বিশেষ ছাড়ের ছড়াছড়ি বাণিজ্যমেলায়

আগের সংবাদ

জরিমানার ২৫ শতাংশ গ্রাহদের দেয়ার দাবি

পরের সংবাদ

অঙ্গীকার অনুযায়ী কাজে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ

প্রকাশিত: জানুয়ারি ২৯, ২০২০ , ২:১৯ অপরাহ্ণ আপডেট: জানুয়ারি ২৯, ২০২০ , ২:২১ অপরাহ্ণ

রাজনৈতিক অঙ্গীকার ও কমিটমেন্ট অনুযায়ী কাজ করার কারণেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার (২৯ জানুয়ারি) সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ফোরামের (বিডিএফ) দু’দিনব্যাপী সেমিনারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, শুধু শহর নয় বাংলাদেশের তৃণমূল পর্যায়ের মানুষের জন্য বর্তমান সরকার কাজ করছে। তাদের ভাগ্যের যাতে পরিবর্তন হয়, তারা যাতে সুন্দরভাবে জীবনযাপন করতে পারে, এ জন্য বর্তমান সরকার নানাবিধ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। আমার বাড়ি আমার খামারের মাধ্যমে অনেকেই স্বাবলম্বী হচ্ছেন। লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং ট্রেনিং করে কম্পিউটারের মাধ্যমে আজ প্রত্যন্ত অঞ্চলের যুবকরা ঘরে বসে ভালো পয়সা ইনকাম করছে। আর দরিদ্রদের ছেলেমেয়েরা যাতে স্কুলগামী হয়, সেজন্য তাদের বৃত্তি প্রদান করছি। বর্তমানে দুই কোটি তিন লাখ ছাত্র-ছাত্রীকে আমরা বৃত্তি দিচ্ছি। সে টাকা ছাত্র-ছাত্রীরা মায়েদের মোবাইল ফোনে চলে যাচ্ছে। আমার বাড়ি আমার খামারের মাধ্যমে আমরা মাইক্রো সেভিংস প্রকল্প চালু করেছি। কেউ ১০০ টাকা জমাতে পারলে সরকার তাকে আরও ১০০ টাকা দিচ্ছে। দারিদ্র্যের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য আমরা এসব প্রকল্প গ্রহণ করেছি।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্ন দেখে ছিলেন তা পূরণ করতে পারেননি। আমরা সে স্বপ্ন পূরণ করছি। বাংলাদেশের গ্রাম পর্যায়ে দরিদ্র অবহেলিত মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করছি। তাদের স্বাবলম্বী হওয়ার সুযোগ করে দেয়ার ফলেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, আমরা কর্মসংস্থান ব্যাংক করেছি। যে ব্যাংকের মাধ্যমে বিনা জামানতে দুই লাখ টাকা লোন নিয়ে একজন বেকার যুবক ব্যবসা-বাণিজ্য করতে পারে। বাংলাদেশের যে অগ্রযাত্রা আমরা শুরু করেছি, এ অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে। ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার পর আমরা বিদ্যুতের উৎপাদন পেয়েছিলাম ১৬০০ মেগাওয়াট। আজ আমরা ২২ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করছি। ৯৫ ভাগ মানুষ বিদ্যুতের আওতায় এসেছে। আমাদের জিডিপি এখন ৮ দশমিক ৫ ভাগ এবং মূল্যস্ফীতি আমরা পাঁচ ভাগে নামিয়ে রাখতে পেরেছি। এর সুফল বাংলাদেশের মানুষ পাচ্ছে। আমাদের অর্জিত সাফল্য ধরে রেখে আমরা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে চাই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে একটি উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়তে চাই। আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যেন একটি উন্নত দেশ পায়, তারা যেন মাথা উঁচু করে বাংলাদেশের পরিচয় দিতে পারে, সেভাবে আমরা বাংলাদেশকে গড়ে তুলছি। এ জন্য আমরা ২১০০ সাল পর্যন্ত ডেল্টাপ্ল্যান গ্রহণ করেছি। অদম্য বাংলাদেশ এখন থেকে প্রতিনিয়ত এগিয়ে যাবে। এই এগিয়ে যাওয়ার গতি আর কেউ থামাতে পারবে না।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছার সঙ্গে সঙ্গে ‘ধনধান্যে পুষ্পে ভরা আমাদের এই বসুন্ধরা’ গান এবং নৃত্যের মধ্য দিয়ে প্রধান অতিথিকে স্বাগত জানানো হয়। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মনোয়ার আহমেদ। এ ছাড়া এশিয়া উন্নয়ন ব্যাংক, বিশ্বব্যাংক ও জাইকার প্রতিনিধিসহ বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার প্রতিনিধিরা বক্তব্য দেন।

এমএইচ

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়