শ্রদ্ধাভাজন আপনজন

আগের সংবাদ

ফাগুন রঙের ছোঁয়ায় বইমেলা

পরের সংবাদ

সৈয়দ আনোয়ার হোসেন

বাঙালির প্রতিবাদের প্রতীক বইমেলা

প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২০ , ৮:০২ অপরাহ্ণ আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২০ , ৮:০২ অপরাহ্ণ

বইমেলা বাঙালি সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে উঠেছে। বাঙালির সাহস, ভালোবাসা এবং প্রতিবাদেরও প্রতীক এই বইমেলা। বইমেলার সঙ্গে জড়িয়ে আছে ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি। ভাষা শহিদদের স্মৃতি। এর সঙ্গে মিশে আছে বাঙালির চেতনা, মাতৃভাষার জন্য আবেগ-ভালোবাসা। বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুযারি) ভোরের কাগজের এক প্রশ্নের জবাবে ইতিহাসবিদ প্রফেসর সৈয়দ আনোয়ার এভাবেই প্রতিক্রিয়া জানান।

মাতৃভাষার মর্যাদা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের মাতৃভাষা বাংলা। মধুর সেই ভাষার মর্যাদা দিতে চাইছিল না পাকিস্তানিরা। লড়াই করে আমরা আমাদের মাতৃভাষাকে রক্ষা করেছি। কিন্তু শহীদের রক্তের বিনিময়ে পাওয়া ভাষার মর্যাদা আমরা ধরে রাখতে পারিনি। মানসম্মত বাংলার অভাব বাংলা ভাষাকে নানাভাবে সঙ্কটাপন্ন করেছে।

তিনি আরো বলেন, সর্বস্তরে বাংলা ভাষার পরিচর্যার বিষয়টি অনেকটাই উপেক্ষিত। সরকারি ভাষায় বাংলা বিকৃত, বুদ্ধিজীবীদের ব্যবহারে বাংলা ভাষা অনেকটাই প্রমিত নয়। যার ফলে একটা নৈরাজ্য তৈরি হয়েছে।

উচ্চশিক্ষায় বাংলা ব্যবহারে নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতার কথা উল্লেখ করে এই ইতিহাসবিদ আরো বলেন, উচ্চশিক্ষায় বাংলা ব্যবহারে নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। প্রতিবন্ধকতা হচ্ছে- মানসম্মত বাংলা পাঠ্যপুস্তক নেই। বাংলায় যে সমস্ত পাঠ্যপুস্তক বেরিয়েছে সেগুলো মানসম্মত নয়। অনেক ক্ষেত্রেই গুণ-মানহীন লেখকেরাই এসব লেখা লিখেছেন। কিন্তু ব্যবসায়ী প্রকাশকেরা সেই বইগুলো বাজারজাত করেন।

এসআর

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়