শাকিবের কাছে ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দাবি

আগের সংবাদ

ওয়েস্টিনে পাপিয়ার একশ জোড়া স্যান্ডেল! কেন?

পরের সংবাদ

লিভারপুলের গোল মেশিন সাদিও মানে

খেলা ডেস্ক

প্রকাশিত হয়েছে: জুন ২৮, ২০২০ , ১১:০৩ অপরাহ্ণ

দীর্ঘ ৩০ বছর ধরে শুধু একটি অপেক্ষায় ছিল লিভারপুল। আর তা হলো প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা জয়। সেই অপেক্ষার অবসান ঘটেছে। ৩০ বছর ধরে না পাওয়ার আক্ষেপ রেকর্ড গড়েই দূর করেছে রেডরা। গত পরশু ম্যানচেস্টার সিটি চেলসির বিপক্ষে হারার পর পরই শিরোপা নিশ্চিত হয়ে যায় লিভারপুলের। লিগে লিভারপুলের এখনো ৭টি ম্যাচ বাকি আছে। আর এতো ম্যাচ বাকি রেখে প্রিমিয়ার লিগের ইতিহাসে কোনো দল শিরোপা জিততে পারেনি। বলতে গেলে ৭টি ম্যাচ হাতে রেখে শিরোপা জয় করা অসম্ভব ব্যপারই। তবে এই প্রায় অসম্ভব ব্যপারকে সম্ভব করেছেন লিভারপুলের খেলোয়াড়রা। দলের প্রত্যেকটি খেলোয়াড় যার যার জায়গা থেকে নিজেদের উজাড় করে দিয়েছেন। তাদেরই অন্যতম হলেন সাদিও মানে। দলের গোল মেশিন হিসেবে কাজ করেছেন তিনি। প্রিমিয়ার লিগের এই মৌসুমে তিনি লিভারপুলের হয়ে ২৮টি ম্যাচ খেলে গোল করেছেন ১৫টি। দলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতা তিনি। তার চেয়ে মাত্র ২টি গোল বেশি করে বর্তমানে দলের সর্বোচ্চ গোলদাতা হিসেবে রয়েছেন মোহাম্মদ সালাহ। প্রিমিয়ার লিগে যেহেতু এখনো ৭টি ম্যাচ বাকি রয়েছে তাই সালাহকে পেছনে মানে লিভারপুলের সর্বোচ্চ গোলদাতা হলেও আশ্চর্য হওয়ার কিছু থাকবেনা।

এবার যেমন সাদিও মানে লিভারপুলের হয়ে গোল করেছেন। তেমনি গত মৌসুমেও বেশ উজ্জ্বল ছিলেন তিনি। শুধু যে উজ্জ্বল ছিলেন তাই নয়। মোহাম্মদ সালাহর সঙ্গে হয়েছিলেন মৌসুমের সর্বোচ্চ গোলদাতাও। গত মৌসুমে সাদিও মানে, মোহাম্মদ সালাহ ও আর্সেনালের পিয়া এমরিক অবামেয়াং প্রত্যেকে ২২টি করে গোল করেছিলেন। এরফলে তারা তিনজনই যৌথভাবে হয়েছিলেন আসরের সর্বোচ্চ গোলদাতা।

সাদিও মানে লিভারপুলে যোগ দেন ২০১৬-১৭ মৌসুমে। সেবার আরেক ইংলিশ ক্লাব সাউদাম্পটন থেকে লিভারপুলে যোগ দেন তিনি। আর প্রথম মৌসুমেই ভালো পারফরমেন্স দেখিয়েছিলেন তিনি। সেবার রেডদের হয়ে প্রিমিয়ার লিগে ২৯টি ম্যাচ খেলে ১৩টি গোল করেছিলেন। তবে এর পরের মৌসুমে ঠিক ২৯টি ম্যাচ খেললেও তার গোলের সংখ্যা কমে যায় ৩টি। সবমিলিয়ে প্রিমিয়ার লিগে সেবার তিনি গোল করেছিলেন ১০টি। গোল কমে যাওয়ার যন্ত্রনা থেকেই যেন ২০১৮-১৯ মৌসুমে নিজের ক্ষীপ্রতা বাড়িয়ে দেন তিনি। যেখানে আগের মৌসুমে গোল ছিল ১০টি। সেখানে পরের মৌসুমে গোলের সংখ্যা এক ডজন বাড়িয়ে সবমিলিয়ে ২২টি গোল করে হয়েছিলেন মৌসুমের সর্বোচ্চ গোলদাতা। এই মৌসুমেও তিনি ঠিক একইভাবে চলছেন। দেখা যাক শেষ পর্যন্ত তার গোলের সংখ্যা কোথায় গিয়ে ঠেকে।

এমএইচ