করোনা মোকাবিলায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখি

আগের সংবাদ

ফোর্স নয়, সেবকও নয়, বন্ধু চাই

পরের সংবাদ

সুবিধাবঞ্চিতদের পাশে সাকিব ফাউন্ডেশন

প্রকাশিত: মার্চ ২৯, ২০২০ , ৬:১৬ অপরাহ্ণ আপডেট: মার্চ ২৯, ২০২০ , ৬:১৬ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের পাশে দাঁড়াতে ‘দ্য সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশন’ নামে একটি সংগঠন করার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। শনিবার দিবাগত (২৮ মার্চ) রাতে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে বাংলাদেশ তথা বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান একটি স্ট্যাটাস দিয়ে এই ঘোষণা দিয়েছেন।

বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে আর্থিকভাবে সবচেয়ে সচ্ছল সাকিব আল হাসান। পৃথিবীব্যাপী চলমান ভয়াবহ মহামারি করোনা ভাইরাস আতঙ্কের এই উদ্বিগ্ন সময়ে হাতগুটিয়ে বসে না থেকে সাকিব নিয়েছেন অনেক বড় উদ্যোগ। তার ফাউন্ডেশনের কাজ কি হবে সেই আভাসও দিয়ে রেখেছেন তিনি। এই সংগঠনটি বাংলাদেশের সব মানুষের নিরাপদ ও উন্নত জীবন গড়ে তুলতে নিবেদিতভাবে কাজ করবে। ওই পোস্টে সাকিব আরো লিখেছেন, ‘একসঙ্গে আমরা যেকোনো কিছুকে কাটিয়ে উঠতে পারি। আসুন, আমরা সবাই মিলে দল হিসেবে কাজ করি। আমাদের কণ্ঠ ও হাতকে কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশকে রক্ষা করতে পারি।’
বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবে স্থবির হয়ে পড়েছে জনজীবন। এমন সংকটের মুহূর্তে মানুষকে সাহায্য করার জন্য এগিয়ে এসেছে মানুষরাই। করোনা আক্রান্তদের থেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষকে রক্ষায় গঠিত তহবিলে বড় বড় অঙ্কের অর্থ অনুদান দিয়েছেন বিখ্যাত ক্রীড়া ব্যক্তিত্বরা। এগিয়ে এসেছেন বাংলাদেশের তারকা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানও। নিজের ফেসবুকের ভেরিফাইড পেজে এমনটি নিশ্চিত করে সাকিব লেখেন, সারাদেশ আজ লড়ছে একটি মহামারিকে রুখতে। করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে অসংখ্য সুবিধাবঞ্চিত মানুষ দিন গুনছে কবে তাদের রোজগার আবার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবে।
এই মানুষগুলোর প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে ‘দ্য সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশন’ পদক্ষেপ নিয়েছে দেশ এবং সারাবিশ্বের বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংস্থা থেকে ফান্ড উত্তোলনের। এই ফান্ড ব্যবহার করা হবে করোনা ভাইরাসের কারণে প্রভাবিত সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের সাহায্য করার জন্য এবং এর ধারা অনুযায়ী ‘দ্য সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশন’-এর সর্বপ্রথম সহায়তা যাচ্ছে ‘মিশন সেইভ বাংলাদেশ’ নামক একটি উদ্যোগে।
‘মিশন সেইভ বাংলাদেশ’ করোনা ভাইরাসের প্রভাবকে মোকাবিলা করতে দ্য ডেইলি স্টার, সেবা এক্সওয়াইজেড, এবং সমকালের একটি যৌথ উদ্যোগ। এই প্রোজেক্টটির উদ্দেশ্য হলো করোনা ভাইরাসের কারণে প্রভাবিত নিম্ন আয়ের এবং সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের জীবীকার জোগান দেয়া। এ পর্যন্ত দুই হাজার সুবিধাবঞ্চিত পরিবারকে সাহায্য করেছে এই প্রকল্পটি এবং এই সংখ্যাকে বৃদ্ধি করতে নিরলস প্রচেষ্টা চলছে।
আসুন, সবাই মিলে একসঙ্গে লড়ি, একসঙ্গে বাঁচি। এই মুহূর্তে যুক্তরাষ্ট্রে স্বেচ্ছা হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন বাংলাদেশের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। নিজের পরিবার ও অন্যদের ঝুঁকিমুক্ত রাখতেই আছেন সামাজিক দূরত্বে। বিশ্বজুড়ে মহামারি করোনার আগ্রাসী আক্রমণ অব্যাহত থাকলেও বাংলাদেশে এখনো পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়নি। তবে শঙ্কা রয়েছেই। করোনার বিস্তার ঠেকাতে পুরো দেশে অঘোষিত ‘লকডাউন’ চলছে। বিদেশে বসে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিয়মিত সচেতনতামূলক বার্তা দিচ্ছিলেন সাকিব। জাতীয় দলের ২৭ জন ক্রিকেটার মিলে এক মাসের বেতনের অর্ধেক দিয়েছেন এই দুর্যোগ মোকাবিলায়। কিন্তু ক্রিকেট থেকে এক বছরের নিষেধাজ্ঞা থাকায় ক্রিকেটসংক্রান্ত সব ধরনের কর্মকাণ্ড থেকে দূরে বাংলাদেশ ক্রিকেটের এই মহাতারকা। স্বাভাবিকভাবে সতীর্থদের এই মহৎ উদ্যোগে অংশ নিতে পারেননি বিশ্বসেরা এ অলরাউন্ডার।

ডিসি

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়