ভালো অভিনয়ের ক্ষুধা নিয়ে কাজ করি

আগের সংবাদ

স্বেচ্ছায় গৃহবাসে তারকারা

পরের সংবাদ

বিসিবির দাপ্তরিক কাজ বাসায়

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: মার্চ ২২, ২০২০ , ১১:১০ পূর্বাহ্ণ

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণরোধে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) দাপ্তরিক কাজের ধরনেও পরিবর্তন আনা হয়েছে। বন্ধ হয়ে গেল বিসিবি অফিস, বাড়িতে বসে কাজ করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে লাল-সবুজের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ এই সংস্থার কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের। যা আজ থেকে কার্যকর হবে।

২১ মার্চ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিসিবি এ নতুন ঘোষণা দিয়েছে এবং পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত যা বলবৎ থাকবে।বিসিবির বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী জরুরি প্রয়োজনে কিংবা যেসব কাজ অফিস ছাড়া করা সম্ভব নয় কেবল সেক্ষেত্রেই অফিসে আসার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। বাসা থেকে কাজ করার নির্দেশনা দিলেও এই সময় যেকোনো ধরনের ছুটিছাটা নিরুৎসাহিত করা হয়েছে বিসিবির কর্মীদের। গতকাল মিরপুরে বিসিবি কার্যালয়ে করোনা সতর্কতামূলক সেমিনারে উপস্থিত হন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরোলজি বিভাগের এসোসিয়েট প্রফেসর চন্দন কুমার রায়।

মূল আলোচক হিসেবে সেমিনারে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার চন্দন কুমার বলেন, সবাই ঘরেই থাকবেন। খুব প্রয়োজন না হলে বের হবেন না। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে। যেখানে সেখানে থুথু ফেলা যাবে না। সেমিনার শেষে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন জানান, করোনার সংক্রমণ থেকে দূরে থাকতে তারা বোর্ডের দাপ্তরিক কার্যক্রম কমিয়ে আনছেন, ‘প্রতিটি বিভাগের ব্যবস্থাপকদের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে। (কর্মকর্তা-কর্মচারী) সবাইকে বোর্ডের একটা নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। পরিচালনাসংক্রান্ত যে কাজগুলো থাকবে, সেগুলো যতটুকু সম্ভব কমিয়ে আনার চেষ্টা করব আমরা। জরুরি-গুরুত্বপূর্ণ কাজ ছাড়া যেন অফিসে উপস্থিত না হতে হয়।’

বিসিবির সিদ্ধান্তটা আজ থেকেই কার্যকর হবে। বিসিবি যেহেতু আইসিসি ও এসিসির সদস্য, দুই আন্তর্জাতিক সংস্থার সঙ্গেও যেন কোনো যোগাযোগ বিভ্রাট না হয় সেটিতেও সতর্ক থাকছে বিসিবি, ‘আমরা চেষ্টা করব দূর থেকেই তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করতে। আমাদের কারও যদি অফিসে এসে কাজ করতে হয় সে ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা থাকবে। এভাবেই আপাতত আমরা অফিসে চালিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করছি।’

করোনা ভাইরাস বৈশ্বিক মহামারিতে রূপ নেয়ায় ইতোমধ্যে ভারত, অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট বোর্ডসহ বেশ কয়েকটি দেশের বোর্ডের কর্মকর্তাদের বাসা থেকে অফিস করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। উদ্ভুত পরিস্থিতির কারণে কয়েকদিন আগেই বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা, ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড এবং ক্রিকেট এসোসিয়েশন অব বেঙ্গলের অফিস। এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশে দুজনের মৃত্যুর পাশাপাশি নতুন করে চারজনসহ মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৪ জনে। গোটা বিশ্বে মহামারি হয়ে ওঠা এই কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসের প্রভাবে থেমে গেছে সব ধরনের ক্রীড়া আসর।

ভারত, শ্রীলঙ্কা, ইংল্যান্ডসহ সব টেস্ট খেলুড়ে দেশের মতো গত ১৯ মার্চ বাংলাদেশেও স্থগিত করা হয়েছে সব ধরনের প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেট। এই নিয়ে বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপন বলেন, সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্রিকেট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা। কবে নাগাদ ক্রিকেট ফেরার সম্ভাবনা আছে এমন প্রশ্নে বোর্ড সভাপতি বলেন, আমার মনে হয় না ১৫ এপ্রিলের আগে ক্রিকেট মাঠে ফেরার সম্ভাবনা আছে।

এমতাবস্থায় বিসিবি কার্যালয়ের ব্যাপারে কী সিদ্ধান্ত সে প্রসঙ্গে পাপন জানিয়েছিলেন, প্রতিদিন পরিস্থিতি বদলাচ্ছে। এখন একটা বলব, পরে আরেকটা, তা তো হয় না। জরুরি ছাড়া খেলোয়াড় এবং বোর্ডে যারা আছে তাদের বাসা থেকে না বের হবার কথা বলা হয়েছে। সে ধারাবাহিকতায় গতকাল দুপুরে বিসিবি অফিস বন্ধ করা হয়।

এসআর