পেটের ক্ষুধা কি আর করোনা মানে?

আগের সংবাদ

করোনো পরীক্ষা বিআইটিআইডি পেল আরো ৯শ কিট

পরের সংবাদ

দিল্লির মসজিদে জমায়েত, কোয়ারেন্টিনে ২০০০

প্রকাশিত: মার্চ ৩১, ২০২০ , ১:৩২ পূর্বাহ্ণ আপডেট: মার্চ ৩১, ২০২০ , ১:৩২ পূর্বাহ্ণ

দিল্লির নিজামুদ্দিন এলাকার ১৭৫ জনের একসঙ্গে করোনা সংক্রমণের নমুনা পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। যা দেশের মধ্যে এক সঙ্গে সবচেয়ে বেশি পরীক্ষা। আশঙ্কা করা হচ্ছে তাদের অনেকে আক্রান্ত হয়ে থাকতে। কারণটা হচ্ছে, চলতি মাসের মাঝামাঝি দিল্লি বাংলাওয়ালি মসজিদে বহু মানুষ জমায়েত হয়েছিল। স্থানীয়রা ছাড়াও সেখানে আমন্ত্রিত ছিলেন মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, সৌদি আরব ও কিরঘিজস্তানের নাগরিকেরা।

ঘটনাচক্রে, ওই জমায়েতে যোগ দেয়া এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে এ মাসেই। আবার জমায়েতে যোগা দেয়া দুই জন ইতোমধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। অন্ধ্রপ্রদেশের আক্রান্ত আরেক ব্যক্তিও যোগ দিয়েছিলেন ওই জমায়েতে। শ্রীনগরে করোনায় আক্রান্ত হয়ে যে ধর্মগুরুর মৃত্যু হয়েছে, তিনিও কিন্তু ওই অনুষ্ঠানেই যোগ দিয়েছিলেন। কাশ্মীরে নিজের বাড়িতে ফেরার আগে ওই ধর্মগুরু উত্তরপ্রদেশের দেওবন্দেও গিয়েছিলেন। এসব খবর গেছে স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মকর্তাদের কাছে। আর তাতেই তৎপর হয়ে উঠেছেন তারা।

প্রশাসন বলছে, ওই জমায়েতে আমন্ত্রিত এক ইন্দোনেশীয়সহ সৌদি আরবের ছয় জন নাগরিককে ইতোমধ্যে দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি, জমায়েতে যোগদানকারীদের মধ্যে ১২০০ জনকে মসজিদের ভেতরে থাকার বন্দোবস্ত করা হয়েছে। মসজিদের পাশেই অস্থায়ী চিকিত্সা শিবির গড়া হয়েছে।

ইতোমধ্যে দক্ষিণ দিল্লির ঘনবসতিপূর্ণ সেই জমায়েত এলাকার প্রায় দুই হাজার জনকে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। এলাকায় পুলিশের টহলদারি ছাড়াও ড্রোনের সাহায্যে নজরদারি চালানো হচ্ছে। যাতে লকডাউনের বিধিনিষেধ মেনে চলেন সকলে। তবে এই নজরদারি সত্ত্বেও প্রশাসনের আশঙ্কা, অনেকেই হয়তো করোনায় আক্রান্ত। কারণ, ওই অনুষ্ঠানের পর অনেকেই সারা দেশের বিভিন্ন জায়গায় ফিরে গিয়েছেন।

এনএম

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়