সহযোগিতার সম্পর্ক আরো জোরদার করা হবে।’ দুই সময়ের পার্থক্য যেমন এখানে সুস্পষ্ট, তেমনি দুই দেশের ক্ষেত্রে অবস্থানের পার্থক্যও সুস্পষ্ট।
ভারত ও চীনের সঙ্গে এই পার্থক্যের কারণ ঐতিহ্যগত হলেও মূলত ও প্রধানত ভৌগোলিক। বাংলাদেশের সীমানার তিন দিকেই ভারত। রয়েছে পানিবণ্টনের সমস্যা। এদিকে এনআরসি রয়েছে অনেকটাই ঝুলে, পুশ ইন তো সাম্প্রতিক সময়েও হয়েছে। তাই দেশের স্বার্থেই ভারত ও চীনের সঙ্গে সম্পর্ক একরকম হতে পারে না।
এমনকি বিএনপি-জামায়াতও ক‚টনীতি পুবমুখী করার অভিজ্ঞতা থেকে এখন ভারসাম্যপূর্ণ অবস্থান নিতে চাইছে। মায়ানমার ইস্যুতেও ভারতের সঙ্গে চীনের অবস্থানের পার্থক্য রয়েছে। সার্বিক বিচারে ভারতের সঙ্গে পারস্পরিক মর্যাদা ও স্বার্থ সমুন্নত করে সম্পর্ক রাখা বেশি প্রয়োজন ও গভীর। অপরদিকে চীনের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক মূলত ও প্রধানত অর্থনৈতিক। সাম্প্রতিক সময়ে চীন থেকে অস্ত্র সংগ্রহ করা হয়েছে। করোনা দুর্যোগে চিকিৎসার ক্ষেত্রে চীন আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে এবং কতক পণ্যে শুল্ক ছাড় দিয়েছে। সার্বিক বিচারে জাতি হিসেবে আমাদের কর্তব্য হবে, এই উত্তেজনাপূর্ণ সময়ে ভারত বা চীন কারো স্পর্শকাতর স্থানেই আঘাত না করে দুই দেশের সঙ্গে ভারসাম্যমূলক শান্তি ও সৌহার্দপূর্ণ অবস্থান বজায় রাখা।
সবশেষে বলতে হয়, বিশ্বশান্তি সুরক্ষায় ‘আন্তর্জাতিক যে কোনো বিরোধ শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য বাংলাদেশ অগ্রণী ভূমিকা রাখবে’ অঙ্গীকার বাস্তবায়নের পথে যদি আওয়ামী লীগ সরকার সম্ভবমতো অবদান রাখতে পারে, তবে বাংলাদেশ তার ঘোষিত নীতিকে আরো ঊর্ধ্বে তুলে ধরে বিশ্বে আরো মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠা পেতে পারবে।

শেখর দত্ত : রাজনীতিক ও কলাম লেখক।
[email protected]

ডিসি