গোলাম রাব্বানী হেলাল

চলে গেলেন সাবেক ফুটবলার গোলাম রাব্বানী হেলাল

আগের সংবাদ

কাল থেকে ৭ রুটে চলবে ট্রেন, সব টিকেট অনলাইনে

পরের সংবাদ

চরম বিপর্যয়ের দিকে ঠেলে দিচ্ছে সরকার

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: মে ৩০, ২০২০ , ৩:৩৪ অপরাহ্ণ

করোনাভাইরাসের বিস্তারের ব্যাপক ঝুঁকির মধ্যে সব কিছু খুলে দিয়ে সরকার দেশকে চরম বিপদের দিকে ঠেলে দিচ্ছে বলে মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জনগণকে নিরাপদে থাকতে ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়েছন।

শনিবার (৩০ মে) দুপুরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ৩৯তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলেক্ষ তার সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন শেষে এ কথা বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এই যে বলছে যে, আগামীকাল থেকে সাধারণ ছুটিও থাকবে না, গণ-পরিবহন খুলে দেয়া হবে-এই বিষয়গুলো সরকার প্রথম থেকেই ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মনে হয়েছে যে, সমন্বয় নেই কোথাও এবং তাদের(সরকার) সিদ্ধান্তগুলো সম্পূর্ণভাবে অপরিপক্কই নয়, অদূরদৃষ্টি সম্পন্ন ও প্রজ্ঞাবিহীন।

তিনি বলেন, কোনো রকম চিন্তা ছাড়া একেবারে দায়িত্বজ্ঞানহীনভাবে এই সিদ্ধান্তগুলো নেয়া হচ্ছে। আমরা মনে করি যে, এটা একেবারে ভুল সিদ্ধান্ত এবং এটা আরো চরম বিপদের দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে দেশকে।

বিএনপির তরফ থেকে জনগনের প্রতি পরামর্শ কী প্রশ্ন করা হলে মহাসচিব বলেন, জনসাধারণের প্রতি আমাদের পরামর্শ হচ্ছে-আপনারা নিজেরা নিরাপদ থাকুন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন এবং ঘরে থাকুন।

করোনা বিস্তারের শঙ্কা প্রকাশ করে মির্জা ফখরুল বলেন, দেশের মানুষ আতঙ্কিত হয়ে উঠেছে। যে পরিমান পরীক্ষা হচ্ছে দেখা যাচ্ছে যে, প্রতিদিনই সেটা বাড়ছে। আক্রান্তের পরিমান বাড়ছে, মৃত্যুর পরিমান বাড়ছে।

তিনি বলেন, বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তাদের নির্বাচিত স্বাস্থসম্মত টেকনিক্যাল কমিটি তারা পরামর্শ দিয়েছেন যে, এখন এই মুহুর্তে একবারে একসাথে খোলা উচিত হবে না সব কিছু। সেক্ষেত্রে তারা তাদের কথা না শুনে সব কিছু খূলে দিয়েছে। আরো হুমকির মুখে গোটা জাতি পড়ে গেছে।

ফখরুল বলেন, আজকে করোনা সংকটময় মুহুর্তে এই নেতার কথা বার বার মনে হয়, এই ক্ষনজন্মা নেতা আজকে যদি নেতৃত্ব দিতে পারতেন তাহলে হয়ত বাংলাদেশের মানুষকে এতো কষ্ট পেতে হতো না।

তিনি বলেন, দেশে যখন গণতন্ত্র নেই, মানুষের মৌলিক অধিকার হরণ করা হয়েছে, মানবিক অধিকার প্রতি মুহুর্তে মুহুর্তে লঙ্ঘিত হচ্ছে তখন এই এক দলীয় কান্ডজ্ঞান বিবর্জিত এবং জনগনের সঙ্গে সম্পর্ক নেই, জনগনের কোনো কল্যাণে তারা কাজ করতে পারে না। তারা বিভিন্ন ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে একটা জাতিকে বিপদের মধ্যে ঠেলে দিয়েছে।

মহাসচিব বলেন, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৩৯তম শাহাদাত বার্ষিকীতে বিএনপির পক্ষ থেকে আমাদের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে, দলের পক্ষ থেকে আমরা আজকে মাজার এসে শ্রদ্ধাঞ্জলী নিবেদন করেছি, জিয়ারত করেছি, ফাতেহা পাঠ করেছি এবং তার রুহের মাগফেরাতের জন্য দোয়া করেছি।

তিনি বলেন, আমরা শপথ নিয়েছি এই দুর্দিনে আমরা জনগনের পাশে দাঁড়াবো। আমাদের পক্ষে যতটুকু সম্ভব ইতিমধ্যে আমরা দাঁড়িয়েছি, আরো দাঁড়াবো এবং একই সঙ্গে গণতন্ত্র উদ্ধার করবো এইটাই হচ্ছে আজকের দিনের আমাদের শপথ।

এ সময়ে মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু উপস্থিত ছিলেন।

এসএইচ