শাকিব ছাড়া বুবলি কতটা এগোতে পারবে?

আগের সংবাদ

নেপাল পৌঁছেছে শান্তরা

পরের সংবাদ

বিজয় মাসের প্রথম প্রভাত

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: ডিসেম্বর ১, ২০১৯ , ৯:৫৭ অপরাহ্ণ

শুরু হলো বাঙালির কাঙ্ক্ষিত স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা ও গণমুক্তির সংগ্রামে বিজয় অর্জনের মাস ডিসেম্বর। বিজয়ের মাসের প্রথম প্রভাত উদযাপনকে উজ্জীবিত করতে প্রতি বছরের মতো এবারও আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতির সৃজনশীল সংগঠন পদক্ষেপ বাংলাদেশ।

সাংস্কৃতিক সংগঠন ও শিল্পীদের অংশগ্রহণে রবিবার (১ ডিসেম্বর) সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হাকিম চত্বরে ‘বিজয় মাসের প্রথম প্রভাত’ শীর্ষক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। পদক্ষেপ বাংলাদেশ-এর সভাপতি বাদল চৌধুরীর সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য ও কবি ড. মুহাম্মদ সামাদ। ঘোষণাপত্র পাঠ করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক জান্নাতুন নিসা।

আলোচনা অনুষ্ঠান শেষে আবৃত্তি, দলীয় সঙ্গীত, দলীয় নৃত্য, দলীয় আবৃত্তি, একক সঙ্গীত ও একক আবৃত্তির মতো সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদের পরিবেশনার অনেকটা জুড়েই ছিলো- মা, মাতৃভূমি, বাঙালি, বাংলা ভাষা, মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা, বাংলাদেশ এবং মাটি ও মানুষের কল্যাণ কামনা।

অনুষ্ঠানে একক সঙ্গীত পরিবেশন করেন আরিফুর রহমান, আবিদা রহমান সেতু, মোহনা দাশ। একক আবৃত্তি করেন নায়লা তারান্নুম চৌধুরী কাকলি, মাহফুজা আক্তার মীরা। দলীয় সঙ্গীত পরিবেশন করে ক্রান্তি, স্বভূমি লেখক শিল্পী কেন্দ্র, সমস্বর, সত্যেন সেন শিল্পী গোষ্ঠী ও পদক্ষেপ বাংলাদেশ। স্পন্দন, নৃত্যাক্ষ- দলীয় নৃত্য এবং ঢাকা স্বরকল্পন- দলীয় আবৃত্তি পরিবেশন করে। নাটক পরিবেশন করে ঢাকা মৌলিক নাট্যদল। এছাড়াও কবিকণ্ঠে বিজয়ের ছড়া ও কবিতা পাঠ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সংস্কৃতিজন মানজারুল ইসলাম চৌধুরী সুইট।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ড. মুহাম্মদ সামাদ বলেন, ডিসেম্বর মাস রাষ্ট্র পাওয়ার মাস। কষ্ট পাওয়ার মাস। বাঙালি জাতির একটি নিজস্ব রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপরিচয়ে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার মাস ডিসেম্বর। পাকিস্তান সেনাবাহিনী ও তার এ দেশীয় দোসরদের পরাস্ত করার মাস। আবার ৩০ লাখ মানুষ হারানোর দুঃসহ কষ্টের মাস। একাত্তরে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াকু বাঙালির মুক্তিযুদ্ধ এ মাসে বিজয়ের সুমহান মর্যাদায় অভিষিক্ত হয়েছিল।

তিনি বলেন, স্বাধীনতাপ্রিয় বাঙালি জাতি আজ নতুন আশায় বুক বেঁধেছে; ৩০ লাখ প্রাণের বিনিময়ে পাওয়া স্বাধীনতাকে অর্থপূর্ণ করে তুলতে দীর্ঘ পথচলায় দুর্নীতি-অপশাসন ও স্বাধীনতা বিরোধী সাম্প্রদায়িক অপশক্তির মতো হাজারো জঞ্জালে ভরে যাওয়া স্বপ্নের জাল ঝেড়ে পরিষ্কার করার সময় এসেছে। আর স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশ বিনির্মাণের চলমান অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকুক আজকের ‘বিজয় মাসের প্রথম প্রভাত’ অনুষ্ঠানের দাঁড়িয়ে এই হোক আমাদের অঙ্গিকার।

এনএম