সানিয়াার দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তন

আগের সংবাদ

রোজ পোস্টার ছেঁড়াটাই লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের নমুনা

পরের সংবাদ

পলিটেকনিকগুলোতে চালু হোক B.Tech কোর্স

রিপন কুমার দাস

প্রকাশিত হয়েছে: জানুয়ারি ১৫, ২০২০ , ৭:০২ অপরাহ্ণ

বর্তমান বিশ্বে ডিপ্লোমা প্রকৌশল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি শিক্ষা ব্যবস্থা। এই শিক্ষা দ্বারা ৪ বছরের মধ্যেই একজন প্রকৌশলী তার কর্মজীবনে প্রবেশ করতে পারেন। ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরা পাস করার পর উচ্চশিক্ষার জন্য ডুয়েট, বিটেকসহ দুয়েকটি সরকারি প্রতিষ্ঠানে ৩০০ থেকে ৪০০ শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষার সুযোগ পেলেও, সরকারি-বেসরকারি পলিটেকনিক থেকে পাসকৃত দেড় লক্ষাধিক ডিপ্লোমা প্রকৌশলীই সরকারি প্রতিষ্ঠানে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করতে পারে না। এর ফলে কিছু সচ্ছল শিক্ষার্থী তাদের পৈতৃক সম্পদ নষ্ট করে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করে থাকে, কিন্তু যেসব শিক্ষার্থী আর্থিক দিক দিয়ে অসচ্ছল তারা আর উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করতে পারে না।

বর্তমানে সরকার ৫টি সরকারি টেক্সটাইল ডিপ্লোমা প্রকৌশল ইনস্টিটিউটে ডিপ্লোমা প্রকৌশলসহ বিএসসি প্রকৌশল কোর্স চালু করেছে, যার একটি ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের জন্য সংরক্ষণ করা হয়েছে। ফলে বস্ত্র খাতে দক্ষ জনশক্তি তৈরি করতে সহায়ক ভ‚মিকা রাখতে সক্ষম হচ্ছে। তাই ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের উচ্চশিক্ষার জন্য পুরনো ২০টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটকে পলিটেকনিক কলেজে রূপান্তর করে B.Tech কোর্স চালু করা প্রয়োজন। এসব প্রতিষ্ঠানে ডিপ্লোমা প্রকৌশল কোর্সের পাশাপাশি B.Tech কোর্স চালু থাকবে। এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন B.Tech ও বিএসসি প্রকৌশলের মধ্যে পার্থক্য হলো বিএসসি প্রকৌশল কোর্সে ৮০ ভাগ তাত্তি¡ক ও ২০ ভাগ ব্যবহারিক এবং B.Tech কোর্সটি ডিপ্লোমা প্রকৌশল কোর্সের মতো ৬০ ভাগ ব্যবহারিক ও ৪০ ভাগ তাত্তি¡ক, শুধু ইংরেজি মাধ্যমে পরিচালিত হয়। বিএসসি প্রকৌশল কোর্সে যেসব মেধাবী ডিপ্লোমা প্রকৌশলী সরকারি প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে না পারবে, তারাই B.Tech কোর্সটিতে ভর্তি হয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করতে পারবে। ই.ঞবপয কোর্সে ভর্তি হওয়ার জন্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যায় ডিপ্লোমা প্রকৌশল কোর্সে জিপিএ ২.০০ থাকতে হবে।

প্রাথমিক ভাগে ২০টি পলিটেকনিকে টিএসসি ন্যায় (২টি বিষয়ে ডিপ্লোমা প্রকৌশল কোর্স চালু করা হয়েছে) ২টি বিষয়ে ই.ঞবপয কোর্স চালু করতে হবে। B.Tech কোর্সের ১টি টেকনোলজি চালু করার সময় অবশ্যই লক্ষ রাখতে হবে যাতে ডিপ্লোমা প্রকৌশল পর্যায়ের সংশ্লিষ্ট ২টি টেকনোলজি ওই প্রতিষ্ঠানে চালু থাকে। বর্তমানে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ও কয়েকটি টেকনোলজিতে ই.ঞবপয কোর্স চালু রেখেছে। ই.ঞবপয কোর্সটি পুরনো পলিটেকনিকগুলোতে চালু হলে সরকারের অবকাঠামো, কাঁচামাল, যন্ত্রপাতির অপচয় রক্ষা হওয়াসহ সরকারি ও বেসরকারি পলিটেকনিকের অনেক মেধাবী শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষার সুযোগ পাবে।

ট্রেড ইন্সট্রাক্টর, ডোনাভান মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পটুয়াখালী।
[email protected]

এসআর