অগ্রগতি নেই গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ে

আগের সংবাদ

মজা করলেন রোহিত

পরের সংবাদ

ফের মাশরাফির সতর্ক বার্তা

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: মার্চ ২৫, ২০২০ , ১০:০৪ পূর্বাহ্ণ

মহামারি করোনা ভাইরাস বিশ্বজুড়ে ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করেছে। এ ভাইরাসের প্রকোপ শুরু হয়েছে বাংলাদেশেও। তাই দেশের মানুষকে সচেতন করতে নিজের ফেসবুক পেজে একটি ভিডিও বার্তায় নানা পরামর্শ দিয়েছেন মাশরাফি-বিন মুর্তজা। সংকটময় এই পরিস্থিতি থেকে বাঁচতে আল্লাহকে ডাকতে এবং নামাজ পড়তে বললেন তিনি। প্রায় ৫ মিনিটের ভিডিওতে মাশরাফি বলেন, ‘আসসালামু আলাইকুম, আশা করি, সবাই ভালো আছেন। যদিও এই মুহূর্তে ভালো আছেন বলাটা ঠিক না, কেননা, সবাই এখন মানসিকভাবে বিপর্যস্ত।
পৃথিবীর বড় বড় দেশগুলোও শারীরিক ও মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। তারা কোনোভাবেই পেরে উঠতে পারছে না। এখন আমাদের করণীয় কী? আমরা যত বড় বড় দেশগুলো দেখছি, ভেঙে পড়ছে। আমাদের দেশ তো এমনিতেই ছোট, মানুষের সংখ্যা অনেক বেশি।
আমাদের যদি এমন সংকট আসে, আল্লাহ না করুক, কী হতে পারে আমরা সবাই বুঝতে পারছি। তাই এই মুহূর্তে করণীয় অনেক কিছু আছে, যেগুলো আমি মনে করি যে, আমাদের সবারই করা উচিত।
এক হচ্ছে, ঘরে বসে আল্লাহকে ডাকা, পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়া এবং আল্লাহকে বলা যে, আমাদের ওপর রহমত করুন। এই ধরনের দুর্যোগ থেকে আমাদের সহযোগিতা করুন। কারো যেন বিপদ না হয়, সবাই যেন সুস্থ থাকি।
দ্বিতীয়ত, করণীয় যেগুলো আছে আমাদের সেটা হচ্ছে অবশ্যই অবশ্যই প্রবাসী ভাই ও বোনেরা যারা বিদেশে থাকেন, এসেছেন দেশে বা বেড়াতে গিয়েছিলেন সেখানে, এসেছেন। আপনাদের অনেক কিছু করার আছে। প্রথম হচ্ছে, অবশ্যই নিয়ম-কানুনগুলো মেনে চলা। কোয়ারেন্টাইন শব্দটা ব্যবহার না করে বলব গৃহবন্দি থাকা এবং সেটা আপনার পরিবার নিয়ে না, আপনার ১৪ দিন আলাদা থাকা।
১৪ দিন পার হওয়ার পর যদি আপনি অসুস্থ না হন, তখন আপনার পরিবারকে নিয়ে ঘরে থাকা। যতক্ষণ না কোনো ঘোষণা আসছে, ডাক্তাররা বা সমাজের উচ্চপদস্থরা ঘোষণা না করছে যে, আপনারা নিরাপদ, ততক্ষণ পর্যন্ত আপনার ঘরে থাকা উচিত। এটা হচ্ছে প্রথম ব্যাপার।
এরপরে আমাদের অবশ্যই করণীয় আছে। যেটা হচ্ছে, সাবান দিয়ে হাত ধোয়া নিয়মিত, নিয়মিত ১৫-২০ মিনিট পর পর পানি পান করা এবং ঘর, পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখা। এসব ব্যাপার কিন্তু আছে। আমাদের কিন্তু এসব নিয়ম-কানুনগুলো মেনে চলতে হবে।
এর থেকে কঠিন অবস্থায় যাওয়ার পর কিন্তু মেনে চলার সুযোগ আমরা পাব না। তাই আমাদের উচিত, এখনই এই জিনিসটাকে শক্ত হাতে প্রতিহতো করা। কারণ এটা একটা রাষ্ট্রীয় সংকট হয়ে যেতে পারে এবং আমরা কেউই জানি না, আমাদের আশপাশে কার আছে। আমরা বের হচ্ছি, আমরা কার হাত ধরছি, আমরা কী করছি, আমরা কেউই জানি না যে, এই ভাইরাসটা কে নিয়ে চলছে।
কারণ এই ভাইরাসটা ১৪ দিন সময় নেবে আপনার বোঝার জন্য। তাই আমার মনে হয় যে, এটা গভীরভাবে চিন্তা করা দরকার। আমরা যে এটাকে গুরুত্ব দিচ্ছি না, এটা যদি আমাকে, আপনাকে, আমাদের পরিবারকে বা সামাজিকভাবে কাউকে আঘাত করে, তখন কিন্তু সামাল দেয়া খুব কঠিন হবে।
আগেও বলেছি ইতালির মতো দেশ, বড় বড় দেশগুলো কিন্তু হিমশিম খাচ্ছে। সুতরাং এখানে আমরা কতটুকু পারব, সেটা ভাবার সময় এসেছে। কারণ দেশটা অনেক ছোট, মানুষের সংখ্যা অনেক বেশি। তাই এখানে কিন্তু ভাবার সময় আছে। তো আমাদের যে করণীয় জিনিসগুলো আছে, আমরা করি। এটা করা খুবই প্রয়োজন।
একটা কথা মনে রাখবেন যে, আপনার ঘরের অধিনায়ক কিন্তু আপনি নিজে। আপনি যদি আপনার ঘরের অধিনায়কত্ব ঠিকমতো করতে পারেন, আমি নিশ্চিত যে, এর প্রকোপ কিছুটা হলেও কমাতে পারব। এছাড়া ধ্বংসাত্মক হওয়ার সুযোগ কিন্তু বেশি। তাই আপনাদের কাছে বিনীত অনুরোধ, আপনারা দয়া করে ঘরে থাকুন। প্লিজ, প্লিজ, প্লিজ।
আপনি নিজে সুরক্ষিত থাকুন, আপনার পরিবারকে সুরক্ষিত রাখুন, আপনার সমাজকে সুরক্ষিত রাখুন।
এটা আপনার, আমার, সবার দায়িত্ব। এই মুহূর্তে কোনোভাবেই বাইরে আসা মেনে নিতে পারি না কিংবা বিনা কারণে ঘর থেকে বের হওয়া।
আমরা অনেক সময় বলি যে, আমরা সময় পাই না, কাজের ব্যস্ততা। এ কারণে পরিবারকে সময় দেয়া হয় না। তো আপনি এখন সময় দেন। এখন আপনার কাজের ব্যস্ততা নাই। আর সবাই দূরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করুন। যতটুকু না করলেই নয়। তারপরও আমি বলব, ঘরে থাকুন, আপনার সমাজকে রক্ষা করুন। ভালো থাকুন সবাই।’

ডিসি