এশিয়ার বৃহত্তম বস্তিতে যেভাবে করোনা নিয়ন্ত্রিত

আগের সংবাদ

হিয়া কি বাদ গেলেন? ফুঁসছেন দর্শক!

পরের সংবাদ

সংক্রামকের সঙ্গে মেশালেই গৃহস্থালি বর্জ সংগ্রহ বন্ধ

প্রকাশিত: জুন ২৩, ২০২০ , ৭:৫৩ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ২৩, ২০২০ , ৮:৪৫ অপরাহ্ণ

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো: আতিকুল ইসলাম বলেছেন, গৃহস্থালি বর্জ্যের সঙ্গে সংক্রামক বর্জ্য- ব্যবহৃত মাস্ক, গ্লাভস সহ অন্যান্য সুরক্ষা বর্জ্য মেশানো হলে আগামী ৭ জুলাই থেকে বাসাবাড়ি হতে সেই বর্জ্য সংগ্রহ করা হবে না।

মঙ্গলবার (২৩ জুন) সকাল ১১টায় রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজারে ডিএনসিসির সংক্রামক বর্জ্য ব্যবস্থা্পনা কর্মসূচির উদ্বোধনকালে তিনি এ কথা বলেন।

মেয়র বলেন, আমরা অনেকে গৃহস্থালি বর্জ্যের সাথে সংক্রামক বর্জ্য বা কোভিড বর্জ্য এক সঙ্গে মিশিয়ে ফেলছি। এটি জনস্বাস্থ্যে জন্য হুমকিস্বরূপ। করোনা যেমন আমরা ম্যানেজ করে চলছি, আমরা যেভাবে মাস্ক পরা শুরু করেছি, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচল করছি, একইভাবে কোভিড বর্জ্য বা সংক্রামক বর্জ্য যাতে গৃহস্থালির বর্জ্যের সাথে মেশানো না হয় সেদিকে সকলকে সচেষ্ট থাকতে হবে।

সংক্রামক বর্জ্য পৃথকভাবে রাখার জন্য ডিএনসিসি প্রথমবারের মত ৩ লক্ষ ব্যাগ বিভিন্ন বাসাবাড়িতে বিতরণ করবো। পরবর্তীতে নগরবাসীকে নিজ উদ্যোগে ব্যাগ ক্রয় করে সংক্রামক বর্জ্য সংরক্ষণ করতে হবে। বাসাবাড়িতে ব্যবহৃত মাস্ক, গ্লাভসসহ অন্যান্য সুরক্ষাসামগ্রী যত্রতত্র না ফেলে এই ব্যাগে সংরক্ষণ করবেন। বাসাবাড়ি থেকে বর্জ্য সংগ্রহকারী কর্মীগণ প্রতি শনিবার এবং মঙ্গলবার এ সকল সংক্রামক বর্জ্য সংগ্রহ করবে।

সংক্রামক বর্জ্য সংগ্রহ করে প্রতিটি অঞ্চলের একটি সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশনে (এসটিএস) এনে রাখা হবে। সেখান থেকে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে মাতুয়াইলে স্বাস্থ্যসম্মতভাবে ডিসপোজাল করা হবে। এ কাজটি বাস্তবায়ন করতে জনগণের সহযোগিতা প্রয়োজন হবে। এই বর্জ্য যদি আমরা যত্রতত্র ফেলে কিংবা গৃহস্থালি বর্জ্যের সাথে মিশিয়ে ফেলি তাহলে সংক্রমণ আরো বাড়ার আশংকা থাকে। আমরা আপাতত ৩ লক্ষ ব্যাগ বিনামূল্যে ডিএনসিসির বিভিন্ন ওয়ার্ডে বিতরণ করবো। আমাদের ওয়ার্ড কাউন্সিলরগণ প্রতিটি ওয়ার্ডে এ বিষয়ে প্রচারণা চালাবেন।

পূর্ব রাজাবাজার এলাকার যেসকল বাড়িতে করোনা আক্রান্ত রোগি আছে তাদের প্রত্যেকের বাসায় ১০ টি করে দেয়া এ ব্যাগ দেয়া হবে। স্বেচ্ছসেবকগন এসকল ব্যাগ বাড়িবাড়ি দিয়ে আসবেন। লিফলেট, নোটিস বিতরণের মাধ্যমে এ বিষয়ে আমাদের সচেতনামূলক ক্যাম্পেইন অব্যাহত থাকবে।

পূর্ব রাজাবাজারে লকডাউন প্রসঙ্গে আতিকুল ইসলাম বলেন, লকডাউন ১৪ দিন থাকার কথা ছিল। তবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনায় আরো ৭ দিন বাড়ানো হচ্ছে। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরিদুর রহমান ইরান উপস্থিত ছিলেন।

এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়