ব্যর্থতার গ্লানি নিয়ে বছর শেষ

আগের সংবাদ

সুবিধাবঞ্চিতদের পাশে পায়রা স্পোর্টিং ক্লাব

পরের সংবাদ

গান কি ছুঁয়েছে মন!

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২৮, ২০১৯ , ১:১২ অপরাহ্ণ আপডেট: ডিসেম্বর ২৮, ২০১৯ , ১:১২ অপরাহ্ণ

২০১৯ সালে অ্যালবাম প্রকাশনা থমকে গেলেও ছিল একক গানের জোয়ার। বেশিরভাগ গান প্রকাশ পেয়েছে ভিডিও আকারে। তবে শ্রোতাদের মন ছুঁয়েছে এমন গানের সংখ্যা কম। বছরের শেষ প্রান্তে এসে সবাইকে চমকে দিয়েছেন দেশবরেণ্য কণ্ঠশিল্পী রুনা লায়লা; ‘লিজেন্ড ফরএভার’ নামে মিশ্র অ্যালবাম প্রকাশের মধ্য দিয়ে। যেখানে তার সঙ্গীত পরিচালনায় গেয়েছেন ভারতের খ্যাতিমান কণ্ঠশিল্পী আশা ভোঁসলে ও হরিহরণ এবং পাকিস্তানের কণ্ঠশিল্পী রাহাত ফতেহ আলি খান ও আদনান সামি। নিজের সুর-সঙ্গীতে একক ও দ্বৈত গান গেয়েছেন রুনা লায়লা নিজেও। এটি ছিল সঙ্গীতাঙ্গনের ২০১৯ সালের সবচেয়ে আলোচিত আয়োজন।

অন্যদিকে, কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবর ভক্তদের চমকে দিয়েছেন চলচ্চিত্রে অভিনয় করে। ‘গহীনের গান‘ নামে মিউজিক্যাল ছবিটিও নির্মিত হয়েছে তার গাওয়া ৯টি গান নিয়ে। এ ছাড়া সারা বছর অসংখ্য গান প্রকাশ করে আলোচনায় ছিলেন আসিফ আকবর। তার সঙ্গে দ্বৈত গান গেয়ে প্রশংসা কুড়িয়েছেন কণ্ঠশিল্পী কর্নিয়া। তাদের গাওয়া ‘তোমার হাসি’ গানটি প্রশংসা কুড়িয়েছে অনেকের। কণ্ঠশিল্পী হাবিব তার এইচডব্লিউ চ্যানেলে একাধিক গান প্রকাশ করে আলোচনায় ছিলেন। তার একক ‘মন তুই’ এবং ফেরদৌস ওয়াহিদের সঙ্গে দ্বৈত কণ্ঠে গাওয়া ‘পাঞ্জা’ অনেকের মনোযোগ কেড়েছে।

এ ছাড়া তৌসিফের ‘আমার প্রিয়জন’, দলছুটের ‘মন দাবাড়–’, ইমরান-বৃষ্টির দ্বৈত গান ‘কিছু কথা’, আরমান আলিফের ‘ধোঁকা’, ঐশীর ‘ইস্টিশন-২’, এফ এ সুমনের ‘পরাণ কান্দে’ এবং বিশ্বকাপ ক্রিকেট নিয়ে আরেফিন রুমীর ‘বিশ্ব জয়ের পথে বাংলাদেশ’সহ গানগুলো নিয়ে অনেক আলোচনা শোনা গেছে। এর বাইরে দর্শকের মনোযোগ কেড়েছে ইমরানের একক ‘ভুলে যেতে শিখিনি’, ‘আমার কাছে তুমি অন্যরকম’ এবং লাবিবার সঙ্গে দ্বৈত কণ্ঠে গাওয়া ‘কেন এত চাই তোকে’, শুভমিতার সঙ্গে গাওয়া দ্বৈত গান ‘পাওয়া’সহ বেশ কিছু গান। শরিফুলের ‘ভাবতে ঘেন্না লাগে’ও ছিল আলোচিত গানের তালিকায়। কণ্ঠশিল্পী লিজার ‘এক যমুনা’ ও পড়শির ‘আবাহন’সহ আরো বেশ কিছু গানের মধ্য দিয়ে নিজেদের গায়কি ভাঙার চেষ্টা করেছেন তারা। প্রয়াত কণ্ঠশিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর অপ্রকাশিত দুটি গান ‘ভাবসূত্র’ ও ‘রাতের এ পিঠে’ অনেক ভক্তকে অশ্রুসিক্ত করেছে। আইয়ুব বাচ্চুর নতুন কোনো গান শুনতে পাওয়া ভক্তদের কাছে ছিল অপ্রত্যাশিত এক উপহার। এছাড়া গত অক্টোবরে ১২টি গান নিয়ে বের হয়েছে ব্যান্ড জলের গানের তৃতীয় অ্যালবাম ‘নয়ন জলের গান’। নবীন শিল্পী পলিনের গাওয়া ‘রঙ’ গানের ভিডিও নিয়ে দর্শকের মাঝে ছিল মিশ্র প্রতিক্রিয়া। ইবরার টিপুর সঙ্গীতে টিনার ‘তুমি কাছে থেকেও’ গানটি নিয়ে শ্রোতাদের মধ্যে আলোচনা শোনা গেছে। কাজী শুভ প্রতি বছরের মতো এবারো আলোচনায় ছিলেন। ‘ভুলিয়া না যাইও’, ‘মন ভাঙা’, ‘কত ভালোবাসি তোরে’সহ বেশ কিছু গান প্রকাশ করে শ্রোতার প্রত্যাশা পূরণের চেষ্টা করেছেন তিনি। লোকশিল্পী কাঙালিনী সুফিয়ার একটি মিউজিক্যাল ফিল্ম প্রকাশ পায় এ বছর। একই সঙ্গে প্রকাশ পায় ‘প্রেমিক বাঙাল’ শিরোনামের একটি গান। যেখানে কাঙালিনীর সহশিল্পী হিসেবে ছিলেন কনা ও মার্সেল। অভিনয় ও ব্যান্ড অ্যালবামের কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকায় তাহসান বিগত বছরগুলোর তুলনায় গান প্রকাশ করেছেন হাতেগোনা কয়েকটি। এর মধ্যে ‘ডানা নেই’সহ অন্য গানগুলো তার ভক্তদের অনেকটাই প্রত্যাশা পূরণ করেছে। ব্যান্ড ভাইকিংসকে এ বছর বেশ সক্রিয় দেখা গেছে।

