বিনা সুদে কৃষকদের ঋণসুবিধা দেব

আগের সংবাদ

আখেরি মোনাজাতে শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমা

পরের সংবাদ

বাণিজ্যমেলায় নারীদের ভিড় কসমেটিক-গয়নার স্টলে

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: জানুয়ারি ১৯, ২০২০ , ১:০২ অপরাহ্ণ

সাধারণ সাপ্তাহিক ছুটির দিনে মেলায় ক্রেতা-দশনার্থীর ভিড় থাকে। তরুণ-তরুণী থেকে শুরু করে আবাল-বৃদ্ধ সবাই একবার ঘুরে আসতে চান ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলায়। বাণিজ্যমেলায় বরাবরের মতো ক্রেতা সমাগম থাকে বিদেশি স্টলগুলোতে। বিদেশি কাপড়, কসমেটিকস, গৃহস্থালি সামগ্রী, মসলা, ইমিটেশনের গয়না কিনতে আসেন ক্রেতারা।

মেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখা গেছে, বাণিজ্যে মেলার প্রাধান গেট থেকে সামনে এগোতে চোখে পড়বে ইরানি প্যাভিলিয়ন। এখানে ইরানি বাহারি অলংকার আর বৈচিত্র্যময় ইরানি স্টোন সমাহার। এখানে নারী ক্রেতাদের সংখ্যা বেশি। এসব ইরানি স্টলে দেখা মেলে হরেক রকম স্টোনের গয়না। ক্রেতারা আসছেন দাম জানছেন। অনেকে শাড়ি কিংবা পছন্দের ড্রেসের সঙ্গে মিলিয়ে স্টোন কিনছেন।

স্টল মালিক জানান, এখানে হরেক রকম পাথর, মুক্তা, স্টোন বিক্রি করছি আমরা। চাইলে পাথর নিয়ে গয়না বানাতে পারেন। আবার অনেকে পাথর আগে পছন্দ করে। পরে চাইলে ওই পাথর কিংবা স্টোনের তৈরি আংটি আমাদের থেকে নিচ্ছে। স্টোন ও গয়নার দাম প্রসঙ্গে বলেন, এখানে ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে ১৫০০ টাকায় স্টোন পাওয়া যাচ্ছে। এ ছাড়া গয়নাও একই মূল্যে পাওয়া যাচ্ছে। তবে এবার ক্রেতা সমাগম কম। গতবারের থেকে বেচাবিক্রিও কম। এ বছর যেমনটা ভেবেছিলাম হয়নি।

মেলা প্রাঙ্গণে কথা হয় মহাখালী থেকে সপরিবারে মেলায় আসা আম্বিয়া বেগমের সঙ্গে। তিনি ভোরের কাগজকে বলেন, মেলায় অনেক ধরনের গয়না ও কসমেটিক সামগ্রী একসঙ্গে পাওয়া যায়। এতে মেলাও ঘুরে দেখা হয়। সেই সঙ্গে কেনাকাটাও হয়। সবচেয়ে বড় কথা এখানে পার্ল ও স্টোনের অনেক কালেকশন আছে। আমি স্টোনের কিছু গয়না নেব। শাড়ির সঙ্গে পরার জন্য।

মেলায় কসমেটি সামগ্রীর স্টল গোল্ডেন রোজে মধ্যবয়সী নারীদের ভিড় দেখা যায়। পছন্দের কসমেটিক কেনার জন্য মূলত তারা মেলায় এসেছেন। এই স্টলেই কথা হয় কসমেটিক কিনতে আসা বনানীর বাসিন্দা আসমাউল হুসনার সঙ্গে। তিনি ভোরের কাগজকে বলেন, কসমেটিক কেনার জন্য আলাদা করে সময় বের করা খুবই কষ্টকর তাই মেলায় কসমেটিক দেখতে এসেছি। পছন্দ হলে কিনে নেব। মেলায় থাই প্যাভিলিয়নে গয়নার দোকানগুলোতে নারীদের ভিড় অন্যান্য স্টলের তুলনায় বেশি।

ক্রেতারা জানান, এখান থেকে পছন্দের রংয়ের স্টোন কিনে পরে এটা দিয়ে নথ, আংটি কিংবা কানের দুল তৈরি করেন। অনেক সময় ম্যাচিং স্টোন সেট কিনেন। স্টোন সেটগুলো সাশ্রয়ী বেশি। এ ছাড়া এসব স্টোনগুলো দেশীয় বাজারে পাওয়ায় গেলেও দাম অনেক বেশি বলে জানান তারা। বিক্রেতারা জানান, ইরানি স্টোনগুলোতে নারীদের ঝোঁক বেশি থাকে। দামে কিছুটা সাশ্রয়ী আর রংয়ের ভিন্নতা থাকায় এগুলো বেশি বিক্রি হয়। কালো, নীল, লাল স্টোনের চাহিদা বেশি।

এমএইচ