১৭ ইউপিতে নৌকার প্রার্থী চূড়ান্ত

আগের সংবাদ

ইবি ছাত্র ইউনিয়নের মশাল মিছিল

পরের সংবাদ

শিল্পকলায় নতুনের উৎসব শুরু

কাগজ প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ২৯, ২০১৯ , ৭:৫৯ অপরাহ্ণ

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথিই সাধারনত প্রদীপ প্রজ্জালন করেন। কিন্তু প্রথা ভেঙে উদ্বোধনী প্রদীপ প্রজ্বালনে অংশ নিলেন নতুন প্রজন্মের ৭ জন প্রতিশ্রুতিশীল নারী সংস্কৃতিসেবী- বন্যা মির্জা, সামিনা লুৎফা নিত্রা, তনিমা হামিদ, আইরিন পারভীন লোপা, সাধনা আহমেদ, হৃদি হক ও জ্যোতি সিনহা।
কারণ প্রতিশ্রুতিশীল তরুন মঞ্চ নাটক নির্দেশকদের প্রণোদনা প্রদানের মাধ্যমে নতুন নাটক মঞ্চে আনার এবং সেই নাটকগুলোর মঞ্চায়নের উদ্যোগ নিয়েছে নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়। তারই ধারাবাহিকতায় সপ্তাহব্যাপী ‘নতুনের উৎসব ২০১৯’ শিরোনামে এ নাট্য উৎসবের আয়োজন করেছে নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়। শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে আয়োজিত এই উৎসব বাংলাদেশের মঞ্চ নাট্যচর্চায় এ যেন এক নতুন সংযোজন।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে.এম. খালিদ। নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের সাধারণ সম্পাদক নাট্যব্যক্তিত্ব আতাউর রহমানের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য দেন উৎসবের আহবায়ক ও দলের সহ-সভাপতি সারা যাকের। বিশেষ অতিথি ছিলেন আইটিআই’র সাম্মানিক সভাপতি রামেন্দু মজুমদার, আরণ্যক নাট্য দলের প্রধান মামুনুর রশীদ, ঢাকা থিয়েটারের সভাপতি নাসিরুদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু এবং শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী।
এই কার্যক্রমে তরুণ নাট্য নিদের্শকদের অনেকে নতুন নাটকের প্রস্তাব জমা দিয়েছিলেন। এর মধ্য থেকে নাটক নির্বাচন করা হয়েছে নাট্যব্যক্তিত্ব তারিক আনাম খান ও প্রফেসর আবদুস সেলিম এবং নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের জ্যেষ্ঠ সদস্যবৃন্দ সমন্বয়ে গঠিত জুরী বোর্ডের মাধ্যমে।
এ বছর যেসব নির্দেশক প্রণোদনা পেয়েছেন তারা হলেন : শামী সাগর, হৃদি হক, সাইদুর রহমান লিপন, কাজী তৌফিকুল ইসলাম ইমন ও শুভাশিস সিনহা।
প্রথম দিনে মঞ্চস্থ হয় পান্থ শাহ্রিয়ারের রচনা ও নির্দেশনায় নাটক ‘কালো জলের কাব্য’। উইলিয়াম শেক্সপিয়ারের ‘মার্চেন্ট অব ভেনিসের’ ভাবানুবাদের নাটকটিতে অভিনয় করছেন আসাদুজ্জামান নূর। এই নাটক নিয়ে নির্দেশক পান্থ শাহরিয়ার জানালেন, ‘অনেক বছর ধরে শেক্সপিয়ারের “মার্চেন্ট অব ভেনিস”এর গল্পটা মাথার ভেতর পোকা হয়ে ঘাপটি মেরে বসে ছিল। এবার তার নাড়া পড়ল। আমি গল্পটাকে দেখতে চেয়েছি এই মুহূর্তে। কিন্তু বিপত্তিটা হচ্ছে অমন ভয়ংকর একটা মুহূর্তকে কী করে এখনকার সময়ে দেখানো যায়। সে জন্য খুঁজতে শুরু করি এমন এক জায়গা, যেটা কিনা আমাদের খুব কাছে হলেও বড় অচেনা। আমাদের মতো করে দাঁড় করাতে চেয়েছি অন্য এক গল্প, যেটা “মার্চেন্ট অব ভেনিস”এর ছায়া অবলম্বনে হলেও শেক্সপিয়রের “মার্চেন্ট অব ভেনিস” নয়। গল্পটা আমাদের, একান্তই আমাদের।’
এই উৎসবের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের একটি নতুন নাটক এবং মঙ্গলদীপ ফাউন্ডেশন প্রযোজিত দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিল্পীদের অভিনীত একটি নতুন নাটক। প্রতিটি নাটকের প্রথম মঞ্চায়ন হবে এই উৎসবে।
এই নাট্য কার্যক্রম এবং উৎসবকে সফল করতে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়, ইউনিলিভার, বার্জার পেইন্টস এবং ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড।