প্রকাশ হলো বাবা মেয়ের খেলার ছলে গাওয়া গান

আগের সংবাদ

খুলনায় পাটকল শ্রমিকদের অবস্থান কর্মসূচি

পরের সংবাদ

এবার টাইগ্রেসদের করোনা অ্যাপ দিচ্ছে বিসিবি

খেলা ডেস্ক

প্রকাশিত হয়েছে: জুন ৩০, ২০২০ , ৪:২৯ অপরাহ্ণ

সম্প্রতি আমাদের দেশে করোনাভাইরসের তাণ্ডব বেড়েই চলেছ। এমন পরিস্থিতিতে ক্রিকেটারদের স্বাস্থ্যের খোঁজখবর রাখতে প্রযুক্তির সহায়তা নিচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। খেলোয়াড়দের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় সহযোগিতা করার জন্য চমৎকার একটি অ্যাপ বা সফটওয়্যার তৈরি করেছেন বিসিবি। প্রাথমিকভাবে যার আওতায় আনা হয়েছিল ৪০ জন পুরুষ ক্রিকেটারকে। এবার এর আওতায় আসতে যাচ্ছেন বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের সদস্যরা। আগামি এক সপ্তাহের মধ্যে টাইগ্রেস প্রমীলা ক্রিকেট দলের সদস্যরাও এই অ্যাপের মাধ্যমে করোনাকালে স্বাস্থ্যগত বিষয় সম্পর্কে বিসিবিকে অবহিত করতে পারবেন।

শুধু নারী ক্রিকেটারই এই অ্যাপ এর সঙ্গে যুক্ত হচ্ছেন এমনটি নয়। বিসিবির হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) দল এবং অনূর্ধ্ব ১৯ দলের সদস্যরাও দ্রুত এর আওতায় আসবেন। এই বিষয়ে গণমাধ্যমে জানিয়েছেন বিসিবি ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন বিভাগের ম্যানেজার নাসির আহমেদ।

করোনা ভাইরাসের কারণে আমাদের দেশে এখনো সব ধরনের খেলা বন্ধ। প্রাণঘাতী ভাইরাসের কারণে মাঠে নামতে পারছেন না খেলোয়াড়রা। এখনো ঘর বন্দী হয়ে আছে ক্রিকেটাররা। এই সময়ে তারা ঘরে কীভাবে ফিটনেসের কাজ করবেন, কীভাবে নিজের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করবেন, এসব নির্দেশনা আগেই দিয়েছে বিসিবি। এবার অ্যাপসের মাধ্যমে করোনাকালে ক্রিকেটারদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার খোঁজ খবর রাখার চেষ্টা করছেন বিসিবি। এ বিষয়ে আজ (মঙ্গলবার)

নাসির বলেন, ‘আগামী সপ্তাহ‌ থেকে নারী ক্রিকেট দল এই অ্যাপের কার্যক্রমের আওতায় আসবে। এরপর পর্যায়ক্রমে এইচপি এবং অনূর্ধ্ব-১৯ দল ও আসবে।’

এর আগে, গত সপ্তাহে এই অ্যাপের মাধ্যমে প্রাথমিকভাবে ৪০ জন ক্রিকেটার বিসিবির ম্যানেজমন্টে অ্যান্ড ইনফরমেশন বিভাগের তৈরী কেন্দ্রীয় সার্ভারে যুক্ত হয়েছেন। নিজি নিজ মোবাইলে ডাউনলোড করা অ্যাপে প্রতিদিন বিসিবি থেকে ১৮টি প্রশ্ন পেয়ে থাকেন ক্রিকেটাররা। বেশির ভাগই করোনা উপসর্গবিষয়ক। কে কতক্ষণ ঘুমিয়েছে, জ্বর বা গায়ে ব্যথা আছে অথবা পাতলা পায়খানা হচ্ছে কিনা, কোভিড–১৯ রোগীর সংস্পর্শে এসেছে কিনা, মানসিক অবস্থা কেমন সে তথ্য খেলোয়াড়েরা অ্যাপসের মাধ্যমে দিবে। তাদের দেয়া উত্তর সার্ভারে জমা হয়। সেই উত্তরের মাধ্যমে বিসিবি বুঝতে পারে কার শরীরের কি অবস্থা। এবং মেডিকেল বিভাগ তদানুযায়ী ব্যবস্থা নিয়ে থাকে।

এমএইচ