পায়রায় পরীক্ষামূলকভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু

আগের সংবাদ

বিফলে গেল নেইমারের জোড়া গোল

পরের সংবাদ

ম্যাচ ফি বাড়ল টাইগারদের

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: জানুয়ারি ১৪, ২০২০ , ১১:১৯ পূর্বাহ্ণ

গত অক্টোবরে ক্রিকেটারদের আন্দোলনের অন্যতম দাবি ছিল, ম্যাচ ফি বাড়ানো। এবারের সভায় সেই সিদ্ধান্তই নিয়েছে বিসিবি। এখন থেকে বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা টি-টোয়েন্টি খেলে পাবেন ২ লাখ টাকা করে। প্রতি ওয়ানডের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে ৩ লাখ টাকা এবং এক টেস্টের ম্যাচ ফি বাবদ থাকবে ৬ লাখ টাকা।

বাংলাদেশের জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের জন্য সুখবর দিয়েছে বিসিবি। এখন থেকে টাইগাররা টেস্ট, ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি খেলে আগের চেয়ে বেশি অর্থ পাবেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ম্যাচ ফি বেড়েছে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের। গত পরশু বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক পর্ষদের সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ ছাড়াও মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের ওপর থেকে চাপ কমানোর পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে বিসিবি। যেহেতু দেশে ভালো মানের মাঠ কম, তাই মাঠ বাড়ানোর মাধ্যমে শেরে বাংলায় হওয়া ম্যাচগুলো ভাগ করে দিতে চায় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।

গত পরশু বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে লম্বা সময় ধরে। দেশের ক্রিকেটের অতীব এ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো নিয়ে বিসিবির নতুন বছরে প্রথম সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় অনেক কিছুই আলোচনায় ছিল। পাকিস্তান সফর, কেন্দ্রীয় চুক্তির সঙ্গে ছিল ক্রিকেটারদের ম্যাচ ফি বাড়ানোর বিষয়টি। গত অক্টোবরে ক্রিকেটারদের আন্দোলনের একটা অন্যতম দাবি ছিল, ম্যাচ ফি বাড়ানোর। এবারের সভায় সেই সিদ্ধান্তই নিয়েছে বিসিবি। এখন থেকে বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা টি-টোয়েন্টি খেলে পাবেন ২ লাখ টাকা করে। প্রতি ওয়ানডের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে ৩ লাখ টাকা এবং এক টেস্টের ম্যাচ ফি বাবদ থাকবে ৬ লাখ টাকা করে।

উল্লেখ্য, সবশেষ বেতন কাঠামোতে টেস্ট ম্যাচে সাড়ে ৩ লাখ, ওয়ানডেতে ২ লাখ ও টি-টোয়েন্টিতে ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা করে পেতেন জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা।

যে কোনো আন্তর্জাতিক সিরিজ এমনকি প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচও আয়োজন করতে হয় শের-ই বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। তা ছাড়া বিপিএলে এ মাঠই বেশি ব্যবহার করা হয়। চলতি বঙ্গবন্ধু বিপিএল টুর্নামেন্টে ম্যাচের সংখ্যা ৪৬টি। এর মধ্যে জহুর আহমেদে ১২ ও সিলেটে ৬টি বাদ দিয়ে ২৮ ম্যাচই হচ্ছে মিরপুরের শেরে বাংলায়।

এ বিষয় নাজমুল হাসান পাপন বলেন, আমাদের জন্য বড় সঙ্কট মাঠ। এই সঙ্কট এত বেশি যে, ঢাকা শহরে খেলার জায়গা নেই আমাদের। তাই সিলেট স্টেডিয়ামে (আউটার) বেশ কিছু কাজ হচ্ছে। সেটা শেষ হলে প্রথম শ্রেণিসহ অনেক খেলা চালাতে পারব। ময়মনসিংহে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে আমাদের চুক্তি হয়েছে। তাদের ৮টি মাঠের ২টি আমরা নিয়ে নিচ্ছি। ওখানে কাজ করে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটসহ আরো খেলা চালানো হবে। আর কেরানীগঞ্জে একটি মাঠ আমরা তৈরি করেছি, সেটায় আরো উন্নয়ন করে খেলা আয়োজন করব।

এমএইচ