ঘূর্ণিঝড় আমফান মোকাবিলায় প্রস্তুত পুলিশ

আগের সংবাদ

বেসরকারি খাত সুরক্ষায় নতুন প্ল্যাটফর্ম ‘রিসারজেন্ট বাংলাদেশ’

পরের সংবাদ

বাউল শিল্পীর ঘরে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় উদীচীর প্রতিবাদ

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: মে ১৯, ২০২০ , ১০:২০ অপরাহ্ণ

বাউল সম্রাট শাহ আব্দুল করিমের অন্যতম শীষ্য বাউল রনেশ ঠাকুরের বাড়িতে অগ্নিসংযোগের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী।

এক প্রতিবাদ পত্রে উদীচীর সভাপতি ড. সফিউদ্দিন আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক জামসেদ আনোয়ার তপন বলেন, বাউল রনেশ ঠাকুরের আসর ঘরে অগ্নিসংযোগের ফলে তার ৪০ বছরের সঞ্চিত বই, সঙ্গীত সাধনার বিভিন্ন অনুষঙ্গ, বাদ্যযন্ত্রে সাজানো গানের ঘরটি পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এটি নিছক কোনো সাধারণ অপরাধের ঘটনা নয়, উদীচী মনে করে এই অগ্নিসংযোগের ঘটনা অসাম্প্রদায়িক, ধর্মনিরপেক্ষ, মানবতাবাদী বাঙালি সংস্কৃতির উপর ধারাবাহিক হামলার অংশ। যুগ যুগ ধরে বাংলার পথে প্রান্তরে বাউল শিল্পীরা জাতপাতের বিরুদ্ধে, ধনী-গরীব বৈষম্য এবং শোষণের বিরুদ্ধে, ধর্মীয় সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে, অন্যায় অত্যাচারের বিরুদ্ধে গান গেয়ে মানুষকে সজাগ এবং সচেতন করেছেন। তাই সমাজের কায়েমী স্বার্থবাদী গোষ্ঠী চক্ষুশূল হিসেবেই দেখেছে বাউলদের। কিন্তু এরা অতীতে কখনই এভাবে হামলা করার সাহস পায়নি।

তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারী, সংস্কৃতি-বান্ধব সরকার ক্ষমতাসীন থাকতে কিভাবে একের পর এক বাউলরা নির্যাতিত হয় এবং প্রতিকার ও প্রতিক্রিয়াহীন সরকার উল্টো বাউল শিল্পীকে কারারুদ্ধ করে সেটাই সবচেয়ে বিস্ময়ের ব্যপার! সমাজে যখন মানবিকতার ভয়াবহ সংকট চলছে সেই মুহূর্তে এই বাউল শিল্পীরাই মানবতার পরম শিক্ষক হিসেবে গোটা সমাজে এক বিরাট ভূমিকা পালন করতে পারেন। তাদেরকে পৃষ্ঠপোষকতা দেওয়াই সমাজ এবং রাষ্ট্রের কর্তব্য। অথচ তাদেরকে নিশ্চিহ্ন করে দেওয়ার চক্রান্ত চলছে।

নেতৃবৃন্দ এ ঘটনায় জড়িতদের অবিলম্বে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। একইসাথে বাউল রনেশ ঠাকুরের পরিবারের নিরাপত্তা বিধানসহ অবিলম্বে তার ঘর পুনঃনির্মাণের ব্যবস্থা করার জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানান।

এমএইচ