কেমন চলছে ডিইউডিএমএএর টেলিমেডিসিন সেবা?

আগের সংবাদ

যুদ্ধাহত সুন্দরবন

পরের সংবাদ

আঙ্গুল উঠছে তিশার দিকেও…

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: মে ১৮, ২০২০ , ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

করোনা মহামারীতে চলমান লকডাউনের মধ্যেই শোবিজ অঙ্গনে সংসার ভাঙার খবর পাওয়া গেছে। ছোট পর্দার রোমান্টিক অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্বর ৯ বছরের সংসার ভেঙে গেছে। স্ত্রী নাজিয়া হাসান অদিতির সঙ্গে বেশ কিছুদিন ধরেই বনিবনা হচ্ছিল না অপূর্বর। এক পর্যায়ে সবার অজান্তে তারা আলাদা হয়ে যান। তবে বিষয়টি কারো জানাই ছিল না।

রোববার অদিতিই হঠাৎ করে ফেসবুকে লেখেন, ‘আমাকে ‘ভাবী’ ডাকা বন্ধ করুন সবাই!’। এরপর রিলেশনশিপ স্ট্যাটাসে গিয়ে ‘ডিভোর্সড’ লেখা চোখে পড়ে সবার। সাংবাদিকরা অদিতিকে ফোন দিয়ে জানতে পারেন, তাদের ডিভোর্স কার্যকর হয়েছে। অপূর্বর বাসা থেকে নিজ বাসায় চলে এসেছেন নাজিয়া। তবে কারণ সম্পর্কে কিছু বলতে নারাজ।

যদিও ওই ঘটনার ঘণ্টা দুয়েক পর অদিতি তার ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন থেকে বিরত থাকার জন্য সাংবাদিকদের অনুরোধ করেন। সেই সঙ্গে জানান কারণ একটা নয়, বহুবিধ কারণে তারা আলাদা হয়ে গেছেন।

অপূর্ব-তিশা

সেইসব কারণ কী কী? এমন কৌতুহলের উত্তরও পাওয়া যাচ্ছে। অপূর্ব-অদিতির সংসার ভাঙার পেছনের কারণ হিসেবে আঙ্গুল উঠছে হালের জনপ্রিয় অভিনেত্রী তানজিন তিশার দিকে। সাম্প্রতিক সময়ে অপূর্ব-তিশার জুটি বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এই সূত্রেই তাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক হয়ে যায়।

অপূর্বর অতি ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো বলছে, ঘটনা টের পাওয়ার পর অদিতি নানাভাবে অপূর্বকে বোঝানোর চেষ্টা করেন। তিশার সঙ্গে জুটিবেঁধে অভিনয় করতে নিধেষও করেন। তবে সবকিছু ব্যর্থ হয়ে যায়। এক পর্যায়ে রাগে ক্ষোভে অপূর্বর বাড়ি ছেড়ে চলে যান অদিতি। আর এতে ক্ষুব্ধ হয়ে যান অপূর্ব। অনেকেই বলছেন, অদিতি বাবার বাড়ি চলে যাওয়ার পর থেকে তিশার সঙ্গে অপূর্বর যোগাযোগ আরো বেড়ে যায়। পরিণামে যা হওয়ার তা-ই হয়েছে।

এনএম