সামাজিক দূরত্ব বোঝে না ওরা

আগের সংবাদ

বিএনপি ৯ জুন বাজেট ভাবনা তুলে ধরবে

পরের সংবাদ

কেমন বাজেট চাই

পূর্ণাঙ্গ নয়, অন্তর্বর্তীকালীন বাজেট প্রণয়ন হোক

এন রায় রাজা 

প্রকাশিত হয়েছে: জুন ৭, ২০২০ , ১১:২০ পূর্বাহ্ণ

করোনা ভাইরাস সংক্রমণে বিশ্ব অর্থনীতি বিধ্বস্ত। আমাদের দেশেও করোনা সংক্রমণ মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। অর্থনীতি, স্বাস্থ্য ব্যবস্থা, বেকারত্ব, খাদ্য নিরাপত্তা একেবারে ভেঙে পড়েছে। তাই এ সময় ২০২০-২১ অর্থবছরের পূর্ণাঙ্গ বাজেট পেশ করা বন্ধ রেখে করোনায় অর্থনীতির এ ধস ঠেকাতে ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থা মোকাবিলায় জুলাই-২০২০ থেকে জানুয়ারি-২০২১ পর্যন্ত একটি অন্তর্বর্তীকালীন বাজেট ঘোষণার প্রস্তাব দিয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. আনু মুহাম্মদ। গতকাল শনিবার ভোরের কাগজের সঙ্গে আলাপকালে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

ড. আনু মুহাম্মদ বলেন, আমি কোনোভাবেই চাই না সরকার গতানুগতিক বাজেট পেশ করুক। এবার কোনো জাতীয় বাজেটের প্রয়োজন নেই। এখন অর্থনীতির এ ধস ঠেকাতে অন্তর্বর্তীকালীন বাজেটের বিশেষ প্রয়োজন। বর্তমানে করোনা সংক্রমণের কারণে দেশের অর্থনীতি ভেঙে পড়েছে।

দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার যে কতটা বেহাল দশা তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে। তার ওপর খাদ্য নিরাপত্তা নেই, বেকারত্ব বেড়ে যাচ্ছে, শিক্ষা চিকিৎসা, গবেষণা কিছুই ঠিক নেই। এ অবস্থায় বাংলাদেশের জন্য ক্ষতিকর এবং লোক দেখানো প্রকল্পে অর্থ বরাদ্দের কোনো মানে হয় না।

তিনি বলেন, বিশ্বের অনেক দেশ মহামারি ঠেকাতে ‘অর্থবছর পরিবর্তন ও অন্তর্বর্তীকালীন বাজেট’ নীতি গ্রহণ করার কথা ভাবছে। অনেক দেশ মহামারি ঠেকানোর জন্য আলাদা বাজেটের কথা বলছে। তাদের থেকে আমাদের শিক্ষা নিয়ে প্রথমে অর্থবছর বদলাতে হবে। জানুয়ারি বা ফেব্রুয়ারি থেকে অর্থবছর করতে হবে। আর আগামী ৬ মাসের জন্য করোনায় যে ক্ষত সৃষ্টি করেছে তা পুনরুদ্ধারে বা করোনার সঙ্গে লড়াই করার জন্য বাজেট দিতে হবে। এটা অন্তর্বর্তীকালীন বাজেট হবে। আর আগামী বছর গিয়ে ফেব্রুয়ারি বা জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর বা যে কোনো সময়ভিত্তিক পূর্ণাঙ্গ বাজেট দেয়া যেতে পারে।

এই বিদগ্ধ অর্থনীতিবিদ বলেন, আসলে দেশে যেসব সরকার বা দল ক্ষমতায় আছে বা ছিল তারা দেশের জন্য ক্ষতিকর ও লুটপাটের বাজেট পেশ করে আসছে। যাতে বাজেটের অর্থ-জনগণের টাকা লুটপাট করে নিজের ও দলের তহবিল বাড়ানো যায়। বিদেশে পাচার করে টাকার পাহাড় বানিয়েছে অনেকে। কিন্তু করোনা আমাদের শিখিয়েছে বুর্জোয়া অর্থনীতি কখনো টেকসই হতে পারে না। তাই পরিবেশবান্ধব বাজেট পেশ করতে হবে। গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে তার ওপর বাজেট পেশ করতে হবে। প্রথমত, আমাদের স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও গবেষণায় জোর দিতে বাজেটে অধিক অর্থ বরাদ্দ দিতে হবে। সেই সঙ্গে বেকারত্ব দূর করতে কর্মসংস্থানও খাদ্য নিরাপত্তা জোরদার করতে বাজেট করতে হবে। করোনা থেকে পরিবর্তনের বার্তা নিয়ে লোক দেখানো বাজেট পেশ না করে দেশ ও জাতিকে আপদকালীন সময়ে রক্ষা করার বিচক্ষণ সিদ্ধান্ত নিয়ে বাজেট দিতে হবে।

এসআর