স্যার, ভালো আছেন

আগের সংবাদ

হাসপাতাল থেকে বের হচ্ছেন খালেদা জিয়া

পরের সংবাদ

মহান স্বাধীনতা দিবস

সম্পাদকীয়

প্রকাশিত হয়েছে: মার্চ ২৫, ২০২০ , ৯:১৫ অপরাহ্ণ

রাষ্ট্রভাষার অধিকার লাভে বাঙালিকে প্রাণ দিতে হয় ১৯৫২ সালে। এরপর পাকিস্তানিদের ক্রমাগত শোষণ-বঞ্চনা, বৈষম্য, অধিকার হরণ বাঙালির ক্ষোভকে ক্রমেই জমাট করে। ১৯৬৬-এর ছয় দফা, ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান এসবের ধারাবাহিকতায় আসে ১৯৭০ সালের নির্বাচন। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ পূর্ব পাকিস্তানে নিরঙ্কুশ বিজয় অর্জন করে এবং সমগ্র পাকিস্তানে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। পাকিস্তানের স্বৈর-সামরিক চক্র গণতন্ত্রের রায় মেনে না নিতে শুরু করে নানান টালবাহানা, চালাতে থাকে নানান ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত। সারা বাংলার মানুষের প্রাণের দাবি শেখ মুজিবুর রহমানের ছয় দফা পরিণত হয় এক দফায়। শুরু হয় অহিংস অসহযোগ আন্দোলন। ১৯৭১-এর ৭ মার্চ জাতির চাওয়া ভাষা পায় বঙ্গবন্ধুর সেই ভাষণে, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ এরপর মুক্তিপাগল মানুষ যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার চূড়ান্ত প্রস্তুতি শুরু করে। ২৫ মার্চ ইয়াহিয়া ও ভুট্টো ঢাকা ছাড়েন। তবে ইয়াহিয়া তার সেনাদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়ে যান। ২৫ মার্চ রাতেই পাকিস্তানি সেনাবাহিনী বঙ্গবন্ধুকে গ্রেপ্তার করে পাকিস্তানে নিয়ে যায়। এ রাতেই সশস্ত্র পাকিস্তানি বাহিনী হায়েনার মতো নেমে পড়ে গণহত্যায়। ঘুমন্ত নিরস্ত্র বাঙালি হত্যার উৎসব শুরু হয় ওই রাতে। কিন্তু তার আগে বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা ঘোষণা করে যান। বঙ্গবন্ধুর ওই ঘোষণা যখন প্রচারিত হয় তখন মধ্যরাত পেরিয়ে গেছে অর্থাৎ ক্যালেন্ডারের হিসাবে তখন ২৬ মার্চ। এ কারণেই আমাদের স্বাধীনতা দিবস ২৬ মার্চ। ১৯৭১-এর ২৫ মার্চের বিভীষিকাময় রাতে পাকিস্তানি বাহিনী অস্ত্রের মুখে স্তব্ধ করে দিতে চেয়েছিল বাঙালি জাতির স্বাধীনতার আকাক্সক্ষাকে। কিন্তু না, পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে তোলে বাঙালি। দীর্ঘ ৯ মাসের সেই যুদ্ধে ৩০ লাখ মানুষ শহীদ হয়, সম্ভ্রম হারায় ২ লাখ মা-বোন। অবশেষে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর মুক্তিবাহিনী ও ভারতীয় সেনাবাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত মিত্রবাহিনীর কাছে পরাজয় মেনে নিতে বাধ্য হয় পাকিস্তানি বাহিনী। অর্জিত হয় স্বাধীনতা। কিন্তু ইতিহাসের নির্মম অধ্যায় হলো স্বাধীনতা লাভের মাত্র সাড়ে ৩ বছরের মাথায় পরাজিত গোষ্ঠী মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে শুরু করে। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক চক্রান্তে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করা হয়। জেলখানায় হত্যা করা হয় জাতীয় ৪ নেতাকে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধগুলোর মূলে শুরু হয় কুঠারাঘাত। গণতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা, বাঙালি জাতীয়তাবাদের শেকড় উপড়ে ফেলার নীলনকশার বাস্তবায়ন চলে। কয়েক দশক ধরে স্বাধীনতার ইতিহাস নানাভাবে বিকৃত করা হয়। রাজনৈতিক পটপরিবর্তনে সেই ধারা থেকে বেরিয়ে এসেছে দেশ। চেষ্টা চলছে দেশকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ফিরিয়ে নেয়ার। আশার কথা যে, আজকের তরুণরা বাংলাদেশের শিকড়ের সন্ধান করেছেন। ইতিহাসকে জেনে, ইতিহাসের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে তারাই সবার আগে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও উপযুক্ত শাস্তির দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন। বর্তমানে বাংলাদেশে একাত্তরের এদেশীয় যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চলছে। মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারীদের রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবি জোরালো হয়েছে। উগ্র সাম্প্রদায়িক রাজনীতি অবসানের মাধ্যমে নতুন সম্ভাবনার দিকে যাত্রা করার অপেক্ষায় রয়েছে বাংলাদেশ। ইতিহাসের এমন একটি মোড়ে দাঁড়িয়ে আমাদের স্বাধীনতার মর্মবাণী পুনরুচ্চারণ করতে হবে। স্বাধীনতা মানে শুধু পরাধীনতা থেকে মুক্তি নয়। স্বাধীনতা হলো স্বাধীন রাষ্ট্রে সার্বভৌম জাতি হিসেবে মাথা তুলে থাকার সব আয়োজন। যে দিন জাতি ধর্ম সম্প্রদায় নির্বিশেষে দেশের সব জনগণ প্রকৃত অর্থে গণতান্ত্রিক পরিবেশে নিজেদের নাগরিক অধিকার নিয়ে মাথা উঁচু করে বাস করতে পারবে, সে দিনই স্বাধীনতাকে পরিপূর্ণ সফল বলে মনে করা যাবে। প্রতিক্রিয়াশীলতার সব বাধাকে অতিক্রম করে আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক, সাম্যমৈত্রীর বাংলাদেশ গড়ব স্বাধীনতা দিবসে এ হোক আমাদের সংকল্প।

এসএইচ