মানিকগঞ্জে করোনা ভাইরাসের লক্ষণ নিয়ে নারীর মৃত্যু

আগের সংবাদ

করোনা প্রতিরোধে তহবিল গঠনের দাবি বাম জোটের

পরের সংবাদ

ফের নেতৃত্বে ফিরছেন স্মিথ!

কাগজ ডেস্ক 

প্রকাশিত হয়েছে: মার্চ ২৯, ২০২০ , ৬:৩৫ অপরাহ্ণ

২০১৮ সালে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে কেপটাউনে দ্বিতীয় টেস্টে বল টেম্পারিংয়ে জড়িয়ে পড়েন তৎকালীন অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ ও সহঅধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার। বল টেম্পারিং করেছিলেন অস্ট্রেলিয়ার তরুণ বোলার ক্যামেরুন ব্যানক্রফট। টেম্পারিংয়ে জড়িত থাকায় স্মিথ ও ওয়ার্নারকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ করে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। আর ব্যানক্রফটকে নয় মাসের নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়।

এর পাশাপাশি স্মিথের ওপর দুই বছরের জন্য অধিনায়কত্বের নিষেধজ্ঞার শাস্তি দেয়া হয়। অন্যদিকে ওয়ার্নারের ওপর আজীবন অধিনায়কত্বের নিষেধাজ্ঞা জারি করে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। গত বছরের মার্চেই নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে মাঠে ফিরে অ্যাশেজে দেখিয়েছেন নিজের সেরা ফর্মের ব্যাটিং।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ২০১৮ সালে ঘটেছিল বল টেম্পারিং কান্ড। যে কান্ড নাড়িয়ে দেয় পুরো ক্রিকেট বিশ্বকেই। আজ ২৯ মার্চ স্মিথের অধিনায়কত্ববিষয়ক দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা কেটে গেছে। শুধু স্মিথ নয়, তার সঙ্গে শাস্তি পাওয়া ডেভিড ওয়ার্নারেরও অধিনায়কত্বের নিষেধাজ্ঞা উঠে গেছে। ২০১৮ সালের ২৯ মার্চেই স্মিথ ও ওয়ার্নারকে দেয়া হয়েছিল শাস্তি।

সেই দিনের দুই বছর পর আজ থেকে পুরোপুরি মুক্ত স্মিথ ও ওয়ার্নার। তবে এখনই অস্ট্রেলিয়া দলের অধিনায়কত্ব নিয়ে ভাবছেন না স্মিথ। তিনি বরং নজর দিতে চান আসন্ন ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের আসরে। যা কিনা অনিশ্চয়তার মুখে পড়ে গেছে করোনা ভাইরাসের কারণে। স্মিথ বলেছেন, ভারতে খুব সম্ভবত ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউন করে রাখা হয়েছে। তাই এখন আইপিএল হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম বলা চলে। তবে আমার মনে হয় সামনের দিনগুলোতে এ বিষয়ে অনেক আলোচনা হবে এবং জানা যাবে চ‚ড়ান্ত সিদ্ধান্ত কী হয়।

তবে আইপিএল আয়োজকদের সিদ্ধান্ত যাই হোক, স্মিথ নিজেকে প্রস্তুত রাখছেন সামনের দিনের খেলাধুলার জন্য। তিনি বলেন, আমি চেষ্টা করছি শারীরিকভাবে ফিট এবং মানসিকভাবে সতেজ থাকতে। যদি আইপিএল হয়, তাহলে তো ভালো। যদি না হয়, তাহলেও সারা বিশ্বে অনেক কিছুই হয়। শুধু দিনের পর দিন খেলে যেতে হবে।
অজিদের অধিনায়ক হতে এখন আর আইনানুগ বাধা নেই স্মিথের। তবে এমন কিছু যে সহসাই ঘটছে তা, ভাবা যাচ্ছে না। করোনার কারণে এখন সব খেলাই বন্ধ রয়েছে। আইপিএলসহ ইংল্যান্ড ও বাংলাদেশের সঙ্গে আসন্ন সিরিজটিও সংশয়ের মধ্যে রয়েছে।

তবে এমন পরিস্থিতিতেও স্মিথ কিন্তু নিজেকে ফিট রাখার সর্বোচ্চ চেষ্টাই করছেন। চ্যানেল নাইনকে বলেছেন, মনে হচ্ছে না আইপিএল যথাসময়ে মাঠে গড়াবে। মনে হচ্ছে কয়েক দিনের মধ্যে এ নিয়ে একটা সিদ্ধান্ত হবে। যাই হোক, আমি নিজেকে শারীরিক ও মানসিকভাবে ফিট রাখতে চেষ্টা করছি। ফের স্মিথ অধিনায়কত্বের আসনে ফিরবেনই এমনটিও নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। টিম পেইন এরই মধ্যে অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে ফেলেছেন। সাদা বলের ক্রিকেটে অ্যারন ফিঞ্চও সফল। তাই নিষেধাজ্ঞা উঠে গেলেও, স্মিথের নেতৃত্বে ফেরাটা এখন চ্যালেঞ্জিং একটি বিষয়।

এসআর