বিসিবির দাপ্তরিক কাজ বাসায়

আগের সংবাদ

টোকিও অলিম্পিক নিয়ে সংশয়

পরের সংবাদ

স্বেচ্ছায় গৃহবাসে তারকারা

শাহনাজ জাহান

প্রকাশিত হয়েছে: মার্চ ২২, ২০২০ , ১১:৩৩ পূর্বাহ্ণ

কলকাতায় সিনেমার শুটিং স্থগিত রেখেই দেশে ফিরেছেন জনপ্রিয় তারকা মোশাররফ করিম। ‘ডিকশনারি’ সিনেমার জন্য মার্চের প্রথমদিকে কলকাতা যান তিনি। কলকাতার বিভিন্ন লোকেশনে শুটিং শেষ করে গত সোমবার ঢাকায় ফিরেছেন। দেশে ফিরেই সব নাটকের শুটিং বাতিল করে হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন এ অভিনেতা। বৃহস্পতিবার ঢাকায় তার শুটিং করার কথা থাকলেও নিজেই সচেতন হয়ে শুটিং বাতিল করেছেন তিনি। কলকাতা থেকে ফিরে বাসায় বিশ্রাম নেয়ার কথা উল্লেখ করে মোশাররফ করিম বলেন, ‘এই মুহূর্তে শুটিংয়ে অংশ নেয়া ঠিক হবে না। তাই শুটিং বাতিল করেছি। ঘরে থাকছি। কাজ ছাড়া বের হচ্ছি না। বের হলেও মাস্ক ব্যবহার করছি। তাছাড়া বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে যেসব নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, সেগুলো মেনে চলছি।’

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফিরেই নিজ উদ্যোগে হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন অভিনেত্রী মেহের আফরোজ শাওন। ১৬ মার্চ থেকে ১৪ দিন তিনি বাসায় থাকবেন। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় একটি বইমেলায় অংশ নিতে গত ৫ মার্চ যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছান শাওন। প্রয়োজনীয় কাজ শেষে স্থানীয় সময় ১৫ মার্চ নিউইয়র্ক ছাড়েন তিনি। ১৬ মার্চ থেকে ধানমন্ডির দখিন হাওয়ার বাড়িটির একটি কক্ষে কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন তিনি। শাওন বলেন, ‘বেশ আগে প্রতিশ্রæতি দেয়া একটি বইমেলায় অংশ নিতে আমেরিকায় গিয়েছিলাম। ওয়াশিংটনে প্রকোপ থাকলেও নিউইয়র্কে করোনা প্রকাশ পায়নি তখনো। ভাইরাসটির সংক্রমণ বাড়ার পরপরই আমেরিকার বিভিন্ন স্টেটে সতর্ক বার্তা জারি হয়ে যায়। তারপর ঘর থেকে বের হইনি। এ বছর মে মাসের ৩০ ও ৩১ তারিখে নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিতব্য হুমায়ূন আহমেদ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্মেলন ২০২০-এর সংবাদ সম্মেলন বাতিল এবং মূল অনুষ্ঠানের তারিখ স্থগিত করা হয় তৎক্ষণাৎ। প্রতি মুহূর্তের খবর দেখছিলাম আর ভাবছিলাম বাচ্চাদের কাছে ফিরতে পারব তো?’ দেশে ফিরে স্বেচ্ছায় এই হোম কোয়ারেন্টাইনের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমার কাছে মনে হয়েছে, কেউ না কেউ তাদের শরীরে করোনা ভাইরাস বহন করতে পারে। আমার কাছে মনে হয়েছে, দেশে আসার সময় বিমানবন্দরে লাগেজের যে ট্রলিটা আমি স্পর্শ করেছি, বিমানের যে আসনে বসেছি, তা আমার আগে কেউ না না কেউ ব্যবহার করেছেন। দেশে আসার আগেই সিদ্ধান্ত নিয়েছি, হোম কোয়ারেন্টাইনে যাব। আমার বাবা-মা এবং সন্তানদের তা জানিয়েও দিয়েছি। আমার কিন্তু জ্বর, ঠাণ্ডা, কাশি কিছুই নেই। আশা করছি কিছুই হয়নি। তারপরও বাইরে থেকে যেহেতু এসেছি, দুবাই, ইতালি এবং ইরানের ফ্লাইটও ছিল। সেখানে যে কেউ করোনা ভাইরাস বহন করেনি, তা তো নিশ্চিত না। তাই নিজের নিরাপত্তা নিজেই নিচ্ছি। কারো মাধ্যমে যদি আমি করোনা বহন করেও থাকি, তাহলে আমার দ্বারা যেন কেউ সংক্রমিত না হয়।’

এছাড়া বাসায় অবস্থান করছেন দেশের বিনোদন জগতের অনেক তারকা। তাদের মধ্যে মডেল ও অভিনেত্রী সাবিলা নূর জানান, ‘বাইরে গেলে অনেকেই ছবি তুলতে কাছে আসছেন। এটা তো নিরাপদ না। তাদের বললেও শুনতে চায় না। তাই নিজে থেকেই করোনা নিয়ে আমরা সতর্ক থাকতে চাই। সেই জায়গা থেকে অনেককে নিষেধ করছি কাছে এসে ছবি না তুলতে। বলেছি, না না, এখন ছবি উঠাতে পারব না, সরি ভাই। সবার বোঝা দরকার, এখন করোনা-আতঙ্ক সব জায়গায়।’ সংগীতশিল্পী ও অভিনেতা তাহসান বলেন, ‘এই পরিস্থিতি বিবেচনা করে সবারই কিছুদিন ঘর থেকে বাইরে বের না হওয়া উচিত। উন্নত দেশগুলো ভাইরাসটি নিয়ন্ত্রণ করতে হিমশিম খাচ্ছে। আমাদের ছোট দেশ, জনসংখ্যা ঘনত্ব খুবই বেশি। আমরা যদি সতর্ক না থাকি তাহলে এই ভাইরাস ছড়াতে বেশি সময় লাগবে না। সামনে হয়তো কোনো দুর্যোগ আসতে পারে, সে জন্য আগে থেকে সতর্ক থাকা ভালো। এই মুহূর্তে সবাই একসঙ্গে বাইরে বের হলে পরিস্থিতি আরো খারাপের দিকে যাবে। কাজ ছাড়া যতটা সম্ভব বাইরে বের না হওয়াই ভালো। যদিও অনেকের প্রয়োজনীয় কাজ থাকে, সবাই বাইরে বের হওয়া থেকে বিরত থাকতে পারবে না। তবুও চেষ্টা করতে হবে।’ এছাড়া দেশ-বিদেশের শোবিজ তারকারা সোশ্যাল মিডিয়ায় করোনা নিয়ে নানা রকম সচেতনতামূলক পোস্ট দিচ্ছেন।

নকি