স্টেশনের ফাঁকা জায়গায় শাকসবজি চাষের নির্দেশ

আগের সংবাদ

সাংবাদিক আসলাম রহমানের মৃত্যুতে নানা মহলের শোক

পরের সংবাদ

দেশে ইন্টারনেট ঝুঁকিতে ১ কোটি ২০ লাখ শিশু

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: মে ৮, ২০২০ , ৭:৪৩ অপরাহ্ণ

দেশে ইন্টারনেট ঝুঁকিতে রয়েছে এক কোটি ২০ লাখ শিশু-কিশোর। শুক্রবার (৮ মে) গণমাধ্যমে পাঠানো বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ ততথ্য জানা গেছে।

সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশের স্কুল-কলেজ গত ১৮ মার্চ থেকে আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। লকডাউনে ঘরবন্দী দেশের প্রায় ২ কোটি ৫০ লক্ষ শিশু-কিশোর (প্লে থেকে দশম শ্রেণী)। সরকার স্কুল-কলেজের নির্দেশনা অনলাইন ভিত্তিক ক্লাস করায় ফলে ৪ থেকে ১৪ বছরের শিশু-কিশোররা এক প্রকার বাধ্য হয়েই ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। সেই সাথে ঘরে আটকে রাখলেও আমরা যে ইন্টারনেট কোমলমতি শিশু-কিশোরদের হাতে তুলে দিচ্ছি তা কি আদৌও নিরাপদ ? এখনো এই মাধ্যম শিশু-কিশোরদের জন্য ব্যবহার উপযোগী হয়নি। এই কারণে গত ৬ মে জাতিসংঘের প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়ন (আইটিইউ) খুব কম বয়সের শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহার নিয়ে সতর্ক করেছে।

তারা বলেছে বিশ্বের প্রায় ১৫০ কোটি স্কুল-কলেজ বন্ধ। এরা লেখাপড়া, খেলাধুলা, ভিডিও গেমস দেখতে ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। এতে করে তারা সাইবার ঝুঁকিতে পড়তে যাচ্ছে। বাংলাদেশে ইন্টারনেট ও ডিভাইস স্বল্পতার কারণে যদি ৫০ শতাংশ ইন্টারনেটের বাইরেও থাকে তারপরেও প্রায় ১ কোটি ২০ লক্ষ শিশুর ইন্টারনেটের অশুভ প্রভাব তাদের উপর পড়বে। সেই সঙ্গে অতিমাত্রায় ব্যবহারের ইন্টারনেট আসক্তির বিষয়টিও উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

শিশুদের ইন্টারনেট ব্যবহারে নিরাপত্তার বিষয়টি টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে এখন পর্যন্ত কোন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে বলে আমাদের জানা নেই এবং এ নিয়ে কোন নীতিমালাও তৈরী হয়নি। ইতিমধ্যে আইটিইউ কিছু সুপারিশমালা তৈরী করতে যাচ্ছে। আমরা সকলেই জানি ইন্টারনেটের যে বিষয়ে আমরা জানতে চাই তার পাশাপাশি অনাকাঙ্খিত বিষয়গুলিও চলে আসবে। ফলে কোমলমতি শিশুরা যা জানার কথা প্রাপ্ত বয়সে তা জেনে যাচ্ছে মেধা বিকাশের পূর্বেই। সেই সাথে তারা সাইবার ঝুঁকিতে নিজে এবং তার পরিবারকে ফেলতে পারে। এই বিষয়ে অভিভাবকদের সচেতন থাকার জন্য আমরা অনুরোধ করছি এবং সরকারকে দ্রুত ইন্টারনেটের নিরাপত্তার বিষয়টি জোরালো ভাবে দেখার আহ্বান জানাচ্ছি।

পিআর