বসুন্ধরা চেয়ারম্যানের বাসায় কর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

আগের সংবাদ

ক্ষতিগ্রস্ত উপকূলে টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণের দাবি

পরের সংবাদ

দুর্ভোগে ৮ হাজার মানুষ

কলাপাড়ায় আয়রন সেতু এখন মৃত্যু ফাঁদ

প্রকাশিত: জুন ২৮, ২০২০ , ৬:৩৬ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ২৮, ২০২০ , ৮:১১ অপরাহ্ণ

পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার পযর্টন কেন্দ্র কুয়াকাটার লতাচাপলি ইউনিয়নের কুয়াকাটা খালের ওপর নির্মিত আয়রন সেতুটি এখন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। দুভোর্গে পড়েছে ৭ গ্রামের ৮ হাজার মানুষ। যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

আয়রন সেতুটি দিয়ে খাজুড়া আবাসনের ৮০টি পরিবার ফাশিপাড়া, নয়াপাড়া, মোথাউপাড়া, মেলাপাড়া, শরীফপুর ও বাহাসকান্দা গ্রামের লোকজন যাতায়াত করে। মহিপুর ও কুয়াকাটাসহ উপজেলা সদরে যাতায়তের একমাত্র পথ এটি। গত ৫ বছর আগে সেতুটি খারাপ অবস্থায় পরিণত হয়। যা ধীরে ধীরে এখন পুরোপুরি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

আয়রন সেতুটি দিয়ে প্রতিদিন বিদ্যালয় ও মাদ্রাসার ছাত্র-ছাত্রী যাতায়ত করে ঝুঁকি নিয়ে। এতে অভিভাবকদের চিন্তার শেষ নেই। অভিভাবকরা বলেন, আমরা বড় মানুষরাই যেখানে মৃত্যু ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হই। সেখানে বাচ্চারা কীভাবে এ সেতুটি দিয়ে যাতায়ত করবে তা বুঝতে পারছি না।

খাজুরা আবাসনের সভাপতি আছিয়া বেগম ও সাধারণ সম্পাদক সুধীর চন্দ্র মিস্ত্রী জানান, আয়রন সেতুটি দিয়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার লোক যাতায়াত করে। এখন যাতায়ত করাই মুশকিল হয়ে পড়েছে। সেতুটি দ্রুত সংষ্কার হলে আমরা বড় ধরনের দুশ্চিন্তা হতে বেঁচে যেতাম।

এ বিষয়ে লতাচাপলী ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান আনছার উদ্দিন মোল্লা বলেন, কুয়াকাটা খালের ওপর আয়রন সেতুটি সহ আমার ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি সেতু অত্যান্ত খারাপ অবস্থায় রয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে এ বিষয়ে অবহিত করা হয়েছে। ব্রিজের নতুন বরাদ্ধ আসার আগ পর্যন্ত মানুষের চলাচলের জন্য সেতুর অদুরে একটি মজবুত সাঁকো করে দিবেন বলেও জানান তিনি।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়