‘ক্রোধ’ এবং আইয়ুব বাচ্চুর স্মরণে প্রকাশিত ‘ঈশ্বর’ গানটি সঙ্গীতপ্রেমীদের প্রশংসা কুড়িয়েছে। অন্যদিকে বিরতি ভেঙে পান্থ কানাই প্রকাশ করেছেন একক গান ‘সোনা যাদু’। একইভাবে কণ্ঠশিল্পী ডলি সায়ন্তনীও এ বছর নতুন সব আয়োজন নিয়েছিলেন ভীষণ ব্যস্ত। ফোক-ফিউশন, মেলোডিসহ বেশ কয়েকটি ঘরানার গান নিয়ে আলোচনায় এসেছেন। হৃদয় খানের ‘রূপসী’ ও ‘জুয়াড়ি’ এবং হাবিবের ‘যে ছিল আড়ালে’, ‘আনমনা মন’ গানগুলোর ভিডিওতে দর্শক নতুন গল্পের স্বাদ খুঁজে পেয়েছেন। প্লেব্যাকের বাইরে কনাকে এ বছর সেভাবে একক গান প্রকাশ করতে দেখা যায়নি। এরপরও তার যে কটি গান প্রকাশ পেয়েছে, তার মধ্যে ইমরানের সঙ্গে দ্বৈত কণ্ঠে গাওয়া ‘তোমাকে ছুঁয়ে দেব’ অনেকের ভালো লেগেছে। এ ছাড়া ডি-রকস্টার শুভর ‘আগে জানলে’, কিশোর পলাশের ‘উড়ে আয়’, ইমন খানের ‘মন নিয়ে খেলা’ গানগুলোয় কিছুটা হলেও ভিন্নতা আনার চেষ্টা ছিল।

সালমা এ বছর হাতেগোনা কয়েকটি গান প্রকাশ করেছেন। তার মধ্যে ‘কে যে কখন’ গানটি অনেকের মনোযোগ কেড়েছে। প্রীতম হাসান গান গাওয়া ও সঙ্গীতায়োজনের পাশাপাশি অভিনয় ও বিজ্ঞাপনের মডেল হিসেবে দর্শকের নজর কেড়েছেন। বছরের শেষ প্রান্তে প্রকাশ পেয়েছে ন্যান্সির ‘কী করে তোমায়’ শিরোনামের একটি গান। এ ছাড়া প্রকাশ পেয়েছে এসআই টুটুলের ‘হৃদয়ের লেনাদেনা’, তানযীব সারোয়ারের ‘তোরে ছাড়া’সহ আরো বেশ কিছু গান। ন্যান্সি এবং এসআই টুটুল এ বছর গান প্রকাশ করেছেন অন্যান্য বছরের তুলনায় সবচেয়ে কম। ফাহমিদা নবীর ‘প্রিয় বাংলাদেশ’, বাপ্পা মজুমদারের ‘মন পবনের নাইয়া’, তাহসানের ‘আদর’ এবং মিনারের ‘আয়না’ গানগুলো নিয়ে শ্রোতার আগ্রহ দেখা গেছে। তবে ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত এ গানগুলো জনপ্রিয় হয়ে উঠছে কিনা, তা অনুমান করা কঠিন।

ডিসি

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, ভোরের কাগজ লাইভ এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়