পথচারীকে বাঁচাতে গিয়ে বাস খাদে, নিহত তিন

আগের সংবাদ

পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত সর্দার নিহত

পরের সংবাদ

বইমেলার পর্দা নামছে আজ

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ২৯, ২০২০ , ১০:৪০ পূর্বাহ্ণ আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২৯, ২০২০ , ১০:৪০ পূর্বাহ্ণ

মাসব্যাপী অমর একুশে গ্রন্থমেলার প্রাণের উচ্ছ্বাস যেন শেষ মুহূর্তে এসে ঝলসে উঠল। একদিকে বিদায়ের সুর, অন্যদিকে স্টলে স্টলে উপচে পড়া ভিড়। শুধু কী ভিড়, সব বইপ্রেমী ক্রেতা হয়ে হামলে পড়ে স্টলগুলোতে। একে তো ছুটির দিন, তার ওপর শেষ মুহূর্ত। যার যা কেনার ছিল, পছন্দের ছিল সব বই-ই যেন কিনতে হবে। আর ঘোরাফেরা নয়। আর আড্ডাবাজি নয়। এখন শুধুই পছন্দের শেষ বইটা হাতে তুলে নিয়ে ঘরে ফেরা। প্রাণের এই মেলার পর্দা নামছে আজ।

শুক্রবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) মেলার ২৭তম দিনে শিশুপ্রহর থাকায় সকাল থেকেই ঢল নামে শিশু-কিশোরসহ সব বয়সীদের। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের শিশুচত্বরে হালুম, ইকরি আর শিকুদের দেখার পাশাপাশি স্টলে স্টলে শিশু-কিশোররা পছন্দের বই কিনতে ভুল করেনি। সকাল থেকেই প্রিয় লেখকদের বই সংগ্রহ করতে মেলায় আসা শুরু করেন বড়রাও। দুপুর গড়াতেই লোকেলোকারণ্য হয়ে যায় গোটা মেলাচত্বর। বিকাল নাগাদ মেলায় যেন চলাচল করাই দায় হয়ে পড়ে। মেলার বিশাল পরিসরও যেন ছোট হয়ে পড়ে। হাঁটাচলাও কষ্টকর হয়ে দাঁড়ায়। ক্রেতাদের ভিড় সামলাতে গিয়ে বিক্রয় কর্মীদের দম ফেলার কোনো ফুরসতই ছিল না।

মূল মঞ্চের আয়োজন : বিকালে আবুল কাসেম রচিত ‘বঙ্গবন্ধুর অর্থনৈতিক উন্নয়নদর্শন : জাতীয়করণনীতি ও প্রথম পঞ্চমবার্ষিকী পরিকল্পনা’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ পাঠ করেন অসীম সাহা। আলোচনায় অংশ নেন কাজী রোজী, এম এম আকাশ এবং নাসিমা আনিস। লেখকের বক্তব্য দেন আবুল কাসেম। সভাপতিত্ব করেন আতিউর রহমান।

প্রাবন্ধিক বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন আপাদমস্তক একজন রাজনৈতিক নেতা। কী রাজনীতি, কী অর্থনীতি, কী বিশ্বব্যবস্থা- সর্বক্ষেত্রেই তার বিস্ময়কর দক্ষতা আমাদের বিস্মিত না করে পারে না। আলোচকরা বলেন, নিম্নবৃত্ত ও মধ্যবিত্তের সমাজ ব্যবস্থায় আর্থিক স্বাচ্ছন্দ্য আনয়নই ছিল বঙ্গবন্ধুর অর্থনৈতিক উন্নয়নদর্শনের মূলনীতি। বঙ্গবন্ধু গভীরভাবে বিশ্বাস করতেন দেশে কৃষি ও শিল্পবিপ্লব ঘটিয়ে দেশকে অর্থনৈতিকভাবে সাবলম্বী ও খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করে তোলা সম্ভব। লেখক বলছি অনুষ্ঠানে নিজেদের নতুন বই নিয়ে আলোচনা করেন কামরুল হাসান, জাহীদ রেজা নূর, অদিতি ফাল্গুনী এবং মাসুদ পথিক।

বাংলা একাডেমির দেয়া তথ্য অনুযায়ী, শুক্রবার মেলায় নতুন বই আসে ৩৪১টি। এর মধ্যে বাংলা একাডেমি প্রকাশ করেছে আবুল কাসেম রচিত বঙ্গবন্ধু বিষয়ক বই ‘বঙ্গবন্ধুর অর্থনৈতিক উন্নয়ন দর্শন জাতীয়করণনীতি এবং প্রথম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা’, ভাষাচিত্র প্রকাশ করেছে মাসুদ সেজানের কবিতার বই ‘দাঁড়াও সভ্যতা’, দ্যু প্রকাশন এনেছে মনি হায়দারের উপন্যাস ‘চলুন, মানুষের কারখানায়’, পুথিলিয়ন এনেছে বিপ্রদাশ বড়–য়ার শিশুতোষ বই ‘জাদুর বাঁশি’, হরিৎপত্র এনেছে সেলিনা হোসেনের গল্পগ্রন্থ ‘খোল করতাল’, চন্দ্রবিন্দু এনেছে মাহবুব ময়ূখ রিশাদের উপন্যাস ‘আরিমাতানো’, একই প্রকাশনা থেকে এসেছে হরিশংকর জলদাসের গল্পগ্রন্থ ‘আহব ইদানিং’, ক্রিয়েটিভ ঢাকা প্রকাশ করেছে তানভীর মোকাম্মেলের ‘নদীর নাম মধুমতি’, ভাষাচিত্র থেকে প্রকাশ হয়েছে কমল কর্নেলের দুটি উপন্যাস ‘স্বপ্ন ছোঁয়া ভালোবাসা’ ও ‘স্বপ্নের মায়াজাল’।

এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়