‘রেড অ্যালার্ট-৩’ জারি করলো চট্টগ্রাম বন্দর

আগের সংবাদ

পোশাককর্মীদের জন্য স্কটল্যান্ডের ব্যবসায়ীর ‘লস্ট স্টক’

পরের সংবাদ

রাতের আঁধারেই আশ্রয়কেন্দ্রে উপকূলবাসী

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: মে ১৯, ২০২০ , ২:১৮ পূর্বাহ্ণ

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট সুপার সাইক্লোন আমফান ধেয়ে আসছে উপকূলের দিকে। ঘণ্টায় ১৫-২০ কিলোমিটার গতিতে এগিয়ে আসছে বাংলাদেশের দিকে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৮৫ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ২১০ কিলোমিটার। যা দমকা হাওয়ার আকারে ২২০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

মঙ্গলবার রাত কিংবা বুধবার সকালে আঘাত হানতে পারে আমফান। আঘাত হানার সময় সাইক্লোনের বেগ হতে পারে ঘণ্টায় ১৪০-১৬০ কিলোমিটার। ইতোমধ্যে সরকার ১২ হাজারের বেশি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত করা হয়েছে। উপকূলের অন্তত ২১ লাখ মানুষকে সরিয়ে নেয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

সোমবার রাতের আঁধারেই ঝুঁকিপূর্ণ উপকূলীয় এলাকার মানুষদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিতে কাজ শুরু করেছে কোস্টগার্ড। অনেকেই আগে ভাগেই নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য ছুটছেন। এমনকি রাতের আঁধারেই তারা আশ্রয় ও সাইক্লোন শেল্টারে আসতে শুরু করেছেন।

কোস্টগার্ড সদর দপ্তর বলছে, ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার বাসিন্দাদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিতে বেশ কয়েকটি ইউনিট কাজ শুরু করে দিয়েছে। সোমবার রাতেই কয়েকশ বাসিন্দাকে আশ্রয়কেন্দ্রে নেয়া হয়েছে। অন্যদেরও নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়ার কাজ চলছে।

আবহাওয়া অফিসের হিসেবে, সুপার সাইক্লোন আর অমাবস্যার প্রভাবে উপকূলীয় জেলা আর অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৪-৫ ফুট অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে। তাছাড়া ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণসহ ঘণ্টায় ১৪০-১৬০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

এনএম