চলতি মাসে ঘাটতি বাড়বে শত শত কোটি টাকা

আগের সংবাদ

ওসিসহ ৭ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

পরের সংবাদ

গ্রামীণফোনের ১০০ কোটি টাকা নেয়নি বিটিআরসি

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০ , ৯:৫৯ পূর্বাহ্ণ

মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোনের ১০০ কোটি টাকা জমা নেয়নি টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসি। প্রায় সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকা বকেয়া সংক্রান্ত বিরোধের মধ্যে গতকাল বুধবার গ্রামীণফোনের পক্ষ থেকে একটি পে-অর্ডার নিয়ে যাওয়া হয় বিটিআরসিতে। তবে আদালতের সিদ্ধান্ত ছাড়া সেটি নিতে অস্বীকৃতি জানায় বিটিআরসি।

এ নিয়ে গতকাল বিকালে রাজধানীর একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলন করে গ্রামীণফোন। এ সময় প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক ও হেড অব রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স হোসেন সাদাত বলেন, আমরা টাকা নিয়ে গেলে বিটিআরসি তা নিতে অপারগতা জানায়। তারা বলেছে, এখনকার পরিস্থিতিতে তারা টাকা নিতে পারে না।

তিনি জানান, আমরা আলোচনা আবার এগিয়ে নিতে ১০০ কোটি টাকা নিয়ে গিয়েছিলাম। যেহেতু নিরীক্ষার বিষয়টি আদালতে সুরাহা হতে অনেক সময় লাগবে। আমরা চাই, আলোচনার মাধ্যমে দ্রুত সমাধান হোক। এর আগে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের নেতৃত্বে একটি বৈঠকে আলোচনা শুরুর জন্য ২০০ কোটি টাকা জমা দেয়ার কথা বলা হয়েছিল। সে অনুযায়ীই তারা প্রথম পর্যায়ের পে-অর্ডার নিয়ে যান।

এদিকে বিটিআরসির জ্যেষ্ঠ সহকারী পরিচালক (গণমাধ্যম) মো. জাকির হোসেন খান এ বিষয়ে জানান, যেহেতু গ্রামীণফোনের নিরীক্ষা সংশ্লিষ্ট বিষয়টি নিয়ে আদালতের একটি নির্দেশনা রয়েছে, সে ক্ষেত্রে বিটিআরসি ওই নির্দেশনার বাইরে কোনো পদক্ষেপ নিতে পারে না।

তবে এই ১০০ কোটি টাকা আদালতের প্রক্রিয়ার বাইরে বলে উল্লেখ করেন গ্রামীণফোন ওই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, আদালতের দুই হাজার কোটি টাকা আর এই ১০০ কোটি টাকার বিষয়টি পুরোপুরি ভিন্ন। একটির সঙ্গে অন্যটি মেলানো যাবে না। আদালত তাদের যে দুই হাজার কোটি টাকা জমা দিতে বলেছে, সেটা সরঞ্জাম আমদানি ও প্যাকেজের নিষেধাজ্ঞা কাটাতে। সে বিষয়ে তারা রিভিউ আবেদন করেছেন। সেখানে এ বিষয়ে আদালতের রায়ের পর তারা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন।

প্রসঙ্গত, নিরীক্ষা দাবি হিসেবে ১২ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা পাওনা আদায়ের জন্য গ্রামীণফোনের সরঞ্জাম আমদানি ও প্যাকেজ অনুমোদনে অনাপত্তিপত্র দেয়া বন্ধ রেখেছে বিটিআরসি। এ নিয়ে গ্রামীণফোন আদালতে যায়। গত ২৪ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্ট গ্রামীণফোনকে নিষেধাজ্ঞা কাটাতে দুই হাজার কোটি টাকা জমা দেয়ার নির্দেশ দেন। এ জন্য তিন মাস সময় পেয়েছিল গ্রামীণফোন, যা ২৩ ফেব্রুয়ারি শেষ হওয়ার কথা।

ডিসি