করোনায় ফ্রিল্যান্সারদের স্বাস্থ্য সচেতনতা

আগের সংবাদ

জনসমাগম নিষেধাজ্ঞা, ‍উপেক্ষা ইসির

পরের সংবাদ

করোনা ঝুঁকি নিয়েই তিন আসনে উপনির্বাচন কাল

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: মার্চ ২০, ২০২০ , ৭:৩২ অপরাহ্ণ

করোনাভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কায় বাংলাদেশসহ বিশ্বব্যাপী প্রকোপ ছড়িয়ে পড়ছে। এই পরিস্থিতির মধ্যেও আগামীকাল শনিবার (২১ মার্চ) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ঢাকা-১০, গাইবান্ধা-৩ ও বাগেরগাট-৪ আসনের উপনির্বাচন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যেখানে ১০ জনের বেশি লোকের সমাগম নিষিদ্ধ করেছে সেখানে নির্বাচন কমিশন কোন বাধা মানছেন না। তবে ভোটারদের করোনা থেকে সুরক্ষায় পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রাখার কথা বলছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

শুক্রবার (২০ মার্চ) চট্টগ্রামে প্রথম দিনেই তিন হাজার কর্মকর্তার জমায়েত করেছে নির্বাচন কমিশন। করোনাভাইরাস থেকে রক্ষায় সরকার নির্দেশিত নিয়ম ভঙ্গ করে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে এই প্রশিক্ষণ কার্যক্রমে অংশ নিচ্ছেন প্রিজাইডিং, সহকারী প্রিজাইডিং ও পোলিং অফিসাররা। দেশের এই সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে নির্বাচন কমিশনের এই কাণ্ডজ্ঞানহীন পদক্ষেপে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভোটগ্রহণ কর্মকর্তার দায়িত্ব পাওয়া শিক্ষক, ব্যাংকারসহ সরকারি বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তারা।

ঢাকা-১০ আসনের উপনির্বাচন হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (এভিএম)। শুক্রবার (২০ মার্চ) রাজধানীর টিচার্স ট্রেনিং কলেজ থেকে এই আসনের ভোটকেন্দ্র ভিত্তিক মালামাল বিতরণ করা হয়। সেখানে দেখা যায়, প্রতিটি ভোট কক্ষের জন্য সরবরাহ করা হচ্ছে– ছবিসহ ভোটার তালিকা, স্ট্যাম্প প্যাড, পিতলের সিলমোহর, বল পয়েন্ট কলম, সুচ, মোমবাতি, টিস্যু, অমোচনীয় কালির কলম, গালা, হেসিয়ান ব্যাগ, সাদা কাগজ, ছুরি, সুতা, গামপট, দিয়াশলাই বক্স, স্ক্রু ড্রাইভার, ভ্যাসলিন, ছোট মখমলের কাপড়, করোনা প্রটেকশন টিস্যু ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার। এরমধ্যে ভোটারদের করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষার জন্য রয়েছে, করোনা প্রটেকশন টিস্যু, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও একটি সচেতনতামূলক ব্যানার। আর ভ্যাসলিন ও ছোট মখমলের কাপড় দেওয়া হয়েছে ইভিএম মেশিনে যেসব ভোটারের আঙুলের ছাপ মিলবে না তাদের আঙুলে মখমলের কাপড় দিয়ে মোছানোর ও ভ্যাসলিন দেওয়ার জন্য।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যাংক কর্মকর্তা বলেন, ভোট নিয়ে সাধারণ মানুষের কোনও মাথাব্যথা নেই। এরমধ্যে আবার করোনা ঝুঁকি নিয়ে কেন মানুষ ভোট দিতে যাবে। আসলে ভোটারের ভোট নিয়ে নির্বাচন কমিশনের কোনও চিন্তা আছে বলে মনে হয় না। যদি থাকতো তাহলে কীভাবে এই পরিস্থিতির মধ্যে তারা ভোটের দিন নির্ধারণ করে।

এসএইচ