বিয়ে করেছেন নুসরাত ফারিয়া

আগের সংবাদ

করোনায় সৌদি যুবরাজের মৃত্যু

পরের সংবাদ

পুলিশে আক্রান্তের রেকর্ড, ফায়ারে বেড়ে ১৩৮

প্রকাশিত: জুন ৮, ২০২০ , ৭:৩৩ অপরাহ্ণ আপডেট: জুন ৮, ২০২০ , ৭:৩৫ অপরাহ্ণ

করোনা ভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় বাংলাদেশ পুলিশের ৪০৬ জন সদস্য করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এটিই পুলিশ বাহিনীতে একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তের রেকর্ড। সবমিলিয়ে সোমবার পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলার এ বাহিনীতে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৬১২ জনে। এর আগে গত ৪ জুন একদিনে সর্বোচ্চ ৩২৪ জন পুলিশ কর্মকর্তা করোনায় আক্রান্ত হন।

এদিকে, ফায়ার সার্ভিসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাড়িয়েছে ১৩৮ জনে। সংস্থা দুটির সদরদপ্তর সূত্র এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে।

পুলিশ সদর দপ্তর সূত্র জানায়, করোনায় আক্রান্ত বাংলাদেশ পুলিশের সদস্যদের মধ্যে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) এক হাজার ৮৫০ জন সদস্য আক্রান্ত হয়েছেন। সুচিকিৎসা ও সুনিবিড় পরিচর্যায় সোমবার পর্যন্ত পুলিশের ২ হাজার ৮২৩ জন সদস্য করোনাজয় করেছেন। সোমবার পর্যন্ত পুলিশের মোট ২ হাজার ৩২ জন করোনার উপসর্গ নিয়ে আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি রয়েছেন। আক্রান্তদের সংস্পর্শে এসে কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ৬ হাজার ৪৭৪ জন পুলিশ কর্মকর্তা।

চলমান করোনাযুদ্ধে এ পর্যন্ত বাংলাদেশ পুলিশে কর্মরত ও সংযুক্ত মোট ১৯ সদস্য মৃত্যুবরণ করেছেন। যার মধ্যে ১৮ জন পুলিশ কর্মকর্তা বাকি একজন সিভিল কর্মকর্তা যিনি পুলিশে সংযুক্ত ছিলেন।

এ বিষয়ে পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি (মিডিয়া) সোহেল রানা বলেন, ‘মাঠে নিয়োজিত সদস্যরা যেন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে ও সুরতি থাকতে পারেন, সেজন্য সচেতনতার পাশাপাশি সরকার নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি জানানো হচ্ছে। সিনিয়র অফিসাররাও বিভিন্ন ইউনিটে গিয়ে তাদের সঙ্গে এসব নিয়ে কথা বলছেন। সুরা সামগ্রী ও পর্যাপ্ত জীবাণুনাশক সরবরাহে এবং ব্যবহার নিশ্চিত করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের মিয়িা সেলের কর্মকর্তা মো. রায়হান জানান, ফায়ার সার্ভিসের ১০ কর্মকর্তাসহ মোট ১৩৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে ২ জন কর্মকর্তাসহ ৪৪ জন সুস্থ হয়েছেন। ৮ জনকে হোম কোয়ারেনটাইনে আছেন। বাকি ৮৫ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেনটাইনে রাখা হয়েছে এবং ১ জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। আক্রান্তদের মধ্যে ৪৪ জন আইসোলেশনে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে নিজ নিজ কর্মস্থলে যোগদান করেছেন।

তিনি আরো জানান, করোনা আক্রান্তদের সকলেই ভালো আছেন। ওপর নিবিড়ভাবে নজর রাখা হচ্ছে এবং স্বাস্থ্যের উন্নতি না হলে বা অবনতি হলে প্রয়োজনে তাদের আইসোলেশনে রাখা হবে বা হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্থা করা হবে।

এসএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়