বাজেট অধিবেশনে নিরাপত্তা নিয়ে বৈঠক, প্রবেশে কড়াকড়ি

আগের সংবাদ

সংসদ এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি হচ্ছে

পরের সংবাদ

প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে বিএলএফসিএর সাড়ে ৯ কোটি টাকা

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: জুন ৪, ২০২০ , ৬:০৩ অপরাহ্ণ

অ-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন বিএলএফসিএ-এর একটি প্রতিনিধিদল বৃহস্পতিবার (৪ জুন) প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে নয় কোটি পঞ্চাশ লক্ষ টাকা দিয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এ অর্থ গ্রহণ করেন।

এসময় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্স-এর মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যোগদান করেন এবং প্রতিনিধিদলকে দেশের প্রান্তিক ও বিপদগ্রস্থ মানুষের পাশে এসে দাঁড়ানোর জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। অনুষ্ঠানে আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইডিএলসি ফাইন্যান্স দুই কোটি চল্লিশ লক্ষ টাকা, আইপিডিসি ফাইন্যান্স দুই কোটি টাকা, লংকাবাংলা ফাইন্যান্স দুই কোটি টাকা এবং উত্তরা ফাইন্যান্স এক কোটি পঞ্চাশ লক্ষ টাকা প্রদান করে। সঙ্গে সঙ্গে বিএলএফসিএ-এর অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলো এক কোটি ষাট লক্ষ টাকা প্রদান করে যার মধ্যে ফিনিক্স ফাইন্যান্স-এর পঞ্চাশ লক্ষ টাকা উল্লেখযোগ্য।

অনুষ্ঠানে প্রতিনিধিদল মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে অ-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যাবলী এবং দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান তুলে ধরেন। এসময় প্রতিনিধিদল অ-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর তারল্য সংকট কাটানোর জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক দশ হাজার কোটি টাকার একটি পুনঃঅর্থায়ন তহবিল গঠনের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা চান।

বিএলএফসিএ-এর পক্ষ থেকে আইপিডিসি ফাইন্যান্স-এর চেয়ারম্যান ও সাবেক মুখ্য সচিব মো: আব্দুল করিম, মেরিডিয়ান ফাইন্যান্স-এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও বিআইডিএ-র প্রাক্তন নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী এম. আমিনুল ইসলাম, আইডিএলসি ফাইন্যান্স-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরিফ খান এবং উত্তরা ফাইন্যান্স-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক শামসুল আরেফিন উপস্থিত ছিলেন।

বিএলএফসিএ-এর চেয়ারম্যান ও আইপিডিসি ফাইন্যান্স লিমিটেড-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মমিনুল ইসলাম বলেন, “মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টান্তে অনুপ্রাণিত হয়ে, দেশের এই চরম সঙ্কটকালীন সময়ে সুবিধাবঞ্চিত ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর পাশে দাঁড়ানো আমাদের জন্য অত্যন্ত জরুরী। আজ অ-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো এই মহৎ উদ্যোগের অংশীদার হতে পেরে ধন্য। অ-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য প্রস্তাবিত পুনঃঅর্থায়ন প্রকল্পটি বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে আমরা দায়িত্ব পালনে সক্ষম হবো এবং আগামীতে সুবিধাবঞ্চিত মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে ভূমিকা রাখতে পারবো।”

এমএইচ