দাদার কাঁধে চড়ে বাড়ি ফেরা হলো না শিশু আদনানের

আগের সংবাদ

আলো ছড়াচ্ছে মুক্তিযোদ্ধা ধন মিয়ার কলেজ

পরের সংবাদ

অসহায় বৃদ্ধার পাশে দাঁড়ালেন পুলিশ সুপার

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

প্রকাশিত হয়েছে: জানুয়ারি ১৭, ২০২০ , ৫:৪৯ অপরাহ্ণ

কুড়িগ্রাম জেলার ভুরুঙ্গামারী উপজেলায় তিন মাসের বয়স্ক ভাতার ১৫শ’ টাকা তুলে ব্যাংক থেকে বের হতেই ছিনতাইকারীর কবলে পরে বৃদ্ধা মমিরণ বেওয়া। হতদরিদ্র বিধবা টাকা হারিয়ে উদভ্রান্তের বিরাহীন কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এদিকে অসহায় বিধবার আহাজারি ফেসবুকে ভাইরাল হয়৷ মাঠে নামে পুলিশ। কিন্তু ছিনতাইকারীকে সনাক্ত করতে না পারলেও তার পাশে দাঁড়ালেন কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান।

বৃহস্পতিবার (১৬জানুয়ারি) সকালে ভূরুঙ্গামারী থানার অফিসার ইনচার্জ ইমতিয়াজ কবির পুলিশ সুপারের পক্ষে বৃদ্ধা মমিরণ বেওয়ার হাতে নগদ ৫ হাজার টাকা তুলে দেন। বৃদ্ধার পারিবারিক সূত্র জানায়, গত বুধবার(১৫জানুয়ারি) দুপুরে ভূরুঙ্গামারী উপজেলা সমাজসেবা অফিস থেকে বৃদ্ধা মমিরণ বেওয়া তিন মাসের বয়স্কভাতা ১৫শ’ টাকা উত্তোলন করেন।

ঐ সসময় এক যুবক টাকা গুণে দেয়ার কথা বলে পুরো টাকা নিয়ে মর্হতে সরে পরে। এ ঘটনার পর অফিসের বারান্দায় বসে কনকনে ঠান্ডায় মমিরণ বেওয়া বিরামহীন কান্নাকাঠি করতে থাকেন। তার ঐ কান্নার ছবি বিভিন্ন গণমাধ্যসহ সামাজি যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়। এ ঘটনাটি জানতে পেরে তার পাশে দাঁড়ালেন কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান।

মমিরণ বেওয়া’র বাড়ি ভূরুঙ্গামারী উপজেলার আন্ধারীরঝাড় ইউনিয়নের চরবারুইটারী গ্রামে। তিনি মৃত: ওমর আলীর স্ত্রী। পরিচয়পত্রের তথ্য অনুযায়ী তার জন্মসাল ১৯৩৭। বর্তমানে হতদরিদ্র বৃদ্ধার স্বামী মারা যাওয়ার পর তিন ছেলের সাথে পার্শ্ববর্তী চর ধাউরাকুটি অবস্থান করছেন। এ ব্যপারে ভূরুঙ্গামারী থানার অফিসার ইনচার্জ ইমতিয়াজ কবির জানান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান’র পক্ষে বৃদ্ধা মমিরণ বেওয়াকে নগদ ৫ হাজার টাকা ও ২টি কম্বল বিতরণ করা হয়েছে৷

এসএইচ